logo

শনিবার, ২৫ মে ২০১৯ | ১১ জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৬

header-ad

মেয়েকে ফেসবুকে নিলামে তুলে বিয়ে দিলেন বাবা

অন্যরকম খবর ডেস্ক | আপডেট: ২৪ নভেম্বর ২০১৮

মেয়েকে ফেসবুকে নিলামে তুলে মেয়েকে বিয়ে দিলেন এক বাবা। ঘটনাটি দক্ষিণ সুদানের। টাকা ও গবাদিপশুর বিনিময়ে অপ্রাপ্তবয়স্ক মেয়েকে বিয়ে দিয়ে দেন তিনি।

নিজের ১৭ বছর বয়সী মেয়েকে সাজিয়ে ফেসবুকে নিলামে তুলেন ওই ব্যক্তি। নিলাম জিতে ওই নাবালিকাকে কিনে নেন এক ব্যবসায়ী। এর বিনিময়ে মেয়ের বাবাকে গাড়ি, মোটরবাইক, টাকাসহ অনেক কিছুই দেয়া হয়।

আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমে বলা হয়, ওই কিশোরীকে বিয়ে দেয়া হবে বলে গত ২৫ অক্টোবর তাকে নিলামে তুলে ফেসবুকে পোস্ট দেন তার বাবা। এরপর নিলামে অংশ নেন ইস্টার্ন লেকস স্টেটের পাঁচ ব্যক্তি। তাদের মধ্যে সরকারের উচ্চপদস্থ কর্মকর্তারাও ছিলেন।

এদের মধ্যে একজন ছিলেন ওই অঞ্চলের ডেপুটি জেনারেল। তবে নিলাম জিতে যান দক্ষিণ সুদানের এক নামকরা ব্যবসায়ী।

নিলামের বিষয়টি ফেসবুক কর্তৃপক্ষের নজরে আসে চলতি বছরের ৯ নভেম্বর। তারা পোস্টটি মুছে দেয়। একইসঙ্গে পোস্টদাতার আইডি ডিলিট করে দেয়। কিন্তু ওই কিশোরীর বিয়ে ঠেকানো সম্ভব হয়নি। কারণ পোস্টটি ডিলিট করে দেয়ার আগেই ৩ নভেম্বর মেয়েটির বিয়ে হয়ে যায়।

দরকষাকষি করে কিশোরীকে সর্বোচ্চ দামে যে ব্যবসায়ী কিনে নেন তিনি একজন বুড়ো মানুষ। তার আরো আট স্ত্রী রয়েছে। নিরাত্তার খাতিরে মেয়েটির নাম প্রকাশ করা হয়নি।

নিলামের মাধ্যমে বিয়ে দিয়ে ওই ব্যবসায়ীর কাছ থেকে ৫০০টি গরু, তিনটি বিলাসবহুল গাড়ি, দুটি মোটরবাইক, ১০ হাজার ডলার, একটি দামি বোট, কয়েকটি দামি মোবাইল পান মেয়ের বাবা।

দক্ষিণ সুদানের আইনজীবী ফিলিপস আয়নং নাগং বলেন, তিনি বিষয়টি জানার পর নিলাম বন্ধে চেষ্টা করেছিলেন। কিন্তু ব্যর্থ হন।

আফ্রিকায় নারী অধিকার নিয়ে কাজ করা ‘আফ্রিকান ফেমিনিজম’ জানিয়েছে, গত অক্টোবরের শেষের দিকে দক্ষিণ সুদানের একটি মেয়েকে ফেসবুকে রীতিমতো সাজিয়ে নিলামে চড়ানো হয়।

সুদানসহ আফ্রিকার বিভিন্ন মানবাধিকার সংগঠনগুলো এ ঘটনাকে ‘আধুনিক যুগের দাস-প্রথা’ বলে অভিহিত করেছে।

দক্ষিণ সুদানে মেয়ে বিক্রির প্রবণতা বৃদ্ধি পেয়েছে ব্যাপকভাবে। অনেকেই টাকা ও গবাদিপশুর বিনিময়ে অপ্রাপ্তবয়স্ক মেয়েদের বিয়ে দিয়ে দিচ্ছেন।
ফেমাসনিউজ২৪/এফএম/এমএম