logo

সোমবার, ১৭ ডিসেম্বর ২০১৮ | ৩ পৌষ, ১৪২৫

header-ad

তিনদিন হোটেলে কাটিয়েও শান্তি ফিরল না অহনার

ফেমাসনিউজ ডেস্ক | আপডেট: ২০ মার্চ ২০১৮

শ্বশুরবাড়িতে নিয়মিত তাকে গঞ্জনা শুনতে হয় বলে বিচারককে চিঠি দিয়ে অভিযোগ করেছিলেন অহনা। অহনার অভিযোগ, শ্বশুরবাড়ির দোতলায় যে ঘরে তার বাবার দেয়া যৌতুকের খাট-বিছানা রয়েছে, তা ব্যবহার করা বন্ধ করে দেন শ্বশুর।

বিচারকের হস্তক্ষেপের পর সম্পর্ক নতুনভাবে শুরুর মাত্র ২০ দিনের মধ্যে ফের অশান্তির ছায়া নেমে এল এই দম্পতির মধ্যে। হোটেলে নিভৃতে থাকবেন দম্পতি, খরচ দেবেন বিচারক! রাগ গলে জল হবে স্বামী-স্ত্রীর। কিন্তু না, বীরভূমের সিউরির দম্পতি গৌতম ও অহনার মধ্যে শান্তি ফিরেনি।

গত জানুয়ারি মাসে স্বামীর বিরুদ্ধে নির্যাতনের অভিযোগ তুলে সিউড়ি আদালতের দ্বারস্থ হন অহনা সাহা। পালটা অভিযোগ তোলেন স্বামী গৌতম দাসও। কিন্তু সিউরির জেলা ও দায়রা বিচারক পার্থসারথী সেন নজিরবিহীনভাবে অহনা ও গৌতমকে তিনদিন একটি হোটেলে কাটানোর নির্দেশ দেন। নিজের খরচেই দম্পতিকে হোটেলে পাঠান বিচারক। সেই হোটেলে ওই দম্পতির আত্মীয়দেরও প্রবেশ নিষিদ্ধ ছিল।

তিনদিন পর বিচারকের সামনে পুরনো অভিমান ভুলে ফের শ্বশুরবাড়ি যাওয়ার কথা জানান অহনা। গৌতম-অহনা দুজনে সিউড়ির ভট্টাচার্যপাড়ার বাড়িতে গিয়ে ওঠেন। কিন্তু শ্বশুরবাড়ি ফিরলেও গৌতম ও তাঁর পরিবারের বিরুদ্ধে তোলা অভিযোগ থানা থেকে প্রত্যাহার করেননি অহনা। তা ঘিরেই ফের বিতর্কের সূত্রপাত।

উল্লেখ্য, আদালতের নির্দেশে ১৯ জানুয়ারি শ্বশুরবাড়ি ফিরলেও ফের ১ ফেব্রুয়ারি বাবা-মায়ের সঙ্গে নদিয়া ফিরে যান অহনা। কারণ হিসেবে অহনা জানান, খাদ্যে বিষক্রিয়ার জেরে গত ৩০ জানুয়ারি অসুস্থ হয়ে পড়েন তিনি।

পরের দিন সিউড়ি হাসপাতালে ভর্তি হয়ে, তার পরেই বাবার বাড়ি ফিরে যান। অহনার অভিযোগ, তাকে মানসিক নির্যাতন করা হয়, যদিও চিঠির শেষে শাশুড়িকে ‘ভালো মানুষ’ বলে উল্লেখ করেন তিনি। পাশাপাশি জেলা জজের কাছে ফের সুস্থ ও সাধারন জীবনযাপনের জন্য আর্জি জানান তিনি।

অহনার অভিযোগের ভিত্তিতে সোমবার দু’জনকেই জেলা আদালতে হাজিরা দেয়ার নির্দেশ দেয় জেলা আইনি পরিষেবা কেন্দ্র। গৌতম দাস হাজিরা দিয়ে যান। অহনা অনুপস্থিত ছিলেন। তবে গৌতম তার বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ নিয়ে কোনও মন্তব্য করতে চাননি।

অহনার আইনজীবী জানান, অহনা অসুস্থ থাকায় নদিয়া থেকে এসে আদালতে হাজির হতে পারেননি। ফলে দু’জন হাজির না হওয়ায় বিচার প্রক্রিয়া শুরু হয়নি।

বিচার প্রক্রিয়ায় শুরু হলে ফের বিচারক সম্পর্কে জোড়া লাগাতে কোনও পদক্ষেপ করেন কিনা সেটাই এখন দেখার বিষয়।
ফেমাসনিউজ২৪/এফএম/এমএম