logo

মঙ্গলবার, ১৬ অক্টোবর ২০১৮ | ১ কার্তিক, ১৪২৫

header-ad

ট্রাম্প ও কিমের বৈঠক কি ভেস্তে যাচ্ছে?

আন্তর্জাতিক ডেস্ক | আপডেট: ১৬ মে ২০১৮

আমেরিকা যদি পারমাণবিক অস্ত্র নষ্ট করে ফেলার জন্য তাদের ওপর চাপ দেয় তাহলে তারা প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সঙ্গে শীর্ষ বৈঠকে বসবে না বলে বলছে উত্তর কোরিয়া।

এদিকে মি: ট্রাম্প ও উত্তর কোরীয় নেতা কিম জং আনের মধ্যে বহু প্রতীক্ষিত বৈঠকটি ১২ই জুন সিঙ্গাপুরে হবার কথা রয়েছে । ক্রুদ্ধ এক বিবৃতিতে উত্তর কোরিয়ার উপ-পররাষ্ট্র মন্ত্রী কিম গিয়ে-গুয়ান আমেরিকার বিরুদ্ধে 'অশুভ অভিপ্রায়ের' এবং দায়িত্বহীন বিবৃতি দেবার অভিযোগ করে তিনি এজন্য সরাসরি দায়ী করেছেন মার্কিন জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা জন বোল্টনকে। তিনি বলেন, ‘আমরা খোলাখুলিই বলছি যে আমরা তাকে একজন জঘন্য মানুষ বলে মনে করি’।

কোরীয় উপদ্বীপকে পারমাণবিক অস্ত্রমুক্ত করার ব্যাপারে উত্তর কোরিয়া প্রতিশ্রুতি দেবার পর মি: কিম ও মি: ট্রাম্পের মধ্যে শীর্ষ বৈঠকের ঐতিহাসিক সম্মতি এসেছিল। উত্তর কোরিয়া বিদেশি সংবাদমাধ্যমগুলোকে আমন্ত্রণও জানিয়েছিল এ মাসের পরের দিকে তাদের পারমাণবিক অস্ত্র পরীক্ষার স্থান ভেঙে ফেলার ঘটনা প্রত্যক্ষ করার জন্য।

মি: বোল্টন সম্প্রতি বলেছিলেন উত্তর কোরিয়া ‘লিবিয়া মডেল'' অনুসরণ করতে পারে যেখানে দেশটি যে পরমাণু অস্ত্রমুক্ত হয়েছে তা যাচাইযোগ্য হবে, কিন্তু উত্তর কোরিয়া কর্তৃপক্ষ অতীতে এমন কথা বলেছে যে লিবিয়া ২০১১ সালে পশ্চিমা সামরিক অভিযানের জাঁতাকল হয়ত এড়িয়ে গেছে, কিন্তু তারা তাদের পারমাণবিক অস্ত্র কর্মসূচি অব্যাহত রেখেছে’।

সোলে বিবিসির সংবাদদাতা লরা বিকার বলছেন, ‘উত্তর কোরিয়া বহুদিন থেকেই বলে আসছে রাষ্ট্র হিসাবে টিকে থাকার জন্য তাদের পারমাণবিক অস্ত্র থাকা অত্যাবশ্যক। এখন দেশটি তাদের সেই দাবি আরও স্পষ্ট করছে’।

ফেমাসনিউজ২৪.কম/জেডআর