logo

শুক্রবার, ২২ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ | ৯ ফাল্গুন, ১৪২৫

header-ad

কবর বিক্রি

ফেমাসনিউজ ডেস্ক | আপডেট: ০৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৯

এবারের রিহ্যাব মেলায় ‘অভিনব’ এক প্যাকেজ নিয়ে এসেছে এমআইএস হোল্ডিংস। প্রতিষ্ঠানটির পূর্বাচল রাওজাতুল জান্নাত প্রকল্পে বিক্রি করা হচ্ছে ‘স্থায়ী’ কবরের জায়গা। শুধু কবরের জায়গাই নয়, এ প্যাকেজ কিনলে মৃত ব্যক্তির গোসল, কবরস্থানে নিয়ে যাওয়া, কাফন, জানাজা, দাফন, দোয়াসহ সব কাজ করে দেবে প্রতিষ্ঠানটি। পরবর্তী সময়ে কবরের ‘নিরাপত্তা’ও দেবে তারা।

রাজধানীর শেরেবাংলা নগরের বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে চলমান রিহ্যাব মেলায় চলছে কবরের জমির এই বুকিং প্যাকেজ। সব মিলিয়ে জমিসহ প্যাকেজ মুল্য নির্ধারণ করা হয়েছে তিন লাখ ৪৫ হাজার টাকা। এর মধ্যে ৩ লাখ ৩০ হাজার টাকা মুলত জমির মুল্য। আর সার্ভিস চার্জ ১৫ হাজার টাকা। এই প্যাকেজটি নগদে ও কিস্তিতে দুভাবেই কেনার সুযোগ রেখেছে প্রতিষ্ঠানটি।

প্রতিষ্ঠানটির কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, পূর্বাচল রাওজাতুল জান্নাত প্রকল্পের এই কবরের জমির বুকিং নেওয়া হচ্ছে। প্রায় ২০০ বিঘা জমির উপর কয়েক হাজার মানুষের কবর দেওয়া যাবে সেখানে। ইতিমধ্যে দুই হাজার কবরের জমি তৈরি করা হয়েছে।

যা যা সুবিধা আছে এই কবরস্থানে
পূর্বাচল রাওজাতুল জান্নাত প্রকল্প সম্পর্কে জানতে চাইলে প্রতিষ্ঠানটির জনসংযোগ কর্মকর্তা আফরোজা সুলতানা বলেন, ' এখানে মুলত স্থায়ী কবরের জন্য জমি বরাদ্দ দেওয়া হচ্ছে। যেটা হবে স্থায়ী কবর। যে ব্যক্তি জমি কিনবেন তার নামে এই কবরের জায়গাটি রেজিস্ট্রি করে দেওয়া হবে। তার কবরের ওই জমি আর কেউ কোনো দিন ব্যবহার করতে পারেব না। আমাদের এই কবরস্থানের বিশেষ কিছু বৈশিষ্ট্য আছে। যেমন কবরস্থানের জমিতে মসজিদ, মাদ্রাসা ও এতিমখানা করা হচ্ছে। ওই মসজিদে পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ হবে। এতিমখানায় কোরআন পাঠ হবে, এটি আসলে একটি ধর্মীয় অনুভূতির ব্যাপার। আর কবর রক্ষণাবেক্ষণের চিরস্থায়ী খরচ ও দায়িত্ব আমরা নিজেরাই নিচ্ছি।

আফরোজা সুলতানা আরও বলেন, 'কবর বুকিং দেওয়া ব্যক্তি মারা যাওয়ার পর তার স্বজনরা আমাদের জানানো মাত্রই আমরা নিজ দায়িত্বে মরদেহের সকল কাজ সম্পন্ন করবো। যেমন, মরদেহের গোসল করানো, জানাজা, দোয়া ও দাফন আমাদের লোক দিয়েই করে দেবো। আর সবসময় ২৪ ঘণ্টা কবরের নিরাপত্তা আমরা নিশ্চিত করবো। কারণ, অনেক সময় কবরস্থান থেকে লাশের হাড়গোর চুরির হওয়ার ঘটনার কথা শোনা যায়। তাই কোনো ব্যক্তির মৃত্যুর পর কবরটার নিরাপত্তা নিশ্চিত করা আমাদের দায়িত্ব।

এক কবরে দাফন করা যাবে পরিবারের অন্যদেরও
পূর্বাচল রাওজাতুল জান্নাত প্রকল্পের কর্মকর্তারা জানান, কোনো ব্যক্তি যদি জমি বুকিং দেওয়ার সময় লিখিত দেন যে, তার ওই কবরে পরিবারের অন্য কোনো সদস্যকে দাফন করা যাবে, তখন আমরা ওই ব্যক্তির কবরে তার স্ত্রী, সন্তান বা পরিবারের অন্য কাউকে দাফনেরও ব্যবস্থা করবো। তবে শুধু মাত্র পরিবারের সদস্য হতে হবে।

কবরের যত প্যাকেজ
পূর্বাচল রাওজাতুল জান্নাত প্রকল্পের ওয়েবসাইটের ঘেঁটে দেখা যায়, নিজেদের চাহিদা মতো একক কবর, দুজনের কবর, পারিবারিক কবর, কমিউনিটি কবরসহ নানা রকমের জায়গার প্যাকেজ রয়েছে।

আবাসন নির্মাণ প্রতিষ্ঠান এমআইএস হোল্ডিংস লিমিটেডের তত্বাবধানে ২০১৮ সালের অক্টোবর মাসে যাত্রা শুরু করে বেসরকারি উদ্দ্যোগে ‘স্থায়ী কবরস্থান প্রকল্প’ পূর্বাচল রাওজাতুল জান্নাত। এরই যারা কবরের প্লট ক্রয় করেছেন তাদের মধ্যে প্রাথমিক প্রাপ্যতার সনদ বিতরণও করা হয়েছে। প্রায় ২০০ বিঘা এলাকা জুড়ে কয়েক হাজার কবর এর সংকুলান করতে এই উদ্দ্যোগ নিয়েছেন তারা। ঢাকার অদূরে গাজীপুরের পানজোড়া মৌজায় পূর্বাচলের ৩০নং সেক্টরের উত্তর পূর্ব সংলগ্ন এলাকায় রওজাতুল জান্নাত অবস্থিত।

ফেমাসনিউজ২৪/এফএম/এমআরইউ