logo

সোমবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮ | ৯ আশ্বিন, ১৪২৫

header-ad

ট্রেনে সন্তান প্রসব, খরচ মাত্র ১০০!

আন্তর্জাতিক ডেস্ক | আপডেট: ১১ জুলাই ২০১৮

সন্তানসম্ভবা মা যদি সফরের মাঝে বিপদে পড়েন, ট্রেনে থাকা চিকিৎসকরাই সেবা দেবেন। জরুরি প্রসব করাতে খরচ পড়বে মাত্র ১০০ টাকা! ভারতীয় রেলের চিকিৎসা পরিষেবার আওতায় ৫৮টি উপকরণ রাখা হয়েছে।

জানা গেছে, ৮৮টি জীবনদায়ী ওষুধ ও ফার্স্ট এইড কিট থাকবে এই মেডিক্যাল বক্সে। এর মধ্যে রয়েছে- অক্সিজেন সিলিন্ডার, ল্যারিঙ্গোস্কোপ, ক্যাথেটার্স, সিরিঞ্জ বিভিন্ন ধরনের অ্যান্টিসেপ্টিক, জীবনদায়ী ট্যাবলেট, ব্যান্ডেজ ও বিভিন্ন রকম মলম।

এমনকি এই নতুন মেডিক্যাল বক্সে রয়েছে ডেলিভারি কিটও। এর সাহায্যে কোনও প্রসূতির জরুরি প্রসব করাতে পারবেন ট্রেনে থাকা চিকিৎসক। তার জন্য প্রতিটি স্টেশনে ডাক্তারদের একটি বিশেষ দল তৈরি রাখা হয়েছে। প্রয়োজনমতো ব্যবহার করতে পারবে যাত্রীরা।

অনেকেই হয়তো জানেন, ট্রেনে সফর চলাকালীন কোনও যাত্রী অসুস্থবোধ করলে কিংবা তার সামান্য চোট লাগলে ফার্স্ট এইডের ব্যবস্থা রয়েছে ভারতীয় রেলের৷ দূরপাল্লার ট্রেনগুলিতে মূলত মেডিক্যাল অফিসাররাই এই চিকিৎসা পরিষেবা দিয়ে থাকেন৷

রেলের নিয়ম ছিল, এই ফার্স্ট এইড পরিষেবা নিলে ‘কনসালটেশন ফি’ হিসেবে যাত্রীদের মেডিক্যাল অফিসারদের ২০ টাকা করে দিতে হবে৷ যদিও এর মধ্যে ১৫ টাকাই ড্রেসিং, ইনজেকশন ও ওষুধের দাম বাবদ ধরা থাকে৷ কিন্তু রেলের কর্তাদের একাংশ জানাচ্ছেন, খাতা-কলমে এ নিয়ম থাকলেও ৯৯ শতাংশ যাত্রীই সেই টাকা দিতেন না। ২০ টাকা এবার বাড়িয়ে ১০০ টাকা করা হল।

চিকিৎসার খরচ অবশ্য এমনিতেই বাড়েনি। হয়েছে মোমলা মোকদ্দমা। সম্প্রতি এক জনস্বার্থ মামলার ফলে দূরপাল্লার ট্রেনে সাধারণ ফার্স্ট এইড বক্সের বদলে অত্যাধুনিক মেডিক্যাল বক্স রাখা শুরু করেছে ভারতীয় রেল।

সুপ্রিমকোর্টের নির্দেশে দিল্লির এইমস হাসপাতালের একদল চিকিত্সক ঠিক করেছেন মেডিক্যাল বক্সের ভিতর কী কী উপাদান রাখা হবে। এই নতুন ব্যবস্থায় সন্তানসম্ভবা মা-ও নিরাপদ৷ কারণ ট্রেনেই সব ব্যবস্থা রয়েছে মাত্র ১০০ টাকাতেই৷

জানা গেছে, এখনও পর্যন্ত ১৬৮টি ট্রেনে এই মেডিক্যাল বক্স দেয়া হয়েছে। চিহ্নিত করা হয়েছে প্রতিটি জোনের বেশকিছু প্রিমিয়াম ও সেমি প্রিমিয়াম ট্রেনও। অল্প দিনের মধ্যেই তাতেও এই অত্যাধুনিক মেডিক্যাল বক্স দিয়ে দেয়া হবে।

দেশের প্রতিটি জোনেই এ ব্যবস্থা কার্যকর করতে চায় রেল৷ রেল কর্তাদের একাংশ মনে করছেন, ফার্স্ট এইড ব্যবস্থার আধুনিকীকরণ ও দামি ওষুধপত্রের জন্যই এই ‘কনসালটেশন ফি’ ২০ টাকা থেকে বাড়িয়ে ১০০ টাকা করা হয়েছে।

তবে দক্ষিণ-পূর্ব রেলের মুখ্য জনসংযোগ আধিকারিক সঞ্জয় ঘোষের কথায়, ফার্স্ট এইডের জন্য ‘কনসালটেশন ফি’ নেয়ার নিয়ম আছে ঠিকই কিন্তু রেলের মেডিক্যাল অফিসাররা সাধারণত সেই টাকা যাত্রীদের থেকে চাইতেন না। তবে যাত্রীরা নিজে থেকে দিলে তারা অবশ্যই নেবেন।
ফেমাসনিউজ২৪/এফএম/এমএম