logo

শুক্রবার, ১৯ এপ্রিল ২০১৯ | ৬ বৈশাখ, ১৪২৬

header-ad

৩০ লাখ মুক্তিপণ চেয়ে পুলিশের জালে পুলিশের দুই এএসআই

আইন-অপরাধ ডেস্ক | আপডেট: ০৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৯

তিন তরুণকে অপহরণ করে ৩০ লাখ টাকা মুক্তিপণ চাওয়ার অভিযোগে করা মামলায় দুই পুলিশ সদস্যকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে। ৮ ফেব্রুয়ারি শুক্রবার তাদের গ্রেপ্তার দেখানো হয়।

গ্রেপ্তার হওয়া দুজন হলেন- গাজীপুরের কালিয়াকৈর থানার সহকারী উপপরিদর্শক (এএসআই) আবদুল্লাহ আল মামুন ও টাঙ্গাইলের মির্জাপুর থানার এএসআই মুসরাফিকুর রহমান।

বিকেলে সংবাদ সম্মেলন করে এ কথা জানান গাজীপুরের পুলিশ সুপার শামসুন্নাহার। তিনি বলেন, পুলিশের কোনো সদস্য অপরাধ করলে তাদের ছাড় দেয়া হবে না। কারও কাছে কোনো তথ্য থাকলে তা জানাতে অনুরোধ করেন তিনি।

মামুন ও মুসরাফিকুরকে গতকাল বৃহস্পতিবার প্রত্যাহার করে নিজ নিজ পুলিশ লাইনসে সংযুক্ত করা হয়। পরে দুজনকেই গ্রেপ্তার দেখানো হয়। আজ তাদের আদালতে পাঠানো কথা রয়েছে। অপহরণ ও মুক্তিপণের কথা স্বীকার করেন তারা। তবে তারা পরস্পরের ওপর দোষ চাপিয়েছেন।

অপহরণের শিকার তিন তরুণ হলেন- কালিয়াকৈর উপজেলার বড়ইবাড়ি এলাকার রায়হান সরকার, লাবিব হোসেন ও শ্রীপুর উপজেলার চন্নাপাড়া এলাকার নওশাদ ইসলাম। অপহরণ করে মুক্তিপণ চাওয়ার অভিযোগে পুলিশের দুই সদস্যের নাম উল্লেখ করে আজ কালিয়াকৈর থানায় মামলা করেন রায়হান সরকার। এ মামলায় ৬-৭ জনকে অজ্ঞাত আসামি করা হয়েছে।

রায়হান জানান, গত বুধবার বিকেল সাড়ে তিনটার দিকে ব্যক্তিগত গাড়িতে করে রাজধানীর বাণিজ্য মেলার উদ্দেশ্যে রওনা হন তারা পাঁচ বন্ধু। বিকেল পাঁচটার দিকে তারা ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কের কালিয়াকৈর উপজেলার সূত্রাপুর এলাকায় শিলা-বৃষ্টি ফিলিং স্টেশনে যান গ্যাস নিতে।

'গ্যাস নেয়ার সময় তরিবুল্লাহ ও রাকিবুল রহমান নামে দুই বন্ধু গাড়ি থেকে নেমে পাশের দোকানে চা খেতে যান। বাকিরা গাড়িতেই অবস্থান করছিলেন। এ সময় দুটি গাড়ি নিয়ে সেখানে হাজির হন এএসআই মামুন ও মুসরাফিকুর। তারা সাদা পোশাকে ছিলেন।'

রায়হান জানান, মুসরাফিকুরের মাইক্রোবাসে সাদা পোশাকের আরও কয়েকজন লোক ছিলেন। তারা রায়হানসহ তিন বন্ধুকে টেনেহিঁচড়ে নামিয়ে মাইক্রোবাসে তোলেন। পরে তাদের টাঙ্গাইলের মির্জাপুরের দেওড়া এলাকায় নির্মাণাধীন উড়ালসড়কের নিচে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে তিন বন্ধুকে মুক্তি দেয়ার বিনিময়ে ৩০ লাখ টাকা দাবি করেন ওই দুই পুলিশ কর্মকর্তা।

'দাবি করা টাকা না দিলে ক্রসফায়ারে মেরে ফেলারও হুমকি দেয়া হয়। পরে বেশকিছু সময় তাদের সঙ্গে টাকা নিয়ে দেনদরবার হয়। একপর্যায়ে দুই এএসআই ১০ লাখ টাকার বিনিময়ে ছেড়ে দেয়া হবে বলে জানান।'

অপহরণের কবল থেকে রক্ষা পাওয়া দুই বন্ধু তরিবুল্লাহ ও রাকিবুল মুঠোফোনে পুরো ঘটনা কালিয়াকৈর থানা-পুলিশ এবং অপহৃত তিনজনের পরিবারের সদস্যদের জানান। তরিবুল্লাহ বলেন, তাদের অভিযোগ জানার পর কালিয়াকৈর থানা থেকে একটি দল ঘটনাস্থলে পাঠানো হয়। তারা প্রাথমিকভাবে খোঁজ-খবর নিয়ে নিশ্চিত হয়, এএসআই মামুন ও মুসরাফিকুর অপহরণের সঙ্গে জড়িত।

পরে কালিয়াকৈর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আলমগীর হোসেন মজুমদার এএসআই মামুনকে ফোন করলে তিনি তিন তরুণকে তুলে নেয়ার কথা স্বীকার করেন। দুই থানার সহযোগিতায় অপহৃত তিন তরুণকে বুধবার রাত আটটার দিকে উদ্ধার করা হয়।
ফেমাসনিউজ২৪/এফএম/এমএম