logo

শনিবার, ২৩ জানুয়ারি ২০২১ | ১০ মাঘ, ১৪২৭

header-ad

প্রস্তুত শহীদ মিনার

ফেমাসনিউজ ডেস্ক | আপডেট: ২০ ফেব্রুয়ারি ২০১৯

আর মাত্র কয়েক ঘণ্টা পরই ফুলে ফুলে ভরে যাবে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার। একুশের প্রথম প্রহরে ভাষা আন্দোলনের বীর শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাবেন রাষ্ট্রপতি আব্দুল হামিদ, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এর পরেই সর্বস্তরের মানুষের জন্য খুলে দেয়া হবে শহিদ মিনার। দেশজুড়ে পালিত হবে মহান শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস। দিনটি পালন উপলক্ষে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারসহ রাজধানীজুড়ে নেয়া হয়েছে ব্যাপক প্রস্তুতি। নিরাপত্তার চাদরে ঢাকা থাকবে শহীদ মিনারসহ এর চারপাশের এলাকা।

প্রতিবছরই হাজারো মানুষের বিনম্র শ্রদ্ধায় রাজধানীর সব পথ গিয়ে মিশে শহীদ মিনারে। ৬৭ বছর আগে এই একুশে ফেব্রুয়ারিই তো এককাতারে এনে দাঁড় করিয়েছিল সব ধর্ম আর পেশার মানুষকে। সময়ের সঙ্গে সঙ্গে একুশ মিশে গেছে এ দেশের মানুষের আবেগ, অনুভূতি আর শিহরণে। পেয়েছে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের মর্যাদা।

একুশের প্রথম প্রহরে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানাতে ধুয়েমুছে প্রস্তুত করা হয়েছে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের মূল বেদি। বরাবরের মতো এবারও কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার ও আজিমপুর কবরস্থানে সর্বস্তরের জনসাধারণের শ্রদ্ধা নিবেদনসহ যাবতীয় অনুষ্ঠানের ব্যবস্থাপনার দায়িত্ব পালন করবে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক ড. এ কে এম গোলাম রব্বানী বলেন, আর মাত্র কয়েক ঘণ্টা পরই ভাষা শহীদদের স্মরণে শহীদ মিনারে শ্রদ্ধা জানাবো। ঐতিহাসিক ধারাবাহিকতার অংশ হিসেবে ২১শে ফেব্রুয়ারি দিনটির সার্বিক দায়িত্ব ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় পালন করে। রাষ্ট্রীয় আচার অনুসারে রাষ্ট্রপতি এবং প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা জানানোর মধ্য দিয়ে রাত ১২ টা ১ মিনিটে ঐতিহাসিকভাবে এ অনুষ্ঠানটি শুরু হবে। রাষ্ট্রীয় আচার সম্পন্ন হবার সাথে সাথে আন্তর্জাতিক মহল, নগরবাসী, আপামোর জনগণের জন্য পলাশী গেট খুলে দেয়া হবে।

শ্রদ্ধা জানাতে আসা সবার প্রতি অনুরোধ করে তিনি বলেন, শৃঙ্খলা, নিরাপত্তা, সম্মান আমরা যার যার অবস্থান থেকে বজায় রাখবো। তাহলেই অনুষ্ঠানটি এযাবতকালের স্রেষ্ট অনুষ্ঠান হবে।

এ ছাড়া একুশে ফেব্রুয়ারি সামনে রেখে দেশের সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনা করে পর্যাপ্ত নিরাপত্তাব্যবস্থা নিয়েছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। শহীদ মিনারের নিরাপত্তাব্যবস্থা পর্যবেক্ষণে ঢাকা মহানগর পুলিশ (ডিএমপি) কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়া বলেছেন, আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস নির্বিঘ্নে পালনে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের পক্ষ থেকে সবধরনের প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে। একুশে ফেব্রুয়ারি ঘিরে কোনো নিরাপত্তার হুমকি নেই, সর্বোচ্চ সতর্ক রয়েছে ডিএমপি। কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারকে ঘিরে নেয়া হয়েছে চার স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা।
ফেমাসনিউজ২৪/এমআরইউ/এফএম