logo

মঙ্গলবার, ২২ মে ২০১৮ | ৮ জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৫

header-ad

ঢাকা-৫ আসনকে শিক্ষাজোন করার স্বপ্ন দেখছেন সজল

মো. রিয়াল উদ্দিন | আপডেট: ১৬ মে ২০১৮

সংসদীয় ঢাকা-৫ আসনকে শিক্ষাজোন হিসেবে গড়ে তোলার স্বপ্ন দেখছেন বঙ্গবন্ধুর আদর্শের সৈনিক ডেমরা থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মশিউর রহমান মোল্লা সজল। আওয়ামী লীগের এই তরুণ ক্লিন ইমেজের নেতা শুধু স্বপ্নই দেখেন না; তা বাস্তবায়নের জন্য প্রতিনিয়ত নিরলস পরিশ্রম করে যাচ্ছেন। তার স্বপ্ন বাস্তবায়নের প্রথম ধাপেই সফলতা দেখা দিয়েছে। এবারের মাধ্যমিক স্কুল সার্টিফিকেট (এসএসসি) পরীক্ষায় ঢাকাবোর্ডে ১ম হয়েছেন রাজধানীর কদমতলীর থানার এ. কে স্কুল অ্যান্ড কলেজের বিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থী ফাহমিদা বানু।

গত এক বছর চার মাস ধরে কদমতলীর এ. কে স্কুলে অ্যান্ড কলেজের গভর্নিং বডির সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন সজল। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের দায়িত্ব নেবার পর থেকেই প্রতিটি শিক্ষার্থীদের সুশিক্ষায় শিক্ষিত করে তোলার স্বপ্ন দেখতে থাকেন এই তরুণ রাজনীতিক।

তরুণ এই নেতার শিক্ষা নিয়ে চিন্তা-ভাবনা, স্বপ্ন, নিরলস পরিশ্রমের ফলেই শিক্ষাজোনের ভিত্তি মজবুত হয়েছে। স্কুলের শিক্ষকদের সহযোগিতা, শিক্ষার মানোন্নয়নে পরামর্শ, অভিভাবকদের সঙ্গে মতবিনিময়, শিক্ষার্থীদের নিরলস পরিশ্রম এবং অধ্যবসায়ের ফলেই ঢাকা-৫ আসনে এ সফলতা ধরা দিয়েছে।

ঢাকা-৫ আসনের প্রতিটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের মধ্যে সমন্বয় করে মতবিনিয়মের মাধ্যমে শিক্ষার মানোন্নয়নে প্রতিহিংসা নয় প্রতিযোগিতার মনোভাব তৈরি করেছেন সম্ভাব্য এমপি প্রার্থী সজল।

ঢাকা-৫ আসনের শাসসুল হক স্কুল অ্যান্ড কলেজ থেকে এসএসসি পরীক্ষায় ঢাকা বোর্ডে ৩য় হয়েছেন মো. মেহেরি হাসান নামের আরেক ছাত্র।

'দিন বদলের বইছে হাওয়া, শিক্ষা আমার প্রথম চাওয়া' বাবা সাংসদ হাবিবুর রহমান মোল্লার দেয়া এ স্লোগানকে প্রেরণা হিসেবে নিয়ে শিক্ষার মানোন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছেন তিনি। তার লক্ষ্য শুধু শিক্ষিত জাতি গঠন নয়, একটি সুশিক্ষিত জাতি গঠন করা।

তিনি মনে করেন, যে জাতি সুশিক্ষায় শিক্ষিত তারা কখনই থেমে থাকে না। উন্নয়নের মাধ্যমে দেশকে উচ্চ শিখরে নিয়ে যায়। তাই সারাদেশের অংশ হিসেবে ঢাকা-৫ আসনকে শিক্ষাজোন করতে চান তিনি।

শিক্ষাজোনের স্বপ্ন নিয়ে মশিউর রহমান মোল্লা সজল বলেন, আমার মূল আদর্শই হচ্ছে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। তার সোনার বাংলা প্রতিষ্ঠা করা। একইসঙ্গে জননেত্রী শেখ হাসিনার স্বপ্নকে বাস্তবায়ন করা। এর পাশাপাশি আমার নিজস্ব একটা লক্ষ্য রয়েছে। ঢাকা-৫ আসন নিয়ে আমার অনেক স্বপ্ন। তার মধ্যে আমার একটাই প্রধান লক্ষ্য রয়েছে। ঢাকা-৫ আসনকে ‘শিক্ষা জোন’ হিসেবে গড়ে তোলা। একইসঙ্গে মাদক নিয়ন্ত্রণ করা। মানুষকে সচেতন করতে পারলেই মাদক নিয়ন্ত্রণ সম্ভব।

'মানুষকে সচেতন করতে হলে আমার প্রধান অবলম্বন শিক্ষা জোন। আমরা যদি শিক্ষার আলো সঠিকভাবে অর্থাৎ সুশিক্ষার আলো প্রতিটি ঘরে ঘরে পৌঁছে দিতে পারি তাহলে মাদক বন্ধ হয়ে যাবে। এতে করে একদিকে আমাদের সন্তানরা সুশিক্ষায় শিক্ষিত হবে অন্যদিকে মাদক বন্ধ হয়ে যাবে। প্রকৃত শিক্ষায় শিক্ষিত হলে একজন মানুষ কখনই খারাপ কাজের সঙ্গে জড়াতে পারে না। আমি মনে করি- শিক্ষিত জাতি গঠন করলেই সমাজ থেকে সব ধরনের খারাপ কাজ হারিয়ে যাবে।

ঢাকা-৫ আসনের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষকদের অবসরের গ্র্যাচুয়েটি দেয়ার সুব্যবস্থা করবেন বলেও জানান তিনি। এর প্রথম ধাপ হিসেবে তার পরিচালিত এ. কে স্কুলে অ্যান্ড কলেজ শিক্ষকদের অবসরের গ্যাচুয়েটি দেয়া শুরু হয়েছে। একসঙ্গে ছাত্রছাত্রীদের শিক্ষা দেয়ায় সঠিকভাবে মনোনিবেশের জন্য প্রতিটি শিক্ষকের বেতন-ভাতা, বোনাস দেয়ার সুব্যবস্থা করবেন। ঢাকা-৫ আসনের স্কুল-কলেজের অবকাঠামোগত উন্নয়নেও কাজ করবেন তিনি।

শিক্ষার মানোন্নয়ন নিয়ে তিনি বলেন, ঢাকা-৫ আসনের স্কুল-কলেজের যেকোনো অনুষ্ঠানে আমাকে দাওয়াত দিলেই আমি যাই। কিন্তু যাবার আগেই বলি, অনুষ্ঠানটি এমনভাবে করবেন যাতে শুধু শিক্ষক-শিক্ষর্থী নয় অভিভাবকরাও যেন থাকে। আমি প্রতিটি অনুষ্ঠানে অভিভাবকদের ম্যাসেজ দিই। আমাদের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের করণীয় কি এবং অভিভাবকদের করণীয় কি? আমরা দুয়ে মিলে সন্তানকে সুশিক্ষায় শিক্ষিত গড়ে তুলবো। উচ্চশিক্ষা নয় আমার দরকার সুশিক্ষা।

আগামী জাতীয় নির্বাচনে ঢাকা-৫ আসন থেকে নৌকা প্রতীকে মনোনয়ন প্রত্যাশা করছেন এই তরুণ শিক্ষাবান্ধব নেতা। নির্বাচনী এজেন্ডা হিসেবে তিনি উল্লেখ করেন, সুশিক্ষার মাধ্যমে ঢাকা-৫ আসনকে শিক্ষাজোন হিসেবে গড়ে তোলা।

আগামী ঈদের পরই প্রতিটি স্কুলের শিক্ষক-শিক্ষার্থী, অভিভাবক এবং কমিটির সদস্যদের নিয়ে মতবিনিময় সভার মাধ্যমে আনুষ্ঠানিকভাবে শিক্ষাজোন গড়ার স্বপ্ন বাস্তবায়নের কাজ শুরু করবেন সজল।

সবার জন্য শিক্ষা বাস্তবায়নের জন্য দরিদ্র এবং সুবিধাবঞ্চিতদের পাশেও থাকবেন এই নেতা। সুবিধাবঞ্চিতদের অগ্রাধিকার দিয়ে একটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান গড়ার স্বপ্নও দেখেন তিনি। এ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে স্কুল-কলেজ এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের পড়াশুনাও শেষ করতে পারবেন বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন। একইসঙ্গে দরিদ্রদের বিশেষ সুযোগে স্কুল-কলেজে পড়ার সুযোগ সৃষ্টি করতে প্রতিটি প্রতিষ্ঠানকে আহবান জানিয়েছেন তিনি।

মশিউর রহমান মোল্লা সজলের শিক্ষাজোনের স্বপ্ন বাস্তবায়নে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন ঢাকা-৫ আসনের সর্বস্তরের জনগণ। একইসঙ্গে শিক্ষানীতিতে যারা বিশ্বাস করে তারাও সজলের পাশে দাঁড়িয়ে এ স্বপ্ন বাস্তবায়নে সহায়ক ভূমিকা রাখতে চান। এমন নেতাকে জনগণের পাশে পেতে আগামী নির্বাচনে ঢাকা-৫ আসনে নৌকা প্রতীকে মনোনয়ন দিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি সুদৃষ্টি কামনা করেছেন এলাকাবাসী।
ফেমাসনিউজ২৪/এফএম/এমএম