logo

মঙ্গলবার, ১৪ আগস্ট ২০১৮ | ৩০ শ্রাবণ, ১৪২৫

header-ad

জবি শিক্ষার্থীদের অবরোধে ছাত্রলীগের বাধা

এফ. আর. বিপুল, জ‌বি | আপডেট: ০৯ এপ্রিল ২০১৮

সরকারী চাকরিতে বৈষম্যমূলক কোটাপ্রথা সংস্কার ও বিভিন্ন স্থানে আন্দোলনকারীদের উপর হামলার প্রতিবাদে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) সাধারণ শিক্ষার্থীদের অবরোধ কর্মসূচীতে ছাত্রলীগের বাধা দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। সোমবার বিকেল আড়াইটার দিকে অবরোধকারীরা পুরান ঢাকার নয়া বাজার মোড় অবরোধ করে অবস্থান নিলে এর কিছুক্ষণ পর ছাত্রলীগ কর্মীরা এসে তাদের আন্দোলন থেকে সরে দাঁড়াতে বলেন।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, পুলিশ আমাদের যথেষ্ট সহযোগীতা করলেও দুপুর ৩টার দিকে ছাত্রলীগের কিছু কর্মীরা মোটর সাইকেলে করে এসে আমাদের সরে যেতে বলেন। এসময় তারা বাইকের হর্ণ বাজিয়ে ও শিক্ষার্থীদের শরীরে বাইক লাগিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করেন। তবে প্রথম দিকে শিক্ষার্থীরা হকচকিয়ে দূরে চলে যেতে শুরু করলেও একটু পর আবার ফিরে এসে বাইকগুলো ঘিরে ফেলেন এবং ‘জয় বাংলা’, ‘জয় বঙ্গবন্ধু’ স্লোগান দিতে থাকেন। এসময় তারা চলে যান।

বাইকে থাকা ছাত্রলীগ নেতাদের মধ্যে অধিকাংশই জবি ছাত্রলীগ সভাপতি তরিকুল ইসলামের কর্মী বলে জানা যায়। এর মধ্যে বহিষ্কৃত ছাত্রলীগ কর্মী রাজীব বিশ্বাস সাধারণ শীক্ষার্থীদের দিকে তেড়ে যান বলেও জানান আন্দোলনকারীরা।

এরপর বেলা সাড়ে তিনটার দিকে আন্দোলনকারীরা মিছিল নিয়ে ক্যাম্পাসে ফিরে যান এবং এই এলাকার যান চলাচল পুনরায় চালু হয়।

ওদিকে আন্দোলনের পরবর্তী পদক্ষেপ কি হবে তা পরবর্তীতে ফেসবুক গ্রুপে জানিয়ে দেওয়া হবে বলে ঘোষণা দিয়েছেন আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা।

এ বিষয়ে আন্দোলনকারী একজন শিক্ষার্থী হতাশা প্রকাশ করে ফেমাসনিউজকে বলেন, যেখানে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগ এই কোটাপ্রথা সংস্কারের দাবিতে একাত্মতা পোষণ করেছে সেখানে জবি ছাত্রলীগ কেন আমাদের সরে যেতে বলছে বোধগম্য নয়। হয়ত তাদের চাকরির দরকার নেই, এভাবেই চলতে পারবেন কিন্তু আমাদের তো পেট চালাতে চাকরি করতে হবে। তাই আমরা আন্দোলন চালিয়ে যাব।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে জবি ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক শেখ জয়নুল আবেদীন রাসেল ফেমাসনিউজকে বলেন, আমি এমন কিছু শুনিনি। আমরাও তো ছাত্র। আমি শুনেছি, আমাদের ছেলেরা গুলিস্থান পার্টি অফিসে যাওয়ার সময় বাইক থেকে নামিয়ে ২টা ছেলেকে মারধর করেছে।

ফেমাসনিউজ২৪/এসএ/এস