logo

বুধবার, ১২ ডিসেম্বর ২০১৮ | ২৮ অগ্রহায়ণ, ১৪২৫

header-ad

ময়নাতদন্ত, সৎকারের পর হাজির মৃত ব্যক্তি!

ফেমাসনিউজ ডেস্ক | আপডেট: ১১ মার্চ ২০১৮

মৃতদেহ শনাক্ত করে দাহ করার পরে মৃত ব্যক্তি জীবিত অবস্থায় বাড়িতে হাজির! আর তাই দেখে বাড়ির লোক থেকে পুলিশ সবার চক্ষু চড়কগাছ। এই অবাক করা ঘটনাটি ঘটেছে পশ্চিমবঙ্গের জলপাইগুড়িতে। ঘটনায় এলাকায় চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ে।

শনিবার গলায় ফাঁস লাগানো অবস্থায় মালবাজার মহকুমার ওদলাবাড়ি বাজার থেকে গিরেন রায় (৫৪) নামে এক ব্যক্তির মৃতদেহ উদ্ধার করে মালবাজার পুলিশ। মৃতের দুই ছেলে, সঞ্জিত রায় (২৭) ও বিশ্বজিৎ রায় (২৪)-সহ বাড়ির লোক এসে তার দেহ শনাক্ত করেন।

গিরেন রায়ের বাড়ি ক্রান্তির রাজাডাঙ্গা গ্রাম পঞ্চায়েতের দক্ষিণ হাসখালি এলাকায়। ছেলেরা জানান, তাদের বাবার গত চার বছর ধরে মানসিক সমস্যা ছিল। কখনও বাড়িতে থাকতেন, কখনও বাইরে চলে যেতেন। এদিন জলপাইগুড়িতে ময়নাতদন্তের পরে, কাঠাম বাড়ি এলাকায় বাবার মৃতদেহ সৎকার করেন ছেলেরা।

সব ঠিকঠাক চলছিল। কিন্তু হঠাৎ শনিবার ক্রান্তি এলাকার মানুষ দেখতে পান গিরেন রায় বাজারে ঘুরে বেড়াচ্ছেন। আর এতেই হতবাক এলাকার মানুষ। যে ব্যক্তিকে শুক্রবার রাতে শ্মশানঘাটে জ্বালিয়ে সৎকার করা হল, সেই ব্যক্তি আবার বাজারে কীভাবে ঘুরে বেড়াচ্ছেন।

প্রথমে এলাকার মানুষ ভয় পেয়ে যান। তার পরে কয়েক জন যুবক ওই ব্যক্তিকে তার বাড়িতে পৌঁছে দেন। বাড়িতে আসা মাত্রই ছেলে সঞ্জিত, বিশ্বজিৎ-সহ বাড়ির লোকেরা ঘাবড়ে যান। তাহলে শনিবার রাতে যার মুখাগ্নি করা হল তিনি কে? এই নিয়ে উঠছে নানা প্রশ্ন।

এদিকে গিরেন রায়কে দেখতে ভিড় করেন এলাকার মানুষ। আসে ক্রান্তি ফাঁড়ির পুলিশও। এলাকার মানুষ এবং পরিবারের মানুষের প্রাথমিক ধারণা, তাহলে দু’জনকে একই রকম দেখতে।

দুই ছেলে সঞ্জিত ও বিশ্বজিৎ-এর বক্তব্য, যিনি জীবিত অবস্থায় বাড়িতে এসেছেন, তিনিই তাদের বাবা। আর এই ব্যাপারে কোনও সন্দেহ নেই। কিন্তু যার মৃত্যু হল তিনি তা হলে কে? এই প্রশ্ন পুলিশের মধ্যেও ঘুরপাক খাচ্ছে।

কিন্তু দুই ছেলে জানিয়েছেন, ওই ব্যক্তির জন্যেও তারা তিন দিন নিয়ম অনুয়ায়ী শ্রাদ্ধের কাজ করবেন। এলাকার পঞ্চায়েত সদস্য সুজিত কুমার ঘোষ বলেন, ‘দুজনের চেহারার এত মিল যে বোঝা মুশকিল। আমরাও বুঝতে পারিনি। তবে ছেলেরা বাবাকে চিনে গ্রহণ করায় পুলিশ ফিরে আসে। আপাতত তিনি ছেলেদের সঙ্গে বাড়িতেই আছেন।’

ফেমাসনিউজ২৪.কম/এসআর/এসএম