logo

বুধবার, ১৭ অক্টোবর ২০১৮ | ১ কার্তিক, ১৪২৫

header-ad

মহিলার সঙ্গে করমর্দন, মুহূর্তেই গায়েব হীরের আংটি!

অন্যরকম ডেস্ক | আপডেট: ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮

বাড়ির কাছে পাড়ার মোড়ে এমন ঘটনা ঘটবে, তা বোধহয় স্বপ্নেও ভাবেননি শহরের প্রথম সারির ইউরোলজি সার্জেন মোহনচাঁদ শীল।

করমর্দন করে চিকিৎসককে রাস্তার উল্টোদিকে তার বাড়িতে গিয়ে চা খাওয়ার জন্য জোরাজুরি করেন। চিকিৎসক রাজি হননি। ফের করমর্দন করে মহিলা চলে যান। তারপরই চিকিৎসকরে হুশ ফেরে। তবে ততক্ষণে যা হওয়ার তা হয়ে গেছে। ডাক্তার দেখেন তার ডান হাতের অনামিকায় থাকা হীরের আংটি গায়েব।

রাস্তার অচেনা মহিলার সঙ্গে করমর্দন করার পর চিকিৎসক দেখলেন, তার হাতের হীরের আংটিটি উধাও। ততক্ষণে সুবেশা মহিলাও ভ্যানিশ!

ওই ঘটনার পরদিন রোববার এন্টালি থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন হীরের আংটি খোয়ানো ৭৪ বছরের প্রবীণ ওই চিকিৎসক। গতকাল মঙ্গলবার মোহনচাঁদ বলেন, ভাবতেই পারছি না এমন হতে পারে। রোগী বলে সম্মান জানাল। হাত ধরল। তারপর এমন ঘটনা।

পুলিশ জানায়, শনিবার রাত সাড়ে ৮টা নাগাদ বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক কনভেন্ট লেনের বাড়ি থেকে বেরিয়ে পাড়ার সেলুনে চুল কাটতে বের হন। সামান্য হাঁটা পথ। সিআইটি রোডের মুখে মিষ্টির দোকানের কাছে পৌঁছতেই এক মহিলা এসে কথা বলেন।

চিকিৎসক দাঁড়িয়ে যান। কথা বলতে বলতে রাস্তায় হাঁটতে থাকেন। চিকিৎসক জানান, বছর চল্লিশের ওই মহিলা স্মার্ট, বাংলা এবং ইংরেজি মিশিয়ে কথা বলছিলেন। মহিলা চিকিৎসককে বলেন, তিনি তার রোগী ছিলেন। মোহনচাঁদের চিকিৎসাতেই তিনি সুস্থ হয়েছেন।

তিনি প্রণাম করেন চিকিৎসককে। করমর্দন করে চিকিৎসককে রাস্তার উল্টোদিকে তার বাড়িতে গিয়ে চা খাওয়ার জন্য জোরাজুরি করেন। চিকিৎসক রাজি হননি। ফের করমর্দন করে মহিলা চলে যান। তারপরই চিকিৎসক দেখেন ডান হাতের অনামিকায় থাকা হীরের আংটি গায়েব।

পরদিন থানায় অভিযোগ দায়ের করেন মোহনচাঁদ। সেখানে অচেনা মহিলা সম্ভ্রান্ত এবং সুবেশা বলে জানিয়েছেন। ঘটনাস্থলে গিয়ে তদন্তের পাশাপাশি স্থানীয় এলাকার সিসিটিভির ফুটেজ খতিয়ে দেখছে।

ফেমাসনিউজ২৪.কম/আরআই/আরবি