logo

সোমবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৮ | ৫ অগ্রহায়ণ, ১৪২৫

header-ad

জাবির সিন্ডিকেট সভায় ধস্তাধস্তি

রুদ্র আজাদ, জাবি প্রতিনিধি | আপডেট: ০৭ নভেম্বর ২০১৮

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে (জাবি) সিন্ডেকেট সভাকে কেন্দ্র করে উত্তপ্ত পরিবেশের সৃষ্টি হয়। এ সময় ধাক্কাধাক্কি ও ধস্তাধস্তিতে জড়িয়ে পড়েন উপাচার্যপন্থী ও উপাচার্য বিরোধী শিক্ষকরা।

আজ বুধবার বিকেল চারটায় পূর্ব নির্ধারিত সিন্ডিকেট সভাকে কেন্দ্র করে মেয়াদোত্তীর্ণ সিন্ডিকেট, ডিন নির্বাচন ও পুরোনো নিয়োগপত্রে নিয়োগ অনুমোদন দেয়াকে কেন্দ্র করে উপাচার্য পন্থী ও উপচার্য বিরোধী আওয়ামীপন্থী শিক্ষকদের মধ্যে এ উত্তপ্ত পরিবেশের সৃষ্টি হয়।

সিন্ডিকেট মিটিং শুরু হওয়ার পূর্বে উপচার্য বিরোধী আওয়ামীপন্থী শিক্ষকরা তাদের দাবি নিয়ে উপচার্যের সাথে দেখা করেন কিন্তু সেখানে কোন আশানুরূপ ফল পাননি বলে দাবি করেন তারা।

পরবর্তীতে সিন্ডিকেট মিটিং শুরু হওয়ার পূর্বে উপাচার্যপন্থী ও বিরোধী শিক্ষকরা সভাকক্ষের সামনে অবস্থান নেন। বিকেল সোয়া চারটায় কেন্দ্রীয় কৃষক লীগের সভাপতি ও বিশ্ববিদ্যালয়ের আওয়ামীপন্থী শিক্ষকদের সংগঠন বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় প্রগতিশীল শিক্ষক সমাজ থেকে নির্বাচিত বিশ্ববিদ্যালয়ের সিন্ডিকেট সদস্য মোতাহার হোসেন পাটওয়ারী সভায় যোগ দেওয়ার জন্য আসলে তাকে সভায় যোগ না দিতে অনুরোধ করেন উপাচার্য বিরোধী ও তার নির্বাচিত সংগঠনের শিক্ষকরা।

মোতাহার হোসেন তাদের কথায় আলোকপাত না করে সভায় ঢুকতে গেলে তার পথরোধ করে সভা কক্ষের সামনে বসে পড়েন উপাচার্য বিরোধী শিক্ষকরা। এ সময় উভয় পক্ষের শিক্ষকরা ধাক্কাধাক্কিতে জড়িয়ে পড়েন।

উদ্ভুত পরিস্থিতি নিয়ে বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী প্রগতিশীল শিক্ষক সমাজের শিক্ষকরা তাৎক্ষণিক সংবাদ সম্মেলন করেন।

সংবাদ সম্মেলনে বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী প্রগতিশীল শিক্ষক সমাজের সাধারণ সম্পাদক ও মুখপাত্র অধ্যাপক ফরিদ আহমেদ বলেন, ‘ আজকের পরিস্থিতির জন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের উপচার্য দায়ী। বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাসে কখনো এমন একতরফা ও অনির্বাচিত সদস্যদেরকে নিয়ে সিন্ডিকেট সভা অনুষ্ঠিত হয়নি। উপচার্যের এমন আচরণের আমরা তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি আমাদের সকলের বিরুদ্ধে শক্ত অবস্থান নেওয়া উচিৎ।

তিনি প্রশ্ন রেখে বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয় কি উপচার্যের অনুগত ব্যাক্তিদের দ্বারা চলবে? নাকি বঙ্গবন্ধুর দেয়া ১৯৭৩ সালের অধ্যাদেশ অনুযায়ী চলবে?’

এছাড়া তিনি বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক, শিক্ষার্থী, কর্মকর্তা, কর্মচারী ও দেশবাসীকে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসকে বাচাঁতে এগিয়ে আসার আহ্বান জানান।

উপচার্য বিরোধী ও বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী প্রগতিশীল শিক্ষক সমাজের শিক্ষকদের সংবাদ সম্মেলন শেষে জাতিয়তাবাদী শিক্ষক ফোরাম জাবি শাখা তাদের পাঁচ দফা দাবি নিয়ে সংবাদ সম্মেলন করে।

সংবাদ সম্মেলনে জাতিয়তাবদী শিক্ষক ফোরামের শিক্ষকেরা বিশ্ববিদ্যালয় বলেন, ‘পুরোনো নিয়োগপত্রের মাধ্যমে বিশ্ববিদ্যালয়ের আইআইটি বিভাগের সকল নিয়োগ অবৈধ। তারা মনে করেন এ অবৈধ নিয়োগ উপচার্য দিতে পারেন না। এছাড়া আজকের অনাকাঙ্খিত পরিবেশের জন্য উপাচার্য দায়ী বলে মনে করেন তারা।’
ফেমাসনিউজ২৪/এফএম/এমএম