logo

বুধবার, ১৯ ডিসেম্বর ২০১৮ | ৪ পৌষ, ১৪২৫

header-ad

যারা প্রকৃত মেধাবী তারাই সংগীতজগতে টিকে থাকবে: শওকত আলী ইমন

বিনোদন প্রতিবেদক | আপডেট: ১৫ জুলাই ২০১৫

বর্তমান সময়ের যে’কজন সঙ্গীত পরিচালক চলচ্চিত্রে কাজ করছেন তার মধ্যে শওকত আলী ইমন অন্যতম। যার হাত ধরে এদেশের অনেক গুণী শিল্পী চলচিত্রে প্রথম গান করছেনে। যনিি দেশ ও দশেরে বাইরে বেশ কিছু ছবিতে সংগীত পরচিালনা করে খ্যাতি অর্জন করেছেন। পেয়েছেন চলচ্চিত্র পুরস্কার। কথা হলো তার সাথে সংগীত ও বিভিন্ন বিষয় নিয়ে। তারই চুম্বক অংশ পাঠকদের উদ্দশ্যেে তুলে ধরেছেন সমুদ্র বিপ্লব

র্বতমানে কি নিয়ে ব্যস্ত আছনে ?
ইমন : এই মুহূর্তে আমার হাতে বেশকিছু ছবির কাজ আছে। তার মধ্যে মিসড্ কল, বাসর হবে মাটির ঘরে, মানচিত্র, পূর্ণদৈর্ঘ্য প্রেম কাহিনী, যে গল্পে ভালোবাসা নেই, বাজে ছেলে, এই তুমি সে তুমি, টার্গেট এছাড়াও আরও কিছু ছবির গানের ব্যাপারে কথা চলছে। বিশেষ অনুরোধে আখি আলমগীর, কণা, সালমা, অনন্যার জন্য অ্যালবামের কাজ করছি।

কেউ কেউ বলেন- চলচ্চিত্র পুরস্কার কিনতে পাওয়া যায়। সে সম্পর্কে আপনি কিছু বলুন।
ইমন: টাকা দিয়ে যদি চলচ্চিত্র পুরস্কার কেনা যেত, তাহলে এদেশের অনেক টাকাওয়ালা শিল্পী-অভিনেতা-অভিনেত্রী-সঙ্গীত পরিচারক অনেকেই টাকা দিয়ে এ পুরস্কার কিনে নিত। আর আমাকেও চলচ্চিত্র পুরস্কারের জন্য এতোদিন অপেক্ষা করতে হতো না। আসলে কেউ কেউ ব্যক্তিগত ক্ষোভ-হিংসা থেকেই এমন বাজে মন্তব্য করেন।

শুনেছি আপনি দেশ ও দেশের বাইরেও কাজ করেছেন সে সম্পর্কে কিছু বলুন।
ইমন : হ্যা ঠিকই শুনেছেন। এক সময় কলকাতার ফিল্মের খুব করুণ দশা ছিল। সেই সময়ে আমাদের দেশের ছবি নিয়ে ওরা ছবি বানিয়েছে, এবং মিউজিক ডিরেক্টরদের নিয়েও কাজ করিয়েছে। ঐ সময় (২০০০-২০০৪), আমি কলকাতার ১২টা ফিল্মে সংগীত পরিচালনা করেছি।

ভারতের কে কে আপনার সুরে গান করেছে?
ইমন : কুমার শানু, বাপ্পী লাহেড়ি, অলকা ইয়াগনিক, সাধনা সারগাম, সনু নিগম, শান, বাবুল সুপ্রিয়।

 

অনেকে বলে ৭০-৮০ দশকে ভাল গান হত, এখন আর সেই সোনালি দিনের মতো গান হচ্ছে না এ প্রসঙ্গে কিছু বলুন।
ইমন : এখন যে একেবারে ভালো গান হচ্ছে না, তা কিন্তু নয়। অনেকেই ভালোগান লিখছে আবার কেও কেও ভালো সুরও করছে। ৭০-৮০ দশকে চ্যানেল পরিবর্তন করে অন্য চ্যানেল দেখার কোনো সুযোগ ছিলো না। এখন তো এক লাইন গান অপছন্দ হলেই চ্যানেল ঘুরিয়ে অন্য চ্যানেলের প্রোগ্রাম দেখে সবাই। এখন সব কিছুতেই তুমূল প্রতিযোগিতা। এই প্রতিযোগিতার যুগে টিকে থাকা খুবই দুষ্কর। আমি বলব এখনো ভালো গান তৈরি হচ্ছে।

প্রশ্ন : এ পর্যন্ত কতগুলো ছবিতে সংগীত পরিচালনা করেছেন? এবং কতগুলো গানে সুর দিয়েছেন ?
ইমন: ৪০০ ছবিতে কাজ করেছি, এবং ২৫০০’র বেশি গানে সুর করেছি।

একটা সুন্দর গান সৃষ্টির জন্য কার বেশি অবদান থাকে?
ইমন : আমি বলব একটি সুন্দর গান সৃষ্টির জন্য গীতিকার, সুরকার, শিল্পী সবারই অবদান থাকে। ভালো কথা না হলে যেমন ভালো সুর করা যায় না। ভালো সুর না হলেও তেমন শিল্পী ভালো গাইতে পারে না। তবে সুরকারের একটু বেশি দায়িত্ব থাকে। শিল্পী নিয়োগের ক্ষেত্রেও সুরকারকে ডিসিশন মেকিং করতে হয়।

অনেকে বলে এখন কার বেশির ভাগ গানই ভিনদেশি গানের সুর নকল করা। এ সম্পর্কে অপনার অভিমত কী?
ইমন : নকল শুধু এখন হয় না। ৩০-৪০ বছর আগেও নকল হতো। সেই সময় অনেক হিন্দি, উর্দ্দু, এরাবিয়ান, জাপানিজ, গানের সুর নকল করে বাংলা গান সৃষ্টি হয়েছে। এবং সেই সব গান তুমূল জনপ্রিয়তাও পেয়েছে। তবে ওই সময় ভিনদেশি গানের সুর নকল করলেও কেও ধরতে পারেনি। কিন্ত এখন এক লাইন গান নকল করলেই উন্নত টেকনোলজির কারণে সহজে সবাই ধরতে পারে।

শওকত আলী ইমন
এখন তো শত শত নতুন শিল্পী আসছে। আবার অনেকে হারিয়ে যাচ্ছে এর কারণ কি?
ইমন : সত্যি কথা বলতে যারা বিভিন্ন কম্পিটিশন থেকে গানের জগতে আসছে, তারা অনেকই মেধা শূন্য শিল্পী। শ্রোতাদের ইমোশন ব্লাক মেইল করে অনেকেই কম্পিটিশনে টিকে গেছে। পরবর্তিতে তাদের মধ্যে অনেকেই হারিয়ে গেছে। তবে যারা সত্যিকারের মেধাবী তারা এখনো এগিয়ে যাচ্ছে।

এ পর্যন্ত কি কি পুরষ্কার পেয়েছেন?
ইমন : জাতীয় চলচ্চিত্র পুরষ্কারসহ বিভিন্ন ধরণের পুরষ্কার পেয়েছি তবে, দর্শক-শ্রোতাদের ভালবাসা আমার কাছে সবচেয়ে পুরষ্কার। এর থেকে বড় পুষ্কার আর কিছু হতে পারে না।

আপনি কাকে আইডল হিসেবে দেখেন?
ইমন : আসলে একক ভাবে কাউকেই দেখিনা, আমি সব ধরনের গান শুনি, অনেকের গান আমার ভাল লাগে। রবীন্দ্রনাথ, নজরুল, এসডি বর্মন, এ আর রহমানের গানও ভাল লাগে।

বর্তমান ফিল্মের গানের অবস্থা কেমন?
ইমন : এই সময় নতুন কিছু সংগীত পরিচালক আসছে, তারা ভাল করছে। ফিল্মের গান নিয়ে আমি আশাবাদী।

শ্রোতাদের উদ্দেশ্যে কিছু বলুন ?
ইমন : শ্রোতাদের কে বলবো, আমি আপনাদের কারণেই শওকত আলী ইমন, বাংলা গানকে ভালবাসুন, দেশকে ভালবাসুন, আর বাংলা গানকে সারা বিশ্বে ছড়িয়ে দিন।