logo

বৃহস্পতিবার, ১৩ ডিসেম্বর ২০১৮ | ২৯ অগ্রহায়ণ, ১৪২৫

header-ad

নেশার তালিকায় যেসব বলিউড তারকা

বিনোদন ডেস্ক | আপডেট: ১৬ জুলাই ২০১৮

বলিউডে নেশার তালিকায় মণীষা কৈরালা। তার বিরুদ্ধেও ক্যারিয়ারে শীর্ষ সময়ে থাকার সময় ড্রাগ নেয়ার অভিযোগ ছিল। যদিও তিনি পরবর্তীকালে নেশা এক্কেবারেই ত্যাগ করেন। মাদকবিরোধী অভিযানেও সামিল হন তিন।

২০০১ সালে কোকেন রাখার অভিযোগে মুম্বাই থেকে গ্রেফতার করা হয় ফারদিন খানকে।

সঞ্জয় দত্তের বিরুদ্ধে ড্রাগ নেয়ার অভিযোগ প্রায় কমবেশি সবাই জানেন। তাকে নেশা থেকে বাঁচতে দীর্ঘদিন আমেরিকায় রিহ্যাব সেন্টারে থাকতে হয়েছিল।

কিছুদিন আগে সঞ্জু প্রমোশনের সময় নিজের ড্রাগ নেয়ার কথা স্বীকার করে নেন রণবীর। তিনি বলেন, কলেজজীবনে তিনি ড্রাগ নিয়েছিলেন, পরে বুঝতে পারেন এভাবে চলতে থাকলে তার জীবন শেষ হয়ে যাবে। তখন তিনি নেশা থেকে সরে আসেন।

বলিউড 'রান' খ্যাত অভিনেতা বিজয় রাজের বিরুদ্ধেও ড্রাগ নেয়ার অভিযোগ রয়েছে। তালিকায় আছেন হানি সিং। জনপ্রিয় র‍্যাপ গায়ক হানি সিংকে কিছুদিন আগে রিহ্যাব সেন্টারে রাখা হয়েছিল।

সাবেক অভিনেত্রী গীতাঞ্জলি নাগপালকে মাদকাসক্তির জন্য পথে বসতে হয়েছে। যিনি কিনা একসময় সুস্মিতা সেনের সঙ্গে র‌্যাম্পে হেঁটেছেন। গীতাঞ্জলি নাগপালকে একসময় দিল্লির রাস্তা থেকে উদ্ধার করা হয়। শোনা যায়, ড্রাগ নেয়ার কারণে তিনি পথে বসেছেন।

'বলিউডের ফার্স্ট লেডি' খোদ কিং খানের স্ত্রী গৌরী খানের বিরুদ্ধেও মাদকাসক্তির নেয়ার অভিযোগ রয়েছে। বার্লিন বিমানবন্দরে মারিজুয়ানা নিতে গিয়ে ধরা পড়েন গৌরী।

বলিউডের জনপ্রিয় অভিনেতা হৃত্বিক রোশনের স্ত্রী সুজান খান। তার বিরুদ্ধেও কোকেন নেয়ার অভিযোগ রয়েছে। মাদকাসক্তির কারণে হৃত্বিকের সঙ্গে বিবাহবিচ্ছেদের অন্যতম কারণ। বি-টউনের অনেকেই এটা মনে করেন।
বলিউড তারকাদের মাদকাসক্তি, দেখুন কে কে আছেন তালিকায়

মমতা কুলকার্নি নয়ের দশকের জনপ্রিয় নায়িকা ছিলেন। বেশ কয়েক বছর আগে কেনিয়া থেকে গ্রেফতার করা হয় ড্রাগ পাচারের অভিযোগে। শুধু মমতাই নন, তার স্বামী ভিকি গোস্বামীর বিরুদ্ধেও ড্রাগ পাচারের অভিযোগ ওঠে। তিনি এ অভিযোগে প্রায় ২৫ বছর দুবাইয়ের জেলে বন্দিও ছিলেন।
ফেমাসনিউজ২৪/এফএম/এমএম