logo

শনিবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮ | ৭ আশ্বিন, ১৪২৫

header-ad

উন্নত প্রযুক্তিতে ১০ লাখ হেক্টর লবনাক্ত জমিতে ফসল চাষ

কৃষি ডেস্ক | আপডেট: ২৫ জুন ২০১৮

উন্নত প্রযুক্তির মাধ্যমে ১০ লাখ হেক্টর পতিত জমিতে ৩৯টি লবনসহিষ্ণু জাতের ফসল উদ্ভাবন করেছে সাতক্ষীরার পরমাণু কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট। কৃষি গবেষণা ইনস্টিউিটসহ তিনটি প্রতিষ্ঠানের সহযোগিতায় কিছু ফসল বাণিজ্যিকভাবে চাষ শুরু করেছেন কৃষকরা।

জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে উচ্চতা বৃদ্ধি পাচ্ছে সমুদ্রপৃষ্ঠের। উপকূলীয় জেলা সাতক্ষীরার মাটি ও পানিতেও বেড়েছে লবণাক্ততা। ফলে বিপাকে পড়েছেন চাষিরা।

লবণসহিষ্ণু জাতের ফসল উদ্ভাবন ও পরীক্ষণের জন্য সাতক্ষীরার বিনেরপোতা গ্রামে কাজ করছে কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট, ধান গবেষণা ইনস্টিটিউট ও পরমাণু কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট। এরই মধ্যে তারা উদ্ভাবন করেছেন ধান, গম, আলু, ভুট্টা, খেশারি, বার্লি, কাউন, সয়াবিন, বাদাম, মুগডাল দেশীকুলসহ বিভিন্ন লবনসহিষ্ণু জাতের ফসল। এর মধ্যে বানিজ্যিকভাবে ভুট্টা ও ধান চাষ শুরু হয়েছে।

কৃষিবিদরা বলছেন, ধানের নতুন জাত উদ্ভাবনে সময় লাগছে মাত্র তিন বছর। লবনাক্ত জমিতে চাষের জন্য ব্রি-৬৭ জাতের ধান উদ্ভাবিত হয়েছে বলেও জানান তারা।

জমির লবনাক্ততা কমিয়ে আনার ওপর কাজ শুরু করেছে কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট। পতিত জমি চাষের আওতায় আনতে নিরলস কাজ করছে প্রতিষ্ঠান তিনটি।
ফেমাসনিউজ২৪/এফএম/এমএম