logo

শনিবার, ২৩ জানুয়ারি ২০২১ | ১০ মাঘ, ১৪২৭

header-ad

ছাড় দিলেন না নারী শিল্পী

বিনোদন ডেস্ক | আপডেট: ০৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৯

নিজের প্রতিবাদ শুধু ফেসবুকেই সীমাবদ্ধ রাখলেন না সঙ্গীতশিল্পী ইমন চক্রবর্তী। সোমবার রাতে ই-মেইল করে কোতোয়ালি থানায় কৃষ্ণনগর সাংস্কৃতিক মঞ্চের সম্পাদক অনন্ত বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে অভিযোগও দায়ের করেন তিনি।

গত রোববার সাংস্কৃতিক মঞ্চ আয়োজিত সঙ্গীতানুষ্ঠানে অনন্ত তাকে ও তার সহযোগীদের জবরদস্তি আটকে হেনস্থা করেন বলে ইমনের অভিযোগ। তার সেই অভিযোগের ভিত্তিতে পুলিশ ভারতীয় দণ্ডবিধির জামিনযোগ্য ৩৪১ ধারায় মামলা করে তদন্ত শুরু করেছে।

গত দু’দিন ধরেই সঙ্গীতানুষ্ঠানে ইমনের করা অভিযোগ নিয়ে কৃষ্ণনগর শহর তোলপাড়। সোশ্যাল মিডিয়ায় ঝড় উঠেছে। এরকম পরিস্থিতিতে বিষয়টি থানা পর্যন্ত গড়ানোয় বিতর্কের আগুনে ঘৃতাহুতি পড়েছে। শিল্পীর অধিকার ও মর্যাদা রক্ষার পক্ষে সওয়ালের বিপরীতে দর্শকদের অধিকারের দাবিতে কার্যত দু’টি দলে ভাগ হয়ে গিয়েছেন কৃষ্ণনাগরিকেরা।

শিল্পীকে আরও গান শোনানোর জন্য চাপ দিয়ে আটকে রাখাটা যে অন্যায়, সেটা প্রায় সবাই মানছেন। কিন্তু টিকিট কেটে যারা গান শুনতে এসেছেন তাদের মনোরঞ্জনের দায় শিল্পীরও থাকে, এমন সওয়ালও করছেন নাগরিকদের একাংশ।

তাদের মতে, দর্শকদের তরফ থেকে যে গানের অনুরোধ ছিল তার দু’একটি গাইলেই হয়তো বিষয়টা এতদূর গড়াতো না। অনন্ত বলছেন, মামলা যখন হয়েছে, তখন নয় জেল খাটব। তবে আমরা শিক্ষিত সাংস্কৃতিক কর্মী। পাল্টা অভিযোগের পথে হাঁটব না।

গত রোববার কৃষ্ণনগর পাবলিক লাইব্রেরির মাঠে গান গাইতে আসেন ইমন। তার অভিযোগ, তিনি গান শেষ করতেই আয়োজকরা তাকে আরও গান গাওয়ার জন্য চাপ দিতে থাকেন। অনন্ত তাদের গাড়ি আটকে গেটে তালা দেন। তাকে হেনস্থাও করা হয়। দর্শকদেরই একাংশ দরজা ভেঙে তাকে উদ্ধার করে জানিয়ে তাদের প্রতি কৃতজ্ঞতাও প্রকাশ করেন তিনি।

কৃষ্ণনগরের বাসিন্দাদের একাংশ কিন্তু মনে করছেন, শ্রোতার অনুরোধ না রেখে অসহিষ্ণু আচরণ করেছেন ইমন। বিষয়টি থানায় নিয়ে যাওয়াও তারা ‘বাড়াবাড়ি’ বলে মনে করছেন। এদেরই একজনের কথায়, ইমন ১ লাখ ৬০ হাজার টাকা নিয়েছেন গান গাইতে। দর্শকদের থেকে একাধিক গানের অনুরোধ আসছিল। ইমন তা উপেক্ষা করে আচমকা মঞ্চ ছেড়ে যেতেই অনেকের ধৈর্যচ্যুতি হয়।

আবার অনেকে বলছেন, শিল্পীকে আটকে রেখে অন্যায় করা হয়েছে, এটা তো আমরা প্রথম থেকেই বলছি। কিন্তু তাই বলে বিষয়টি পুলিশ পর্যন্ত নিয়ে যাওয়াটা ঠিক হয়নি। আর দুটো গান বেশি গাইলে কী ক্ষতি হত? এ ধরনের জলসায় শ্রোতারা তো পছন্দের গানের আবদার করেই থাকে!
ফেমাসনিউজ২৪/এফএম/এমএম