logo

রবিবার, ১৭ ডিসেম্বর ২০১৭ | ৩ পৌষ, ১৪২৪

header-ad

যেভাবে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ শুরু

ফেমাসনিউজ ডেস্ক | আপডেট: ০৬ ডিসেম্বর ২০১৭

সত্তুর বছর আগে ১৯৩৯ সালের ১ সেপ্টেম্বর জার্মান জাহাজ থেকে বোমা বর্ষণ করা হয় ডানজিগ বন্দরের অদূরে এক উপদ্বীপে পোলিশ অবস্থানের ওপর৷ তার অল্প পরে প্রায় দেড় লাখ জার্মান সেনা সীমান্ত অতিক্রম করে ঢুকে পড়ে পোল্যান্ডে৷ শুরু হয় দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ৷ পাল্টে যায় বিশ্ব, ইতিহাস মোড় নেয় নতুন দিকে৷

'হঠাৎ করেই শুরু হয় বোমা বর্ষণ, গোলাগুলি, চারিদিকে মৃতদেহ৷' সেদিনের কথা মনে করে কথাগুলো বলেন সাবেক পোলিশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী ভ্লাদিস্লাভ বার্টোশেভস্কি৷

সাবেক পোলিশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী ভুলে যাননি সেই আতঙ্কের দিনগুলোর কথা৷ সেদিন ছিল শুক্রবার৷ ১ সেপ্টেম্বর, ১৯৩৯৷ ভোর প্রায় সাড়ে চারটা৷ জার্মান জঙ্গি বিমানে ছেয়ে যায় পোল্যান্ডের ছোট শহর ভিলুনের আকাশ৷ কেন এই যুদ্ধ তখনো কারো কাছে তা পরিস্কার নয়৷ এই আক্রমণের জন্যও কেউ তৈরি ছিল না৷ ভিলুন ছোট একটি শহর, কোনো সেনা নেই, নেই তার কোনো সামরিক গুরুত্ব৷ খুব অল্প সময়ের মধ্যেই ছাই আর ধ্বংসস্তূপের শহরে পরিণত হয় ভিলুন৷

ভোর পৌনে পাঁচটার দিকে জার্মান যুদ্ধ জাহাজ বোমা বর্ষণ করে ডানজিগের কাছে পোল্যান্ডের অস্ত্রাগারের ওপর৷ পোল্যান্ডের ওপর আক্রমণ চলে পূর্ণ গতিতে৷ জার্মান একনায়ক হিটলার ঘোষণা করেন, পোল্যান্ড আজ রাতে প্রথম আমাদের সীমান্ত অতিক্রম করেছে, আমাদের সেনাদের ওপর গুলি চালিয়েছে৷ ভোর পৌনে ছ'টা থেকে পাল্টা গোলাগুলি শুরু হয়েছে এবং এখন থেকে বোমার জবাব দেবে পাল্টা বোমা৷

হিটলারের ওই নির্জলা মিথ্যে দিয়েই যুদ্ধের শুরু৷ কারণ সেসব সেনা ছিল হিটলারের বিশেষ এস এস বাহিনীর সদস্য৷ তাদের পরণে নিয়েছিল পোলিশ সেনাদের পোশাক৷ প্রায় দেড় লাখ সশস্ত্র জার্মান সশস্ত্র সেনা দ্রুত এগিয়ে যায় পোল্যান্ডের সীমান্তে৷ হিটলারের মিথ্যাচারের মূল্য পোলিশদের দিতে হয় জীবন দিয়ে৷

পোল্যান্ড আক্রমণের এক সপ্তাহ আগে হিটলার এবং স্ট্যালিনের মধ্যে একটি চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়৷ এই চুক্তির ফলেই পোল্যান্ড আক্রমণ করা জার্মানির জন্য অনেক সহজ হয়ে যায়৷ চু্ক্তিতে উল্লেখ ছিল পোল্যান্ডকে ভেঙে ফেলা হবে৷ পোল্যান্ডকে ভাগাভাগি করে নেবে জার্মানি এবং তখনকার সোভিয়েত ইউনিয়ন৷

দ্রুত স্পষ্ট হয়ে ওঠে যে, ভূখণ্ড দখলই শুধু নয়, পোলিশ জাতিকে ধ্বংস করাও লক্ষ্য৷ এরপরই শুরু হয় হত্যাযজ্ঞ৷ পোল্যান্ডের শিক্ষিত এবং সুশীল সমাজকে নিশ্চিহ্ন করার উদ্যোগ৷ অধ্যাপক, চিকিৎসক, আইনবিদ, লেখক, রাজনীতিকদের বেছে বেছে হত্যা করা হয়৷ চালানো হয় নির্বিচার ইহুদী নিধন৷

৩৬ দিন পর পোল্যান্ড হার মানতে বাধ্য হয়৷ উল্লাসে ফেটে পড়ে স্ট্যালিন এবং হিটলার৷ পোল্যান্ডকে ভাগ করে নেয় সোভিয়েত ইউনিয়ন এবং জার্মানি৷ ফ্রান্স আর গ্রেট ব্রিটেন যুদ্ধ ঘোষণা করে পোল্যান্ডের উপর জার্মান আক্রমণের দুদিন পর৷

পাঁচ বছর ধরে পোল্যান্ড গণহত্যার শিকার হয়৷ প্রাণ হারায় প্রায় ৫ লাখ মানুষ৷ এর মধ্যে ছিল তিন লক্ষ পোলিশ ইহুদী৷ পোল্যান্ড আক্রমণ হিটলারের জন্য ছিল আরো বড় এক যুদ্ধেরই মহড়া৷ বিশ্বযুদ্ধ আদতে যুদ্ধ শুরু হয়েছিল এরপরই৷

ফেমাসনিউজ২৪/আরঅ্যা/আরইউ