logo

সোমবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৮ | ৫ অগ্রহায়ণ, ১৪২৫

header-ad

আ.লীগের নৌকায় উঠছেন ১৭৪ প্রার্থী!

মো. রিয়াল উদ্দিন | আপডেট: ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮

টানা দুই মেয়াদে ক্ষমতায় থেকে দেশ চালিয়ে যাচ্ছে আওয়ামী লীগ সরকার। চলতি বছরের ডিসেম্বরেই অনুষ্ঠিত হবে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন। এ নির্বাচনকে সামনে রেখে বড় ধরনের প্রস্তুতিও নিচ্ছে ক্ষমতাসীন দলটি।

ইতোমধ্যে তারা দেশের ১৭৪টি আসনে প্রার্থী তালিকা চূড়ান্ত করেছে বলে বিশ্বস্ত সূত্রে জানা গেছে। এক্ষেত্রে দলীয় হাইকমান্ডের পর্যবেক্ষণ এবং বিভিন্ন জরিপের ভিত্তিতে গ্রহণযোগ্য প্রার্থীদের বেছে নেয়া হচ্ছে।

এদিকে, বিএনপি মুখে যতই বলুক তারা নির্বাচনে আসবে না- আওয়ামী লীগ এটিকে পাত্তা দিচ্ছে না। তারা মনে করছে, বিএনপি নির্বাচনে আসবে। নির্বাচনে না এলে তাদের কোনো অস্তিত্ব থাকবে না। ফলে নির্বাচনে বিএনপি আসবে- এমনটি ধরেই প্রার্থী তালিকা চলছে মহাজোটে।

দলীয় সূত্র জানায়, নানা কারণে বিতর্কিত হয়েছেন কিংবা দল ও সরকারের ভাবমূর্তি প্রশ্নবিদ্ধ করেছেন- এমন শতাধিক এমপি-মন্ত্রী দলীয় মনোনয়নবঞ্চিত হতে পারেন। জনপ্রিয়তায় যারা এগিয়ে রয়েছেন, তাদেরই নৌকায় তুলছেন আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সূত্র আরও জানায়, একটি সুনির্দিষ্ট সময়ে নীতিনির্ধারণী পর্যায় থেকে মনোনীত প্রার্থীদের জানিয়ে দেয়া হবে এবং তাদের নাম ঘোষণা করা হবে।

আওয়ামী লীগ সূত্র জানায়, সরকারি-বেসরকারি একাধিক জরিপের মাধ্যমে প্রার্থী হিসেবে ১৭৪টি আসনে নাম চূড়ান্ত করা হয়েছে। তবে বিএনপি অংশ নিলে অর্থাৎ নির্বাচন প্রতিযোগিতামূলক হলে এরাই মনোনয়ন পাবেন। অন্য আসনগুলোতে শরিকদের জন্য বোঝাপড়ার ভিত্তিতে ৭৩টি পর্যন্ত আসন ছাড়া হতে পারে। কিন্তু বিএনপি নির্বাচন থেকে বিরত থাকলে এসব আসনেও প্রার্থী পরিবর্তন হতে পারে। আর জোট শরিকদের বেলায় আসবে প্রতিযোগিতা করে জয়ী হওয়ার হিসাব।

আওয়ামী লীগের মনোনয়ন বোর্ডের একাধিক সদস্যের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, আগামী নির্বাচনের জন্য আসনভিত্তিক বেশ কয়েকটি জরিপ করা হয়েছে। সরকারের বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থা, জেলা প্রশাসন, জেলা পুলিশ, বেসরকারি গবেষণা সংস্থা, দলের গবেষণা সংস্থা সিআরআই এসব জরিপ করে। এ ছাড়া ছাত্রলীগের একটি জরিপও প্রক্রিয়াধীন। দলের সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যুক্তরাষ্ট্র সফরেও মনোনয়ন নিয়ে কাজ করছেন।

মনোনয়ন চূড়ান্তের বিষয়ে জানতে চাইলে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন বোর্ড ও প্রেসিডিয়াম সদস্য কাজী জাফরউল্লাহ ফেমাসনিউজকে বলেন, বিভিন্ন জরিপের ভিত্তিতে আওয়ামী লীগের প্রার্থী বাছাই করা হচ্ছে। বেশ কিছু আসনে প্রার্থী চূড়ান্ত। অন্যগুলোতেও চূড়ান্তকরণের কাজ চলছে।

বিভিন্ন সূত্রে আওয়ামী লীগের যেসব প্রার্থীর নাম জানা গেছে তারা হলেন- নুরুল ইসলাম সুজন, পঞ্জগড়-২; রমেশ চন্দ্র সেন, ঠাকুরগাঁও-১; মনোরঞ্জন শীল গোপাল, দিনাজপুর-১; খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, দিনাজপুর-২; ইকবালুর রহিম, দিনাজপুর-৩; মোস্তাফিজুর রহমান, দিনাজপুর-৫। আসাদুজ্জামান নূর, নীলফামারী-২; মোতাহার হোসেন, লালমনিরহাট-১; নুরুজ্জামান আহমেদ, লালমনিরহাট-২।

রেজাউল করিম রাজু, রংপুর-১; টিপু মুনশি, রংপুর-৪; মাহবুব আরা গিনি, গাইবান্ধা-২; ইউনুস আলী সরকার, গাইবান্ধা-৩; ফজলে রাব্বি মিয়া, গাইবান্ধা-৫। আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন, জয়পুরহাট-২; আবদুল মান্নান, বগুড়া-১; হাবিবর রহমান, বগুড়া-৫; সাধন চন্দ্র মজুমদার, নওগাঁ-১; শহীদুজ্জামান সরকার, নওগাঁ-২; এমাজ উদ্দিন প্রাং, নওগাঁ-৪; আবদুল মালেক, নঁওগা-৫।

ওমর ফারুক চৌধুরী, রাজশাহী-১; আয়েন উদ্দীন, রাজশাহী-৩, এনামুল হক, রাজশাহী-৪; মো. আহসান উল হক মাসুদ, রাজশাহী-৫; শাহরিয়ার আলম, রাজশাহী-৬। শফিকুল ইসলাম শিমুল, নাটোর-২; আবদুল কুদ্দুস, নাটোর-৪; মোহাম্মদ নাসিম, সিরাজগঞ্জ-১; হাবিবে মিল্লাত, সিরাজগঞ্জ-২; তানভীর ইমাম, সিরাজগঞ্জ-৪; হাসিবুর রহমান স্বপন, সিরাজগঞ্জ-৬; শামসুল হক টুকু, পাবনা-১; মকবুল হোসেন, পাবনা-৩; রবিউল আলম বুদু, পাবনা-৪।

আবদুস শুকুর ইমন, মেহেরপুর-১; মাহবুব-উল আলম হানিফ, কুষ্টিয়া-৩; আবদুর রউফ, কুষ্টিয়া-৪; আলী আজগর, চুয়াডাঙা-২; তাহজীব আলম সিদ্দিকী, ঝিনাইদহ-২; আনোয়ারুল আজীম আনার, ঝিনাইদহ-৪। শেখ আফিল উদ্দীন, যশোর-১; মনিরুল ইসলাম, যশোর-২; শাহীন চাকলাদার, যশোর-৩; স্বপন ভট্টাচার্য, যশোর-৫; ইসমত আরা সাদেক, যশোর-৬। বীরেন শিকদার, মাগুরা-২; শেখ হেলাল উদ্দীন, বাগেরহাট-১; পঞ্চানন বিশ্বাস, খুলনা-১; মন্নুজান সুফিয়ান, খুলনা-৩; সালাম মুর্শেদী, খুলনা-৪; নারায়ণ চন্দ্র চন্দ, খুলনা-৫; মসিউর রহমান, খুলনা-৬। মীর মোস্তাক আহমেদ রবি, সাতক্ষীরা-২; আ ফ ম রুহুল হক, সাতক্ষীরা-৩; এসএম জগলুল হায়দার, সাতক্ষীরা-৪; ধীরেন্দ্র দেবনাথ শম্ভু, বরগুনা-১।

জোবায়দুল হক রাসেল, পটুয়াখালী-২; আ খ ম জাহাঙ্গীর হোসাইন, পটুয়াখালী-৩; মাহবুবুর রহমান, পটুয়াখালী-৪।

তোফায়েল আহমেদ, ভোলা-১; আলী আজম, ভোলা-২; নুরুন্নবী চৌধুরী শাওন, ভোলা-৩; আবদুল্লাহ আল ইসলাম জ্যাকব, ভোলা-৪; আবুল হাসনাত আবদুল্লাহ, বরিশাল-১; তালুকদার মো. ইউনুস, বরিশাল-২; পংকজ দেবনাথ, বরিশাল-৪; আমির হোসেন আমু, ঝালকাঠি-২। আবদুর রাজ্জাক, টাঙ্গাইল-১; খন্দকার আসাদুজ্জামান, টাঙ্গাইল-২; মোজাহারুল ইসলাম তালুকদার ঠাণ্ডু, টাঙ্গাইল-৪; ছানোয়ার হোসেন, টাঙ্গাইল-৫; আবদুল বাতেন, টাঙ্গাইল-৬, একাব্বর হোসেন, টাঙ্গাইল-৭; অনুপম শাহজাহান জয়, টাঙ্গাইল-৮।

আবুল কালাম আজাদ, জামালপুর-১; মির্জা আজম, জামালপুর-৩; মারুফা আক্তার পপি, জামালপুর-৫; আতিউর রহমান আতিক, শেরপুর-১; মতিয়া চৌধুরী, শেরপুর-২। জুয়েল আরেং, ময়মনসিংহ-১; ফাহমী গোলন্দাজ বাবেল, ময়মনসিংহ-১০; ওয়ারেসাত হোসেন বেলাল, নেত্রকোনা-৫। সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম, কিশোরগঞ্জ-১; রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিক, কিশোরগঞ্জ-৪; আফজাল হোসেন, কিশোরগঞ্জ-৫; নাজমুল হাসান, কিশোরগঞ্জ-৬। এএম নাঈমুর রহমান, মানিকগঞ্জ-১; মমতাজ বেগম, মানিকগঞ্জ-২; জাহিদ মালেক, মানিকগঞ্জ-৩; মৃণাল কান্তি দাস, মুন্সীগঞ্জ-৩।

কামরুল ইসলাম, ঢাকা-২; শাহীন আহমেদ, ঢাকা-৩; মশিউর রহমান মোল্লা সজল, ঢাকা -৫; ইসমাঈল হোসেন সম্রাট, ঢাকা-৮; হেদায়েতুল ইসলাম স্বপন, ঢাকা-৬; হাসিবুর রহমান মানিক, ঢাকা-৭; ঢাকা-৮; সাবের হোসেন চৌধুরী, ঢাকা-৯; শেখ ফজলে নূর তাপস, ঢাকা-১০; একেএম রহমতউল্লাহ, ঢাকা-১১; আসাদুজ্জামান খান, ঢাকা-১২; জাহাঙ্গীর কবির নানক, ঢাকা-১৩; এম সাইফুল্লাহ সাইফুল, ঢাকা-১৫; সাহারা খাতুন, ঢাকা-১৮; এনামুর রহমান, ঢাকা-১৯; বেনজীর আহমেদ, ঢাকা-২০।

আ. ক. ম. মোজাম্মেল হক, গাজীপুর-১; জাহিদ আহসান রাসেল, গাজীপুর-২; জামিল হাসান দুর্জয়, গাজীপুর-৩; সিমিন হোসেন রিমি, গাজীপুর-৪; আক্তারুজ্জামান, গাজীপুর-৫। নজরুল ইসলাম, নরসিংদী-১; কামরুল আশরাফ খান, নরসিংদী-২; সিরাজুল ইসলাম মোল্লা, নরসিংদী-৩; নুরুল মজিদ হুমায়ুন, নরসিংদী-৪; এবিএম রিয়াজুল কবীর কাওছার, নরসিংদী-৫।

গোলাম দস্তগীর গাজী, নরায়ণগঞ্জ-১; নজরুল ইসলাম বাবু, নারায়ণগঞ্জ-২; শামীম ওসমান, নারায়ণগঞ্জ-৪। কাজী কেরামত আলী, রাজবাড়ী-১; জিল্লুল হাকিম, রাজবাড়ী-২; আবদুর রহমান, ফরিদপুর-১; খন্দকার মোশাররফ হোসেন, ফরিদপুর-৩; কাজী জাফরুল্লাহ, ফরিদপুর-৪।

মুহাম্মদ ফারুক খান, গোপালগঞ্জ-১; শেখ ফজলুল করিম সেলিম, গোপালগঞ্জ-২; শেখ হাসিনা, গোপালগঞ্জ-৩। নুর ই আলম চৌধুরী লিটন, মাদারীপুর-১; শাজাহান খান, মাদারীপুর-২; একেএম এনামুল হক শামীম, শরীয়তপুর-২; নাহিম রাজ্জাক, শরীয়তপুর-৩; জয়া সেনগুপ্ত, সুনামগঞ্জ-২; এমএ মান্নান, সুনামগঞ্জ-৩; মুহিবুর রহমান মানিক, সুনামগঞ্জ-৫।

মাহমুদ উস সামাদ চৌধুরী, সিলেট-৩; ইমরান আহমেদ, সিলেট-৪; নুরুল ইসলাম নাহিদ, সিলেট-৬; শাহাব উদ্দিন, মৌলভীবাজার-১; উপাধ্যক্ষ আবদুস শহীদ, মৌলভীবাজার-৪; আবদুল মজিদ খান, হবিগঞ্জ-২; আবু জহির, হবিগঞ্জ-৩; মাহবুব আলী, হবিগঞ্জ-৪। র. আ. ম. উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরী, ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৩; আনিসুল হক, ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৪; মহিউদ্দিন আহমেদ মহি, ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৬।

সুবিদ আলী ভূঁইয়া, কুমিল্লা-১; ইউসুফ আবদুল্লাহ হারুন, কুমিল্লা-৩; রাজী মোহাম্মদ ফখরুল, কুমিল্লা-৪; আবদুল মতিন খসরু, কুমিল্লা-৫; আ ক ম বাহাউদ্দীন, কুমিল্লা-৬; ডা. প্রাণ গোপাল দত্ত কুমিল্লা-৭; তাজুল ইসলাম, কুমিল্লা-৯; আ হ ম মুস্তফা কামাল, কুমিল্লা-১০; মুজিবুল হক, কুমিল্লা-১১। মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া, চাঁদপুর-২; সুজিত রায় নন্দী, চাঁদপুর-৩, শামসুল হক ভূঁইয়া, চাঁদপুর-৪; মেজর রফিকুল ইসলাম বীর উত্তম, চাঁদপুর-৫। নিজাম উদ্দীন হাজারী, ফেনী-২; মোরশেদ আলম; নোয়াখালী-২; মামুনুর রশীদ কিরণ, নোয়াখালী-৩; একরামুল করিম চৌধুরী, নোয়াখালী-৪; ওবায়দুল কাদের, নোয়াখালী-৫; একেএম শাহজাহান কামাল, লক্ষ্মীপুর-৩।

ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন, চট্টগ্রাম-১; মাহফুজুর রহমান, চট্টগ্রাম-৩; এবিএম ফজলে করিম চৌধুরী, চট্টগ্রাম-৬; হাছান মাহমুদ, চট্টগ্রাম-৭; আফসারুল আমীন-চট্টগ্রাম-১০; আবদুল লতিফ, চট্টগ্রাম-১১; শামসুল হক চৌধুরী, চট্টগ্রাম-১২; সাইফুজ্জামান চৌধুরী, চট্টগ্রাম-১৩; নজরুল ইসলাম চৌধুরী, চট্টগ্রাম-১৪; আমিনুল ইসলাম, চট্টগ্রাম-১৫। আশেক উল্লাহ রফিক, কক্সবাজার-২; আবদুর রহমান বদি, কক্সবাজার-৪; এবং বীর বাহাদুর উ শৈ সিং, পার্বত্য বান্দরবান।

ফেমাসনিউজ২৪.কম/আরআই/আরবি/এমআরইউ