logo

বুধবার, ২৩ মে ২০১৮ | ৯ জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৫

header-ad

সুফিয়া কামাল হল থেকে ছাত্রীদের বের করে দেয়ার অভিযোগ, বিক্ষোভ

ঢাবি প্রতিনিধি | আপডেট: ২০ এপ্রিল ২০১৮

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) কবি সুফিয়া কামাল হল থেকে সাধারণ ছাত্রীদের বের করে দেয়া হচ্ছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। ছাত্রীদের অভিযোগ, সুফিয়া কামাল হল থেকে প্রায় ১০ শিক্ষার্থীকে বের করে দেয়া হয়েছে। হল প্রাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. সাবিতা রেজওয়ানা রহমান তাদের বের করে দেন।

অভিযোগ রয়েছে, সন্ধ্যার পর থেকে তাদেরকে বিভিন্নভাবে হয়রানি করা হয়। হুমকি দেয়া হয় হলচ্যুত করার। এ ছাড়াও মেয়েদের মুঠোফোন কেড়ে নিয়ে চেক করা হয়। বাড়িতে ফোন দিয়ে অভিভাবককে বকাঝকা করেন প্রাধ্যক্ষ। 

এ ঘটনার প্রতিক্রিয়ায় এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত দুইটায় হলটির সামনে বিক্ষোভ করছেন কোটা সংস্কার আন্দোলনের নেতাকর্মীরা। অন্তত ২০-৩০ জন হলটির সামনে জড়ো হয়ে হল প্রশাসনের বিরুদ্ধে স্লোগান দেন এবং প্রভোস্টের পদত্যাগ দাবি করেন। এদিকে, ছাত্রীদের রাতের আঁধারে বের করে দিয়ে নিরাপত্তাহীনতার দিকে ঠেলে দেওয়ার অভিযোগে সুফিয়া কামাল হলের প্রভোস্টের পদত্যাগ দাবি করে হলটির সামনে রাত দেড়টার দিকে অবস্থান নিয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের এক শিক্ষার্থী।

হল ছাত্রলীগের সভাপতি ইসরাত জাহান এশাকে হেনস্তার অভিযোগে তাদের বের করে দেয়া হয়। গভীর রাতে ছাত্রীদের স্থানীয় অভিভাবকের হাতে ওই ছাত্রীদের তুলে দেয়া হয়। কান্না করতে করতে বের হচ্ছেন ছাত্রীরা। তবে তারা সংবাদ মাধ্যমে কোনো ধরনের কথা বলছেন না।

বের করে দেয়া ছাত্রীদের মধ্যে রয়েছেন অন্তি (পদার্থ), রিমি (পদার্থ), শারমিন (গণিত)। এ ছাড়া বাকিদের নাম পাওয়া যায়নি। সংখ্যা আরও বেশি হবে বলে দাবি করেছেন বেশ কয়েকজন ছাত্রী। তারা বলেন, প্রাধ্যক্ষ অন্য মেয়েদের হল থেকে বের হতে দিচ্ছেন না। ফেসবুকে যেন কোনো ধরনের পোস্ট দেয়া না হয় সে ব্যাপারেও হুঁশিয়ার করছেন।

ভুক্তভোগী এক ছাত্রীর বাবা ফারুক হাওলাদার সাংবাদিকদের বলেন, আমাকে হল থেকে একজন মহিলা ফোন দিয়ে হলে আসতে বলেছে। তখন আমি বললাম আমার বাসা ধামরাই। আমি ঝড়-বৃষ্টির মধ্যে কীভাবে আসব। তখন ওই মহিলা আমাকে বলে হলে আপনাকে আসতেই হবে। আমি কিছু বলতে পারব না। কী কারণে আমাকে আসতে বলেছে। এখন আমি আসলাম দেখি করে।

ছাত্রীদের হল কেন বের করে দেয়া হচ্ছে- এ প্রসঙ্গে হল প্রাধ্যক্ষের মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি রিসিভ করেননি।

এ বিষয়ে ঢাবি উপাচার্য অধ্যাপক আখতারুজ্জামান বলেন, হল থেকে ছাত্রীদের কেন বের করে দেয়া হচ্ছে সেটি প্রাধ্যক্ষ ভালো বলতে পারেন। তবে দুই-তিনজনকে তাদের অভিভাবকের হাতে দেয়া হয়েছে শুনেছি। আর রাতে কেন বের করা হচ্ছে সেটি ম্যাম ভালো বলতে পারেন।

ফেমাসনিউজ২৪/আরআর/আরইউ