logo

মঙ্গলবার, ১৬ অক্টোবর ২০১৮ | ১ কার্তিক, ১৪২৫

header-ad

থেমে গেছে বিএনপি!

মো. রিয়াল উদ্দিন | আপডেট: ১৪ এপ্রিল ২০১৮

বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে শান্তিপূর্ণ কর্মসূচি যেন আরও ‘শান্তিতে’ রূপ নিয়েছে! বর্তমানে দলের কোনো কর্মসূচিই নেই। যা ছিল তার গতিও যেন থেমে গেছে।

খালেদা জিয়ার কারাগারে যাওয়ার পর প্রায় প্রতিদিনই শান্তিপূর্ণ কর্মসূচির ঘোষণা থাকত বিএনপির পক্ষ থেকে। তা পালনও হতো। তবে নেত্রীর কারাবরণের দুই মাস ছয় দিনের মাথায় তার মুক্তি দাবিতে গণস্বাক্ষর কর্মসূচি ছাড়া আর কোনো কর্মসূচিই চলমান নেই।

প্রায় প্রতিদিনই নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী সংবাদ সম্মেলন ডাকেন। সংবাদ সম্মেলনে চলমান বিষয়ের পাশাপাশি খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে কিছু বক্তব্য রাখেন। এ ছাড়া দলের মহাসচিবসহ সিনিয়র নেতারা বিএনপির অঙ্গ সংগঠন বা সহযোগী সংগঠনের ডাকা অনুষ্ঠানে অতিথি হিসেবে খালেদা জিয়ার মুক্তিতে বক্তব্য রাখছেন। তবে দলীয়ভাবে সারা দেশে শান্তিপূর্ণ কর্মসূচির অংশ হিসেবে বর্তমানে তাদের তেমন কোনো কর্মসূচি নেই।

সবশেষ গত ১ এপ্রিল কারাবন্দি বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে সারাদেশে লিফলেট বিতরণ করেন বিএনপি নেতারা। মাঝে সন্দেহজনক লেনদেন, অর্থ পাচার ও অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগে বিএনপির সিনিয়র আট নেতার বিরুদ্ধে অনুসন্ধান শুরু করে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। মহাসচিব মির্জা ফখরুলের অসুস্থতা, দুই সিটি করপোরেশনের মেয়র পদের মনোনয়নপত্র বিক্রি, প্রার্থী নির্ধারণ, এ ছাড়াও গত শনিবার স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য কারাগার থেকে খালেদা জিয়াকে হাসপাতালে নেওয়া হয়। একই সঙ্গে চলমান কোটা সংস্কারের দাবিতে ছাত্রছাত্রীদের আন্দোলন থাকায় বিএনপির কর্মসূচি দেয়া হচ্ছে না বলে সূত্রে জানা গেছে।

বিএনপি চেয়ারপরসন খালেদা জিয়া কারাগারে যাওয়ার পরই বিএনপির পক্ষ থেকে শান্তিপূর্ণ কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়। শান্তিপূর্ণ কর্মসূচির অংশ হিসেবে ধারাবাহিক মানববন্ধন, অবস্থান, অনশন, গণস্বাক্ষর সংগ্রহ, স্মারকলিপি প্রদান, কালো পতাকা প্রদর্শন ও প্রতিবাদ মিছিলসহ কয়েকদফা কর্মসূচি পালন করেন দলটির নেতাকর্মীরা। এসবের মধ্যে শুধু গণস্বাক্ষর সংগ্রহ কর্মসূচি চলমান রয়েছে। চেয়ারপারসনের মুক্তি না হওয়া পর্যন্ত গণস্বাক্ষর কর্মসূচি অব্যাহত থাকবে বলে জানা গেছে।

বিএনপি সূত্রে জানা গেছে, খালেদা জিয়ার নির্দেশনা না পাওয়া পর্যন্ত দলের পক্ষ থেকে কোনো ধরনের হার্ড লাইনে যাবে না দলটি। নির্বাচন সামনে রেখে এমন কোনো সিদ্ধান্ত নেয়া হবে না যা জনগণের ওপর প্রভাব পড়বে। সে লক্ষ্যে শান্তিপূর্ণ কর্মসূচির মাধ্যমে আন্দোলন করবে দলটি।

খালেদা জিয়ার মুক্তি নিয়ে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, ‘খালেদা জিয়ার মুক্তিই একমাত্র দাবি। মুক্তির পরই অন্য বিষয়ে আলোচনা।’

বিএনপি স্থায়ী কমিটির সদস্য লে. জে (অব.) মাহবুবুর রহমান ফেমাসনিউজ টোয়েন্টি ফোর ডটকমকে বলেন, ‘বিএনপি গণতন্ত্রে বিশ্বাস করে। গণতান্ত্রিক পন্থায় শান্তিপূর্ণ কর্মসূচির মাধ্যমে খালেদা জিয়াকে মুক্ত করা হবে। আমাদের কর্মসূচি চলমান আছে। আগামীতে আবারও সারা দেশে কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে।’

বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী আহমেদ ফেমাসনিউজ টোয়েন্টি ফোর ডটকমকে বলেন, ‘বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে গণস্বাক্ষার কর্মসূচি চলমান আছে। যা মুক্তির আগ পর্যন্ত চলবে। আগামীতে আবারও কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে।’

বিএনপির চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আতাউর রহমান ঢালি ফেমাসনিউজ টোয়েন্টি ফোর ডটকমকে বলেন, ‘আন্দোলন বলে কয়ে হয় না। দেয়ালে যখন পিঠ ঠেকে যাবে, তখন আন্দোলন ছাড়া আর কোনো বিকল্প পথ থাকবে না। তবে বিএনপি থেমে নেই। শান্তিপূর্ণ আন্দোলন চলছে।’

ফেমাসনিউজ২৪.কম/আরআই/আরবি