logo

সোমবার, ১৭ ডিসেম্বর ২০১৮ | ৩ পৌষ, ১৪২৫

header-ad

বাগেহাটে ভুট্টা চাষে কৃষকদের আগ্রহ বাড়ছে

এস.এম. সাইফুল ইসলাম কবির, বাগেরহাট | আপডেট: ০২ মে ২০১৮

 

বাগেহাটের মোরেলগঞ্জে ভুট্টা চাষে কৃষকদের আগ্রহ বাড়ছে । ফলন ও লাভ বেশি হওয়ায় ধান চাষের পাশাপাশি ভুট্টা চাষ করে কৃষকরা তাদের সংসারের স্বাচ্ছন্দ ও স্বচ্ছলতা ফিরে পাচ্ছে। তাছাড়া যে কোন মৌসুমে ভুট্টা চাষ করা সম্ভব।

সরেজমিনে জানা গেছে, উপজেলা বলইবুনিয়া ইউনিয়নের কালিকাবাড়ি গ্রামের শারাফাত হোসেন ও জালাল হোসেন মন্টু এ বছরে এক একর জমিতে ভুট্টা চাষ করেছেন। আমবাড়য়া গ্রামের সুবাস মন্ডল ১ একর, সোবাহান শেখ ৫০ শতক। কিসমত জামুয়া গ্রামের শাহ আলম খান ১ একর, হারুন অর রশিদ ৮০ শতক, সিদ্দিকুর রহমান ৫০ শতক, জুলফিকার ৭০ শতক, আবুল খায়ের ২ একর, সেকেন্দার খান ৫০ শতক, রশিদ খান ১ একর, সিরাজ কান ১ একর ও দোনা গ্রামের শহিদুল ইসলাম ১ একর জমিতে ভুট্টা চাষ করেছে।

এসব কৃষকরা সহায়তা হিসেবে উপজেলা কৃষি দপ্তর থেকে কৃষকরা বীজ, সার, পরিচর্যা ও ব্রিফিং পেয়েছেন। ব্যক্তিগত ও যৌথভাবেও এলাকার কৃষকরা এ ভুট্টা চাষ করেছে। এ এলাকায় গতবছরের তুলনায় অনেক বেশি জমিতে ভুট্টা চাষ হয়েছে বলে জানান উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা মো. মিজানুর রহমান।

তিনি জানান, ৯৫ দিনের মধ্যে ভুট্টার ফলন পাওয়া সম্ভব। মাছ, গবাদি পশু, মুরগীর খাবারসহ বিভিন্ন খাবার তৈরীতে ভুট্টার জুড়ি নেই। এ বছরে হেক্টর প্রতি (২৫০ শতক) ১৫০ মন ভুট্টা হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। গেল বছরে ৩৩ শতকে ২৪ মন ভুট্টা উৎপাদিত হয়েছে। চলতি বছরে ২৮ -৩০ মন হবে বলে কৃষক শরাফাত হোসেন জানান।

উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা মো. জাকির হোসেন বলেন, ধানের চেয়ে লাভজনক হলো ভুট্টা চাষ। আর এতে আগ্রহ বাড়ছে কৃষকদের।

উপজেলা কৃষি অফিসার কৃষিবিদ অনুপম রায় বলেন, অত্র উপজেলাকে কৃষিতে সমৃদ্ধ এলাকা হিসেবে গড়ে তুলতে নিরলস চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে। ধানের পাশাপাশি ভুট্টা চাষ অধিক লাভজনক হওয়ায় এতে কৃষকদের আগ্রহ বাড়ছে । এ চাষে কৃষকদের আরো উৎসাহিত করা হচ্ছে।

ফেমাসনিউজ২৪/এসএমএসআইকে/কেআর