logo

বুধবার, ১৫ জুলাই ২০২০ | ৩০ আষাঢ়, ১৪২৭

header-ad

এম এইচ মোবারক’র পাঁচটি কবিতা

| আপডেট: ০২ নভেম্বর ২০১৭

দেওয়ালের বাইরে

পৃথিবীটাকে খুঁজছি দেওয়ালের বাইরে বসে,
কয়েকটা শব্দের পরেই তোমার আঙ্গুল কামড়ে৷
নিজেকে ভাসাচ্ছি দার কাকের পালকে পালকে,
আজ থেকে শুরু হবে উষ্ণ ছোঁয়ার চিত্রায়ন৷

পালছেড়া বাতাস খুলে দিচ্ছে তোমার শরির,
তাতে আরও বেশি ক্লান্ত হচ্ছে দু'জনের নরম ঠোঁট৷
চিরচেনা কণ্ঠে নয়- কথা হবে দমে দমে,
দৃষ্টি খুজে পাবে বহু শখের কামনার চিত্র৷

পরম আবেশে লেগে আছে শরিরে শরির,
বিদ্যুৎ চমকালেও এক মনেই চলছে উষ্ণ আলিঙ্গন৷
আকাশের জল গলে গলে পরছে প্রতি শ্বাস-প্রশ্বাসে,
তৃষ্ণার্ত হৃদয় আরও গলতে চায় আজ এ মধুক্ষনে৷

 

সবুজ পাড়ের সাদা শাড়ি

সবুজ পাড়ের সাদা শাড়ি গায়ে জড়িয়ে জড় তুলেছে কষ্টরা,
নজিরবিহীন ফকফকা আকাশ দ্রুত বদলে নিচ্ছে রূপ৷
সমুদ্রের প্রচলিত ঢেউ আছড়ে পরছে তটের ফাকা চেয়ারে,
হঠাৎ-ই মুমূর্ষু হৃদয়ে বেজে ওঠে এমার্জেন্সি সাইলেন৷

নিসর্গের বিনাশ রূপে জেগে থাকার গল্প শেষের পরেই,
বাবুইপাখির পূনরায় স্বপ্ন বুনা শুরু৷
ক্ষতবিক্ষত শরির নিয়ে উরে যাওয়া আবার ফিরে আসা,
আষ্টেপৃষ্টে জড়িয়ে বেচে থাকাটাই তার হৃদয় কল্পনা৷

মেঘের দেশে মেঘ আর তার আশপাশটা বেশ ভালোই আছে,
শুধু বেলা ভূমিতে পরে আছে মৃত দেহের মতো কিছু জীর্ণ প্রান৷

 

গল্প ও যুদ্ধ

শুকিয়ে আসা নদীটির বুকে এখন শুধু বিকেল,
আষাঢ়ের দুপুর মৃত্যুর মতো রূপনিয়ে বসে আছে৷
বাতিল হয়েছে এখানকার বর্ষাকালের চিত্রায়ন,
নদী পাড়ের গুচ্ছ গুচ্ছ সবুজ ঠাই পেয়েছে গল্পের পাতায়৷

চারদিকে লাল বাতাসের প্রচন্ডবেগ,
ফুল পাপরির ছেড়া টুকরো গুলো শুকিয়ে ধুলা প্রায়৷
কেবল ঘুমেরই যেনো মৃত্যু হচ্ছে না,
জরুরী গল্প ও যুদ্ধ যুদ্ধ খেলার শেষেই ঘুমের আবার ঘুম৷

ক্রমাগত সংকেত আর পা চালানোর করা নির্দেশ,
তবুও মানছেনা মন পথ আর পার অতিক্রমের ইশারা৷

 

ফেরারী বাতাস

বেড়োনোর আগেই তেতো স্বাদের উপলব্দি,
ছড়িয়ে পড়ছে উত্তপ্ত ফেরারী বাতাস৷
মহামিলনের নামটাও ঠিক করে রাখা ছিলো সব নামের শেষে,
শব্দটা এখন কাছেই শোনা যাচ্ছে রেখা বরাবর৷

শান্ত নদীটাও আজ মাতাল সাথে ঘরির কাটা,
ঢুকে পড়ছে লাল সীমানয়৷
আপেক্ষারা তবুও অটুট অনিশ্চিত আঙ্গিনায়,
পার ভেঙে ছুটে আসার দল খুঁজছে নতুন মেঘ৷

 

দেশান্তরী মেঘ

চলে গেলো আকাশের গায়ে লেপ্টে থাকা কালো মেঘ,
স্বপ্ন ছিলো কাদা হয়ে জলে মেশার৷
একটু চেয়েছিলো উপশম তৃষ্ণার্ত ভূমি,
সারাদিন নয় বহুদিন দেশান্তরী মেঘ৷

ফিরে আসবে কি শ্বাস-প্রশ্বাসের রেখা হয়ে,
কিছুটা এমন আবার ফিরে আসার মতো৷

জল আর মাটি ভুলে যাচ্ছে কান্নার সুবাস,
এখন সময় শীতের,মেঘের বেশ চওড়াদাম একটু জল ফেলতে৷
অনুভূতির সিঁড়ি উঠছে নামছে
ভুল বাতাসের তোরে৷

চোখ বুজেই পাবে শূণ্য বুকের ঐকান্তিক সড়া,
শুকনো পাতাদের জল চুম্বনের মতো৷

ফেমাসনিউজ২৪/আরঅ্যা/আরইউ