logo

রবিবার, ১৭ ডিসেম্বর ২০১৭ | ৩ পৌষ, ১৪২৪

header-ad

এরশাদের পতন : কী ঘটেছিল অন্তরালে?

ডেস্ক রিপোর্ট | আপডেট: ০৬ ডিসেম্বর ২০১৭

ঢাকার রাজপথ উত্তাল। সবখানেই শঙ্কা। চোখেমুখে আতঙ্ক। তবে যেভাবেই হোক জেনারেল এরশাদকে ক্ষমতা থেকে নামাতেই হবে। আর বিরোধী দলগুলোর আন্দোলনের মুখে পদত্যাগেও বাধ্য হন তৎকালীন স্বৈরশাসক হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ। কিন্তু ৯ বছরের এই সেনাশাসকের পতনে পর্দার আড়ালে কী ঘটেছিল, তা নিয়ে এক প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে বিবিসি বাংলা।

ফেমাসনিউজের পাঠকের জন্য সেই ঘটনা তুলে ধরা হলো-

১৯৯০ সালের ডিসেম্বর। ১ তারিখে ঢাকা সেনানিবাসে জরুরি বৈঠকে বসেন ঊর্ধ্বতন সেনাকর্মকর্তারা। উদ্দেশ্য ছিল প্রেসিডেন্ট হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ যেভাবে রাষ্ট্র পরিচালনা করছেন, সে প্রেক্ষাপটে সেনাবাহিনীর ভূমিকা কী হওয়া উচিত, তা নিয়ে আলোচনা করা। এরশাদবিরোধী আন্দোলন তখন তুঙ্গে। কয়েকদিন আগেই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসি এলাকায় চিকিৎসক নেতা ডা. শামসুল আলম মিলনকে গুলি করে হত্যা করা হয়। সেনানিবাসের ভেতরে ঊর্ধ্বতন সেনা কর্মকর্তারা সিদ্ধান্ত নিলেন, দেশের চলমান সংকট একটি রাজনৈতিক বিষয় এবং এ তা সমাধানে রাষ্ট্রপতিকে রাজনৈতিক উদ্যোগ নিতে হবে।

ঊর্ধ্বতন সেনাকর্মকর্তারা আরো সিদ্ধান্ত নেন, চলমান রাজনৈতিক সংকটে সেনাবাহিনীর করণীয় কিছু নেই। এমন অবস্থায় প্রেসিডেন্ট এরশাদ সেনা সদরকে প্রস্তাব দেন, দেশে সামরিক আইন জারি করা হবে।

ডিসেম্বরের ৩ তারিখ। সেনাপ্রধান লেফটেন্যান্ট জেনারেল নূর উদ্দিন প্রেসিডেন্ট এরশাদের সঙ্গে দেখা করতে যান। সেনা কর্মকর্তারা চেয়েছিলেন, লেফটেন্যান্ট জেনারেল নূর উদ্দিন যেন প্রেসিডেন্ট এরশাদকে পদত্যাগের জন্য সরাসরি বলেন। কিন্তু সেনাপ্রধান প্রেসিডেন্ট এরশাদকে সরাসরি পদত্যাগের কথা না বললেও তিনি জানিয়ে দেন যে দেশের উদ্ভূত পরিস্থিতিতে সেনাবাহিনীর অফিসাররা কোনো দায়িত্ব নিতে রাজি হচ্ছে না।

তখন ঢাকা সেনানিবাসে ব্রিগেডিয়ার পদে কর্মরত ছিলেন আমিন আহমেদ চৌধুরী, যিনি পরবর্তীতে মেজর জেনারেল হন। চৌধুরী ২০১৩ সালে মারা যান।

২০১০ সালে বিবিসি বাংলার সঙ্গে এক সাক্ষাৎকারে জেনারেল চৌধুরী বলেন, ‘তিনি প্রেসিডেন্টকে বলেছিলেন, আপনার উচিত হবে বিষয়টির দ্রুত রাজনৈতিক সমাধান করা। অথবা বিকল্প কোনো ব্যবস্থা নেওয়া।’

জেনারেল এরশাদের পরিকল্পনা অনুযায়ী সামরিক শাসন জারির বিষয়ে সেনাবাহিনী একমত নয় বলে প্রেসিডেন্টকে পরিষ্কার জানিয়েছিলেন তখনকার সেনাপ্রধান।

প্রেসিডেন্টের সঙ্গে সেনাপ্রধানের বৈঠক নিয়ে তখন দেশজুড়ে নানা গুঞ্জন। সেসব বৈঠক নিয়ে নানা অনুমান তৈরি হয়েছিল সে সময়। একদিকে ক্যান্টনম্যান্টের ভেতরে নানা তৎপরতা অন্যদিকে রাস্তায় এরশাদবিরোধী বিক্ষোভ।

ডিসেম্বর মাসের ৪ তারিখ। সেনাবাহিনীর চিফ অব জেনারেল স্টাফ মেজর জেনারেল প্রেসিডেন্ট এরশাদকে সরাসরি বলেন, তার পদত্যাগ করা উচিত। পদত্যাগের কথাটা জেনারেল সালামই প্রথম সরাসরি বলেন। অবিলম্বে পদত্যাগ করতে হবে। আর্মি অধৈর্য হয়ে যাচ্ছে।’ বলছিলেন আমিন আহমেদ চৌধুরী। জরুরি অবস্থা এবং কারফিউর মতো কঠোর পদক্ষেপের মাধ্যমেও যখন গণআন্দোলন দমানো যাচ্ছিল না, তখন সেনাবাহিনীর দিকে থেকে নেতিবাচক মনোভাব দেখলেন প্রেসিডেন্ট এরশাদ।

এমন অবস্থায় ৪ ডিসেম্বর রাতেই পদত্যাগের ঘোষণা দেন জেনারেল এরশাদ। তখন এরশাদ সরকারের ভাইস-প্রেসিডেন্ট ছিলেন মওদুদ আহমেদ। যিনি বর্তমানে বিএনপির সিনিয়র নেতা।

মওদুদ আহমদ জানান, ‘সেনাবাহিনীর মনোভাব বোঝার পরই পদত্যাগের সিদ্ধান্ত নিতে দেরি করেননি এরশাদ। সামরিক শাসক জেনারেল এরশাদ ক্ষমতায় টিকে থাকার জন্য নানা ধরনের কৌশল অবলম্বন করেছিলেন। বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলোর আন্দোলন মোকাবেলার জন্য তিনি সাধারণ নির্বাচনের ঘোষণাও দিয়েছিলেন। কিন্তু বিরোধী রাজনৈতিক জোটগুলো এরশাদের সে প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করে। ৪ ডিসেম্বর তখনকার ভাইস-প্রেসিডেন্ট মওদুদ আহমেদকে জাতির উদ্দেশে ভাষণ দেওয়ার জন্য বাংলাদেশে টেলিভিশনে পাঠিয়েছিলেন এরশাদ। উদ্দেশ্য ছিল, প্রেসিডেন্টের পরিকল্পিত নির্বাচন সম্পর্কে বিস্তারিত ব্যাখ্যা তুলে ধরা।

বিরোধী দলগুলো এ নির্বাচনের প্রস্তাব আগে বর্জন করার পরেও এরশাদ চেয়েছিলেন, ভাইস-প্রেসিডেন্টের মাধ্যমে নির্বাচন সম্পর্কে বিস্তারিত ব্যাখ্যা তুলে ধরার মাধ্যমে জনগণকে আশ্বস্ত করা। এরশাদের নির্দেশ মতো ভাইস-প্রেসিডেন্ট মওদুদ আহমদ সন্ধ্যার সময় বাংলাদেশ টেলিভিশনে যান ভাষণ রেকর্ড করার জন্য। সে ভাষণ তিনি রেকর্ডও করেছিলেন। ভাষণ রেকর্ড করার পর মওদুদ আহমদ যখন বাসায় ফিরে আসেন, তখন তিনি জানতে পারেন প্রেসিডেন্ট পদত্যাগের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। এরপর কয়েক ঘণ্টা পর মধ্যরাতে মওদুদ আহমদকে আবারো বাংলাদেশ টেলিভিশনে যেতে হয় প্রেসিডেন্ট এরশাদের পদত্যাগের ঘোষণা দেওয়ার জন্য।

১৯৯০ সালের ৪ ডিসেম্বর। রাতের স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে মওদুদ আহমদ বলেন, ‘প্রথম ভাষণ রেকর্ড করে আমি যখন বাসায় ফিরে আসলাম, তখন আমার স্ত্রী বললেন, প্রেসিডেন্ট সাহেব ফোন করেছিলেন। তখন আমি তাকে ফোন করলাম। তিনি বললেন, আমি এখনই পদত্যাগের সিদ্ধান্ত নিয়েছি। তখন আমি তার বাসায় গেলাম। তখন রাতে নিউজের পরে তার পদত্যাগের ঘোষণা দেওয়া হলো।’

এরশাদবিরোধী আন্দোলনে বিভিন্ন সময় ছন্দপতন হয়। ১৯৮৭ সালে একটি মিছিলে পুলিশের গুলিতে নূর হোসেন নিহত হওয়ার ঘটনা আন্দোলনে গতি আনে।

আওয়ামী লীগ এবং বিএনপির নেতৃত্বে রাজনৈতিক জোট একই সঙ্গে আন্দোলন কর্মসূচি নিয়ে এগিয়েছে। জামায়াতে ইসলামীও মাঠে ছিল।

১৯৯০ সালের অক্টোবর মাস থেকে ছাত্র সংগঠনগুলো ‘সর্বদলীয় ছাত্র ঐক্যের’ ব্যানারে আন্দোলনে অগ্রণী ভূমিকা নিয়েছিল।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ বা ডাকসুর সাধারণ সম্পাদক ছিলেন বিএনপি সমর্থিত ছাত্র সংগঠন ছাত্রদলের নেতা খায়রুল কবির খোকন।

তিনি বলেন, ২৭ নভেম্বর চিকিৎসক নেতা ডা. শামসুল আলম মিলনকে হত্যার পর আন্দোলনের মোড় ঘুরে যায়। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসকে দখল করার জন্য বহিরাগত মাস্তান দিয়ে পরিকল্পিতভাবে ডা. মিলনকে হত্যা করা হয়েছিল। এটা ছিল আন্দোলনের টার্নিং পয়েন্ট।’

ডা. মিলন যখন রিকশায় করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকা দিয়ে যাচ্ছিলেন, তখন তাকে গুলি করে হত্যা করা হয়। ডা. মিলনের সঙ্গে একই রিকাশায় ছিলেন বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশনের তখনকার মহাসচিব ডা. মোস্তফা জালাল মহিউদ্দিন।

অভিযোগ রয়েছে, জেনারেল এরশাদ সমর্থিত ছাত্র সংগঠনের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় দখল চেষ্টার অংশ হিসেবে ডা. মিলনকে হত্যা করা হয়েছে।

ঘটনার বর্ণনা দিতে গিয়ে ডা. মোস্তফা জালাল মহিউদ্দিন বলেন, ‘আমার রিকশাটা যখন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসি এলাকায় উপস্থিত হয়, তখন মিলন আরেকটি রিকশায় করে আমাকে ক্রস করে সামনে চলে যাচ্ছিল। তখন আমি মিলনকে বললাম, তুমি ওই রিকশা ছেড়ে আমার রিকশায় আসো। এরপর মিলন আমার রিকশায় এসে ডানদিকে বসলো। রিকশাওয়ালা ঠিকমতো একটা প্যাডেলও দিতে পারেনি। মনে হলো সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের দিকে থেকে গুলি আসলো। গুলিটা মিলনের বুকের পাশে লেগেছে। তখন মিলন বললো, জালাল ভাই কী হইছে দেখেন। এ কথা বলার সঙ্গে সঙ্গে সে আমার কোলে ঢলে পড়লো।’

ডা. মিলনকে হত্যার পর জেনারেল এরশাদবিরোধী আন্দোলন আরো তুঙ্গে ওঠে। তখন জনগণের ক্ষোভের বিষয়টি বিবেচনায় নিতে শুরু করে সেনাবাহিনী।

একইসঙ্গে জেনারেল এরশাদের ওপর থেকে সমর্থন প্রত্যাহারের প্রক্রিয়াও শুরু করেছিল সেনাবাহিনী। ডা. মিলন হত্যাকাণ্ডের পর আন্দোলন সামাল দিতে সেনাবাহিনী মোতায়েন করতে চেয়েছিলেন প্রেসিডেন্ট এরশাদ। সেনা মোতায়েনের জন্য জেনারেল এরশাদ যথেষ্ট চাপ প্রয়োগ করেন।

প্রয়াত মেজর জেনারেল আমিন আহমেদ চৌধুরীর বর্ণনা মতে, সেনাবাহিনী সৈনিকদের পাঠিয়ে রাস্তায় মোতায়েন করার পরিবর্তে রমনা পার্কে সীমাবদ্ধ করে রাখেন। কমান্ডিং অফিসাররা সরকারের ‘অপকর্মের’ দায়িত্ব নিতে রাজি ছিলেন না।

জেনারেল এরশাদ ক্ষমতা ছাড়লে কী হবে- সে বিষয়টি নিয়ে আন্দোলনকারী দলগুলো নিজেদের মধ্যে ঐকমত্যের ভিত্তিতে একটি ফর্মুলা ঠিক করে রেখেছিল। সে ফর্মুলা মতে, সাধারণ নির্বাচন পরিচালনার জন্য তিন মাসমেয়াদি একটি অন্তর্বর্তীকালীন সরকার গঠনের কথা ছিল। কিন্তু সে অন্তর্বর্তীকালীন সরকারের প্রধান কে হবেন- সেটি তখন নির্ধারিত ছিল না।

ড. কামাল হোসেন তখন আওয়ামী লীগের সিনিয়র নেতার পাশাপাশি সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতিও ছিলেন।

তিনি জানান, জেনারেল এরশাদের পদত্যাগের ঘোষণা দেওয়ার পর আন্দোলনকারী দলগুলো তখনকার প্রধান বিচারপতি মো. সাহাবুদ্দিন আহমদের বিষয়ে একমত হয়েছিল। অস্থায়ী সরকার প্রধানের নাম আসার পর ৬ ডিসেম্বর রাষ্ট্রপতির দপ্তরে ক্ষমতা হস্তান্তরের প্রক্রিয়া হয়েছিল। ক্ষমতা হস্তান্তর প্রক্রিয়া সম্পর্কে ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ বলেন, ‘৫ তারিখে বিরোধী দল থেকে আনুষ্ঠানিক প্রস্তাব আসলো, প্রধান বিচারপতি সাহাবুদ্দিন উপ-রাষ্ট্রপতির পদ গ্রহণ করে তারপর ভারপ্রাপ্ত রাষ্ট্রপতির কাজ করবেন তিনি এবং তার অধীনেই একটি নির্দলীয় সরকার হবে। ৬ তারিখ বিকেল ৩টায় আমি রিজাইন করলাম। আমি রিজাইন করার পরে সাহাবুদ্দিন সাহেবকে ভাইস-প্রেসিডেন্ট এপয়েন্ট করলেন প্রেসিডেন্ট সাহেব। তারপর প্রেসিডেন্ট এরশাদ নিজে রিজাইন করলেন এবং তারপর সাহাবুদ্দিন সাহেব ভারপ্রাপ্ত রাষ্ট্রপতির দায়িত্ব গ্রহণ করে গণতন্ত্রের নতুন যাত্রা শুরু করলেন।"

৪ ডিসেম্বর জেনারেল এরশাদ যখন পদত্যাগের ঘোষণা দিয়েছিলেন, তখন রাস্তায় মানুষের যে ঢল নেমেছিল, সেটি ৬ ডিসেম্বর বিচারপতি সাহাবুদ্দিন আহমদের কাছে জেনারেল এরশাদের ক্ষমতা হস্তান্তর পর্যন্ত বজায় ছিল।

ফেমাসনিউজ২৪/আরআই