logo

বুধবার, ১৫ আগস্ট ২০১৮ | ৩০ শ্রাবণ, ১৪২৫

header-ad
কোটা সংস্কারের প্রজ্ঞাপন দাবি

চবিতে শাটল ট্রেন আটকে বিক্ষোভ

চবি প্রতিনিধি | আপডেট: ১৪ মে ২০১৮

সরকারি চাকরিতে কোটা পদ্ধতি বাতিলের প্রজ্ঞাপন জারি না হওয়ায় চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে (চবি) ক্লাস ও পরীক্ষা বর্জন করে শাটল ট্রেন আটকে বিক্ষোভ করছেন আন্দোলনকারীরা।

কোটা বাতিলের প্রজ্ঞাপন জারি না হওয়ায় আজ সোমবার সকাল ৮টার দিকে শাটল ট্রেনটি আটকে দেয় সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদ চবি শাখা।

ষোলশহরের স্টেশনমাস্টার সাহাব উদ্দিন বলেন, কোটা বাতিলের প্রজ্ঞাপন জারির দাবিতে আন্দোলনকারীরা কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে সকাল সাড়ে ৭টা থেকে ক্লাস-পরীক্ষা বর্জন করে নগরের ষোলশহর স্টেশনে অবস্থান নেন। এ সময় তারা রেললাইন অবরোধ করে রাখেন।

তিনি আরও জানান, ৮টার দিকে শাটল ট্রেনটি ছেড়ে যেতে চাইলে তারা বাধা দেন। ফলে বিশ্ববিদ্যালয় রুটে শাটল ট্রেনটি চলাচল বন্ধ হয়ে যায়।

পরিষদের চবি শাখার প্রধান সমন্বয়ক মো. আরজু বলেন, প্রজ্ঞাপন জারি না হওয়ায় আজ সোমবার সারা দেশের মতো চবিতেও ক্লাস-পরীক্ষা বর্জন করে আন্দোলনে নেমেছেন শিক্ষার্থীরা।

এর আগে গতকাল রোববার কোটা সংস্কারের প্রজ্ঞাপন জারি নিয়ে সরকারকে আল্টিমেটাম দেন আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা।

তারা বলেন, ‘সরকারকে আজ রোববার (আগামীকাল) বিকাল ৫টার মধ্যে প্রজ্ঞাপন জারি করতে হবে। না হলে আগামীকাল (আজ) সোমবার থেকে দেশের সব কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ে অর্নিদিষ্টকালের ছাত্র ধর্মঘট শুরু হবে।’

রোববার দুপুর ১টা ১০ মিনিটে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসিতে এক সংবাদ সম্মেলনে এ ঘোষণা দেন বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের যুগ্ম আহ্বায়ক ফারুক হাসান।

এর আগে প্রজ্ঞাপন জারির দাবিতে বেলা ১১টা থেকে ১টা পর্যন্ত ক্লাস-পরীক্ষা বর্জন করে ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ করেন শিক্ষার্থীরা।

বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় লাইব্রেরির সামনে কয়েক হাজার শিক্ষার্থী সমবেত হন। এরপর পরিষদের আহ্বায়ক হাসান আল মামুন, যুগ্ম আহ্বায়ক রাশেদ খান, নুরুল হক নূর ও ফারুক হাসানের নেতৃত্বে তারা মিছিল বের করেন।

এ সময় পরিষদের নেতারা বলেন, ‘গত ৩২ দিনেও সরকার কোটার বিষয়ে প্রজ্ঞাপন জারি না করায় আমরা আবারও আন্দোলনে নামতে বাধ্য হয়েছি। অনেক সময় দেয়া হয়েছে, আর নয়। এবার প্রজ্ঞাপন না হওয়া পর্যন্ত আমরা ঘরে ফিরব না।’

ফেমাসনিউজ২৪.কম/আরআই/আরবি