logo

বুধবার, ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২০ | ১৪ ফাল্গুন, ১৪২৬

header-ad

চিতাবাঘের মাংস দিয়ে পিকনিক!

ফেমাসনিউজ ডেস্ক | আপডেট: ১২ জানুয়ারি ২০২০

বাঘের মাংস দিয়ে পিকনিক করলেন ভারতের আসামের অটল রঙঢালি এলাকার বাসিন্দারা
চলছে পিকনিকের মৌসুম। শীতের আমেজে পিকনিকের আয়োজনে মেতে ওঠেছে বিভিন্ন সংগঠন। বিভিন্ন স্পটে গিয়ে মুখরোচক রান্না নিয়ে ব্যস্ত হয়ে পড়েছেন ভোজনরসিকরা। তাই বলে বাঘের মাংস দিয়ে পিকনিক! এমনটিই করলেন ভারতের আসামের অটল রঙঢালি এলাকার বাসিন্দারা।

একটি পূর্ণবয়স্ক চিতাবাঘকে পিটিয়ে মেরে তার মাংস দিয়ে ভূরিভোজ করেছেন তারা।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম কলকাতা টাইমস জানিয়েছে, সম্প্রতি চিতাবাঘের মাংস দিয়ে রীতিমতো পিকনিক করলেন আসামের এই স্থানীয়রা।

সংবাদমাধ্যমটি জানায়, কয়েক দিন আগে আসামের অটল রঙঢালি এলাকায় পাঁচজন মানুষের ওপর হামলা চালিয়েছিল একটি চিতাবাঘ। নদী পেরিয়ে অন্য গ্রামে ঢুকেও কিছু মানুষের ওপর হামলা চালায় এই হিংস্র বাঘ। এর পর গ্রামবাসী বাঘটিকে চারপাশ থেকে ঘিরে ফেলে। প্রথমে দূর থেকে ইট, পাথর মেরে বাঘটিকে দুর্বল করে দেন তারা। তার পর লাঠি দিয়ে পিটিয়ে চিতাবাঘটিকে মেরে ফেলেন তারা। এর পরই চিতাবাঘ মারার উল্লাসে উৎসবে মেতে ওঠেন গ্রামবাসী। মৃত বাঘের মাংস দিয়েই পিকনিকের আয়োজন করেন তারা।

এদিকে এমন ঘটনায় অবাক হয়েছেন আসামের বন অধিদফতরের কর্মকর্তারা। দেশটির পশুপ্রেমীরা বিষয়টিকে মেনে নিতে পারছেন না।

এ ঘটনায় বন অধিদফতর গ্রামবাসীর বিরুদ্ধে অভিযোগ করেছে। জড়িতদের চিহ্নিত করতে ঘটনার তদন্তে নেমেছেন তারা।

এ বিষয়ে বন অধিদফতরের এক কর্মকর্তা বলেন, নদী পার হয়ে ক্লান্ত হয়ে গিয়েছিল চিতাবাঘটি। সেই সুযোগে গ্রামবাসী একে মেরে ফেলেন। এর আগেও এই অঞ্চলে এমনটি ঘটেছিল। আসাম-নাগাল্যান্ড সীমানায় এর আগে হাতি মেরে তার মাংস খেয়েছিলেন গ্রামবাসী। এবার বাঘ মেরে খাওয়ার ঘটনা ঘটল।

তাই বিষয়টি গুরুত্ব নিয়ে দেখা হচ্ছে বলে জানান তিনি।

তিনি বলেন, এ ঘটনায় জড়িতদের চিহ্নিত করে শাস্তির আওতায় আনা হবে।