logo

শনিবার, ১৭ নভেম্বর ২০১৮ | ৩ অগ্রহায়ণ, ১৪২৫

header-ad

ট্রাভেল ব্যাগে মিলল মডেল মানসীর লাশ

বিনোদন ডেস্ক | আপডেট: ১৬ অক্টোবর ২০১৮

বন্ধুর হাতে খুন হলেন ভারতের এক তরুণী মডেল। মুম্বাইয়ে ২০ বছর বয়সী এই উঠতি মডেলের খুন ঘিরে চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে। পুলিশ সেই ব্যাগ ও তার দেহ উদ্ধার করেছে। এ ঘটনায় বাঙ্গুরনগর পুলিশ মোজাম্মেল সাঈদ নামে একজনকে গ্রেফতার করেছে।

ঘটনাটি ঘটেছে মুম্বাইয়ের মালাড অঞ্চলে। স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, অভিনেত্রী হতে রাজস্থান থেকে মুম্বাইয়ে এসেছিলেন তিনি। বলিউডে পা রাখবেন বলে কঠিন পরিশ্রমও করে যাচ্ছিলেন মানসী।

পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, রোবরার রাতে আন্ধেরিতে ১৯ বছরের মোজাম্মেল সাঈদের সঙ্গে দেখা করতে গিয়েছিলেন মানসী। সেখানেই তীব্র বাদানুবাদে জড়িয়ে পড়েন দু’জন। প্রথম থেকেই পুলিশের সন্দেহের তীর ছিল মোজাম্মেলের দিকে। পুলিশের প্রাথমিক অনুমান, মোজাম্মেলই দড়ি দিয়ে শ্বাসরোধ করে খুন করেন মানসীকে। যদিও মোজাম্মেলের সঙ্গে মানসীর আদতে কী সম্পর্ক তা নিয়ে কিছুই জানানো হয়নি পুলিশের তরফে।

পুলিশের তরফে জানানো হয়েছে, মানসীর দেহ ট্রাভেলবন্দি করার পরই বিমানবন্দরের দিকে একটি ক্যাব বুক করেন মোজাম্মেল। মাঝপথে ক্যাব ড্রাইভারকে মাইন্ডস্পেসের দিকে গাড়িটি ঘুরিয়ে দিতে বলেন তিনি। মাইন্ডস্পেস জায়গাটা আসলে ঝোপঝাড় আর ম্যানগ্রোভে ভর্তি।

ওখানেই ট্রাভেল ব্যাগ পুঁতে রাখতে চেয়েছিলেন অভিযুক্ত মোজাম্মেল। তা করতে গিয়েই ক্যাব ড্রাইভারের সঙ্গে ঝামেলায় জড়িয়ে পড়েন মোজাম্মেল। ঠিক তখনই ক্যাবটি ছেড়ে একটি অটোরিকশা ভাড়া করেন তিনি। সেই সময়ই পুলিশকে ফোন করে বিষয়টা জানান ওই ক্যাব ড্রাইভার।

সেই ঝোপঝাড়ের ভেতর থেকেই ট্রাভেল ব্যাগভর্তি মানসীর দেহ উদ্ধার করে পুলিশ। সঙ্গে সঙ্গে ময়নাতদন্তের জন্যও মানসীর দেহ পাঠিয়ে দেয়া হয়। এরই মধ্যে পুলিশের কাছে খুনের কথা স্বীকার করেছেন মোজাম্মেল।

মোজাম্মেল সাঈদ হায়দরাবাদের বাসিন্দা বলে পুলিশ জানতে পেরেছে। তিনি মুম্বাইয়ে আন্ধেরির মিল্লত নগরে থাকতেন। পুলিশ জানিয়েছে, মানসীকে সোমবার নিজের ফ্ল্যাটে ডেকে আনেন মোজাম্মেল। কিছু নিয়ে বিবাদ হলে মানসীকে মাথায় ভারী বস্তু দিয়ে মেরে খুন করেন। তারপর ক্যাব ডেকে বিমানবন্দরের দিকে যান। যেতে যেতে মাঝপথে তিনি ড্রাইভারকে মালাডের দিকে রাস্তা দিয়ে যেতে বলেন। সেটি বেশ শুনশান।

মোজাম্মেলের সঙ্গেই পড়াশোনা করতেন মানসীর। পড়াশোনার পাশাপাশি নানা ধরনের পেশাতেও নিজেকে জড়িয়ে রেখেছিলেন মানসী। দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র মুজাম্মেল। পুলিশকে মুজাম্মেল জানিয়েছেন, মানসী দীক্ষিত তার বাসায় ছিল।

পুলিশের উপকমিশনার সংগ্রাম সিং নিশান্দর বলেন, মেয়েটির মৃতদেহ স্যুটকেসে ভরে মালাদের রাস্তার ওপর ফেলে দেয় মোজাম্মেল। খুনের অভিযোগে আমরা তাকে গ্রেপ্তার করেছি। তাদের বিবাদের প্রকৃত কারণ অনুসন্ধান করা হচ্ছে।
ফেমাসনিউজ২৪/এফএম/এমএম