logo

শনিবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮ | ৭ আশ্বিন, ১৪২৫

header-ad

‘অর্থ পাচার বেড়েছে বাংলাদেশ থেকে’

নিজস্ব প্রতিবেদক | আপডেট: ১০ জুলাই ২০১৮

বাংলাদেশ থেকে বিদেশে অর্থ পাচার বেড়েছে বলে জানিয়েছেন শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ড. মো. শহিদুল ইসলাম।

আজ মঙ্গলবার কাস্টমস গোয়েন্দার সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা বলেন।

ড. মো. শহিদুল ইসলাম বলেন, আগের যে কোনো সময়ের তুলনায় দেশে থেকে বিদেশে অর্থপাচারের ঘটনা বেড়ে গেছে । তবে এ বিষয়ে আমরা নিয়মিত কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছি। ইতোমধ্যেই মানিল্ডারিংয়ের সঙ্গে কিছু প্রতিষ্ঠানকে চিহ্নিত করা হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে তদন্ত চলছে। দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

সংবাদ সম্মেলনে শুল্ক ফাঁকি বা চোরাইভাবে আনা বিলাসবহুল গাড়ি সম্পর্কে তিনি বলেন, যারা অসাধু উপায়ে এসব বিলাসবহুল গাড়ি নিয়ে আসছেন, তাদের বিরুদ্ধে আমরা দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণ করছি। ইতোমধ্যে অপনারা দেখেছেন বেশ কয়েকটি অভিযানে শুল্ক ফাঁকি দিয়ে আনা গাড়ি আটক করেছি। অনেকে আবার ভয়ে গাড়ি রাস্তায় ফেলে চলে গেছেন।

এ সময় তিনি উত্তরা ক্লাবের আটক ৫ কোটি টাকার মদের বিষয়ে বলেন, আটক মদের বিপরীতে কোনো ধরনের কাগজ দেখাতে পারেনি উত্তরা ক্লাব। তাদের এখানে বারের লাইসেন্স থাকলেও তারা অনেক দিন ধরে মদ আমদানি করে না। সরকারি শুল্ক ফাঁকি দিতে অবৈধভাবে মদ আমদানি করে আসছে ক্লাবটি। আর তারা এখন পর্যন্ত আমাদের কাছে আটক মদের কোনো কাগজ এনে দিতে পারেনি।

চোরাই বা শুল্ক ফাঁকি দিয়ে আনা মদ রাজধানীর অনেক অভিজাত ক্লাবে আছে এমন তথ্য জানিয়ে শুল্ক গোয়েন্দার ডিজি বলেন, আমাদের কাছে তথ্য আছে শুধু উত্তরা ক্লাব নয়, রাজধানীর অনেক অভিজাত ক্লাবে শুল্ক ফাঁকি দিয়ে আনা মদ রয়েছে। আমরা তাদের বিরুদ্ধে তদন্ত করছি। সুনির্দিষ্ট প্রমাণ পেলে সেসব ক্লাবেও অভিযান চলবে।

এ সময় সংবাদ সম্মেলনে শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তরের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

ফেমাসনিউজ২৪.কম/আরআই/আরবি/এমআরইউ