logo

মঙ্গলবার, ১১ ডিসেম্বর ২০১৮ | ২৭ অগ্রহায়ণ, ১৪২৫

header-ad

'আমিও ধর্ষিত হয়ে যেতে পারি’‌‌

আন্তর্জাতিক ডেস্ক | আপডেট: ১৬ এপ্রিল ২০১৮

ভারতের কাঠুয়া গণধর্ষণকাণ্ডে আট বছরের শিশুর পরিবারের পাশ থেকে সরে যাননি আইনজীবী দীপিকা সিং রাজাওয়াত। নিজের সহকর্মীদের কাছ থেকেই হুমকি পেয়েছেন তিনি। দীপিকা সিং জানান, তাকে প্রাণনাশের হুমকি দেয়া হয়েছে। সুপ্রিমকোর্টকে তিনি জানাতে চলেছেন যে, তার জীবনের ঝুঁকি রয়েছে। যেকোনো সময় তার সঙ্গে কোনও অঘটন ঘটে যেতে পারে।

দীপিকা সিং রাজাওয়াত বলেন, ‘‌আমি জানি না- আমি আর কতক্ষণ বেঁচে থাকতে পারব। আমিও ধর্ষিত হয়ে যেতে পারি, আমার শালীনতার অপমান হতে পারে, হয়তো আমাকে খুন করে দিতে পারে। আমায় পঙ্গুও করে দিতে পারে। আমাকে রোববার প্রাণনাশের হুমকি দেয়া হয়েছে। বলা হয়েছে- আমাকে ওরা ক্ষমা করবে না। আমি সুপ্রিমকোর্টকে জানাব যে, আমার জীবনের ঝুঁকি রয়েছে।

গত সপ্তাহে কাঠুয়ার ধর্ষণকাণ্ডের আইনজীবী সংবাদমাধ্যমের সামনে জানিয়ে ছিলেন যে, জম্মু বার অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি বিএস সালাথিয়া তাকে লাগাতার হুমকি দিয়ে চলেছেন। দীপিকা সিং বলেন, আমি জম্মু বার অ্যাসোসিয়েশনের সদস্য নই। কিন্তু বুধবার আমি যখন কোর্টে যাই আমাকে সালথিয়া এ মামলা থেকে সরে যেতে বলেন। আমি তাকে কোনও পাল্টা জবাব দিইনি। কারণ আমি একমাত্র জবাব দিতে বাধ্য আমার মক্কেলকে।

দীপিকা সিং বলেন, ‘আমি ভয় পাচ্ছি না, কিন্তু আমি সুরক্ষিত নই। বিক্ষোভরত আইনজীবীরা আমার ওপর চাপ সৃষ্টির চেষ্টা করছেন যাতে আমি আট বছরের শিশুর বিচারের জন্য না লড়ি। কিন্তু আমি আসিফার জন্য লড়াই চালিয়ে যাব। পুলিশি তদন্তের ওপর আমার পূর্ণ আস্থা রয়েছে।

দীপিকা সিং রাজাওয়াত জম্মু–কাশ্মীর হাইকোর্টের পাশাপাশি সুপ্রিমকোর্টেও মামলা দায়ের করেছেন। হাইকোর্ট এরই মধ্যে কোর্ট চত্বরে তার সুরক্ষা নিশ্চিত করার জন্য নিরাপত্তা দেয়ার নির্দেশ দিয়েছেন।

যদিও আইনজীবীর সব অভিযোগ নাকচ করেছে বার কাউন্সিলর। তারা জানান, ৩ এপ্রিল থেকে আইনজীবীদের প্রতিবাদ চলছে তাই দীপিকা সিংকেও অনুরোধ করা হয়েছিল কোনও মামলায় যেন তিনি না লড়েন।

জম্মুর আইনজীবী দীপিকা সিং রাজাওয়াত কাঠুয়ার আট বছরের ধর্ষিতার মামলা লড়ার দায়িত্ব নিয়েছেন। জানুয়ারিতে এই শিশুকে গণধর্ষণ করে খুন করা হয়েছিল। দীপিকা সিং একটি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের সঙ্গেও যুক্ত বলে জানা গেছে, যারা দুঃস্থ মহিলা-শিশুদের নিয়ে কাজ করে।
ফেমাসনিউজ২৪/এফএম/এমএম