logo

বুধবার, ১৭ অক্টোবর ২০১৮ | ২ কার্তিক, ১৪২৫

header-ad

‘যারা শেখ হাসিনাকে ভালোবাসে, তারা নৌকার জন্য কাজ করবে’

মো. রিয়াল উদ্দিন | আপডেট: ০৫ জুলাই ২০১৮

রেজাউল করিম রেজা। ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক। ছাত্রজীবন থেকে ছাত্ররাজনীতি দিয়ে শুরু রাজনৈতিক জীবন। শুরুতেই বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শকে ধারণ করেছেন এই নেতা। বঙ্গবন্ধুকে বুকে ধারণ করে দেশরত্ন শেখ হাসিনার নির্দেশিত পথে চলছেন তিনি।

পারিবারিকভাবে ছোটবেলা থেকেই আওয়ামী লীগের আদর্শ, নীতিকে অনুসরণ করেছেন। তার পরিবারের সব সদস্যই আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত।

এই ওয়ার্ডের ছাত্রলীগের প্রেসিডেন্ট, থানা ছাত্রলীগের সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট, ওয়ার্ড যুবলীগের সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট, পরে প্রেসিডেন্ট, মহানগর যুবলীগের দপ্তর সম্পাদক এবং বর্তমানের ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবলীগের সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করছেন রেজা।

এই তরুণ নেতা নিজের গুণাবলী দিয়েই তৃণমূল এবং কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের সঙ্গে গড়ে তুলেছেন সুসম্পর্কের বন্ধন। বাংলাদেশকে নিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যে স্বপ্ন দেখেন সেই স্বপ্নকে বুকে ধারণ করে ঢাকা-৬ আসনের উন্নয়নে নিজেকে নিয়োজিত রাখতে চান তিনি।

ফেমাসনিউজ টোয়েন্টিফোরডটকমের এ প্রতিবেদকের সঙ্গে একান্ত আলাপচারিতায় নিজের আগামী দিনের স্বপ্নের কথা তুলে ধরেন তিনি।

সংসদীয় ঢাকা-৬ আসনে মনোনয়ন পাবার প্রত্যাশা নিয়ে রেজাউল করিম রেজা বলেন, আওয়ামী লীগের মনোনয়ন দেবেন আমাদের রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনা। তিনি যাদেরকে নির্ধারণ করবেন আগামী নির্বাচনে তারাই নির্বাচন করবেন। আমাদের এ আসনে বর্তমানে জাতীয় পার্টির এমপি রয়েছে। কিন্তু জনগণের মাঝে জাতীয় পার্টির এমপির তেমন কোনো গ্রহণযোগ্যতা নেই। আগামীতে আমাদের দলীয় এমপি হিসেবে যদি আমাকে মনোনয়ন দেয়া হয়, তবে দলের নেতাকর্মীরা দলীয় একজন এমপি পাবেন। একইসঙ্গে এলাকার উন্নয়নের জন্যও সুবিধা হবে।

তিনি বলেন, মাদক, সন্ত্রাস নির্মূলে রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনা যেভাবে ঘোষণা দিয়েছেন আমি সেভাবেই এ এলাকার মাদক নির্মূলে কাজ করবো। আওয়ামী লীগ থেকে আমাকে মনোনীত করলে তরুণ প্রজন্মকে সঙ্গে নিয়ে কাজ করবো। আমি জনগণকে সময় দিতে পারবো, উন্নয়নের ধারাকে অব্যাহত রাখতে পারবো। যুবসমাজের প্রতিনিধি হিসেবে আমার সে যোগ্যতা আছে।

রেজাউল করিম রেজা বলেন, আমার জীবনে আমার দ্বারা কখনই কোনো মানুষের ক্ষতি হয়নি। নিজেকে কখনই খারাপ কাজের সঙ্গে যুক্ত করিনি। মাদক, চাঁদাবাজি থেকে সব সময় দূরে থেকেছি। আগামীতেও থাকবো। সমাজ থেকে মাদক নির্মূলে সব সময় কাজ করে আসছি।

আওয়ামী লীগের অন্য মনোনয়ন প্রত্যাশীদের থেকে নিজেকে আলাদা করে তিনি বলেন, আমাদের এ আসনে অনেকেই আওয়ামী লীগের মনোনয়ন চাচ্ছেন। তারা সংগঠন চালাচ্ছেন। কিন্তু এই পুরান ঢাকায় সূত্রাপুরে আমি আমার ছাত্রজীবন থেকে এখানে। শিশুজীবন থেকে আমার উথান। এই দীর্ঘ দিনের ইতিহাসে আমার কোনো ধরনের অপকর্ম নেই। আমি শুধু রাজনীতির সঙ্গে সম্পৃক্ত, রাজনৈতিকভাবেই আমি বেঁচে আছি। এই ওয়ার্ডের ছাত্রলীগের প্রেসিডেন্ট, থানা ছাত্রলীগের সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট, ওয়ার্ড যুবলীগের সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট, পরে প্রেসিডেন্ট, মহানগর যুবলীগের দপ্তর সম্পাদক ছিলাম, এখন সাধারণ সম্পাদক হিসেবে আছি। এই দীর্ঘ সময়ে চ্যালেঞ্জ দিয়ে বলতে পারি- কেউ বলতে পারবে না, আমার দ্বারা কারো কোনো ক্ষতি হয়েছে। অন্য মনোনয়ন প্রত্যাশীর থেকে আমি আমার জায়গায় ব্যতিক্রম।

জনপ্রতিনিধি হিসেবে নিজেকে কতটুকু যোগ্য মনে করছেন এমন প্রশ্নের জবাবে যুবলীগের এই নেতা বলেন, যেহেতু সংগঠন করি, আমাদের দক্ষিণ যুবলীগের ৭৫টি ওয়ার্ড রয়েছে, তাদের প্রতিনিধিত্ব করি। শুধু নেতাকর্মীই নয় আমার কাছে অনেক সাধারণ মানুষও আসে। যাদের সব সময় সহযোগিতা করি। সংগঠনের দায়িত্ব সাংগঠনিকভাবেই করা হবে। একইসঙ্গে জনপ্রতিধি হিসেবে সাধারণ মানুষের সবরকম সমস্যাই সমাধান করেছি, আগামীতেও করতে পারবো। আমি জনগণের পাশে থেকে সব সময় তাদের উপকার করে যেতে চাই। আমার দ্বারা কোনো মানুষের কখনই কোনো ক্ষতি হবে না।

মনোনয়ন পেয়ে নির্বাচিত হলে ঢাকা-৬ আসনের জনগণের উন্নয়নে কি কাজ করবেন জানতে চাইলে তিনি বলেন, আজকে বৃষ্টি হলে রাস্তায় পানি জমে, এটি সাধারণ কিন্তু আমার মনে হয় না এই পানিটা রাস্তায় জমবে। কেন জমবে না? আমরা প্রতিটি বাড়ির ছাদের পানি রাস্তায় ফেলছি, এই ছাদের পানি রাস্তায় যাবার কারণেই পানি জমে। ছাদের পানি যদি বাড়ির সেফটি ট্যাঙ্কিতে জমা করি এবং পরে ব্যবহার করি তবে আমার রাস্তায় পানি জমবে না। বৃষ্টিতে যে পানি রাস্তায় পড়বে তা ড্রেনে নিয়ে যাবে। প্রত্যেক বাড়ির পানি যদি আমরা ধরে রাখি এতে সবাই উপকৃত হবে। একইসঙ্গে শিক্ষা জাতির মেরুদণ্ড। শিক্ষা ছাড়া একটা জাতি কখনই এগুতে পারে না। শিক্ষার অভাবে আমাদের মধ্যে মাদক ছড়িয়ে পড়ছে। একটা সমাজ শিক্ষিত হলে ওই সমাজ অবশ্যই উন্নত হবে। সমাজের মানুষ একদিন বিশ্বের বুকে মাথা উঁচু করে দাঁড়াবে। যেমন রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ বিশ্বের বুকে মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়েছে।

রেজাউল করিম রেজা বলেন, এলাকার উন্নয়নে সব সময় কাজ করবো। আওয়ামী লীগ সরকার দেশের জন্য উন্নয়ন বয়ে নিয়ে আসছে তার ধারাবাহিকতা অব্যহত থাকবে। শেখ হাসিনার নির্দেশে ঢাকা-৬ আসনের উন্নয়নে নিজেকে নিয়োজিত রাখবো।

যদি মনোনয়ন না দেয়া হয় তবে আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে সভানেত্রী শেখ হাসিনা যাকে মনোনয়ন দেবেন তার পক্ষেই কাজ করবেন জানান যুবলীগ নেতা রেজাউল করিম রেজা।

তবে মনোনয়ন পাবার বিষয়ে তিনি বলেন, আমি আওয়ামী লীগের পক্ষে, শেখ হাসিনার পক্ষে, নৌকার পক্ষে। যারা নৌকাকে ভালোবাসে, যারা রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনাকে ভালোবাসে, যারা আওয়ামী লীগকে ভালোবাসে তারা আমার সাথে থাকবে। আমাকে মনোনয়ন দেয়া হলে দলের সব নেতাকর্মী আনন্দের সঙ্গে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে কাজ করবে। কোনো দ্বন্দ্বের সৃষ্টি হবে না- এটা আমি হলফ করে বলতে পারি।
ফেমাসনিউজ২৪/এফএম/এমএম