logo

সোমবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮ | ৯ আশ্বিন, ১৪২৫

header-ad

হিলি শূন্য রেখায় ২ বাংলার মিলনমেলা

শাহ্ আলম মাহী, দিনাজপুর | আপডেট: ২২ ফেব্রুয়ারি ২০১৮

মহান শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে দিনাজপুরের হিলি’র শূন্য রেখায় হয়ে গেল দু’বাংলার অপূর্ব সেতুবন্ধন-মিলনমেলা।

বুধবার বিকেলে দিনাজপুরের হিলি স্থলবন্দরের শূন্যরেখায় অনুষ্ঠিত হয় দুই বাংলার (ভারত ও বাংলাদেশ) উদ্যোগে মহান শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে অনুষ্ঠিত হয আলোচনাসভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। এই অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ ও ভারতের বিভিন্ন সাংস্কৃতিক সংগঠনগুলো অংশ নেয়।

আবেগাপ্লত কণ্ঠে প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত ওপার বাংলা ভারতের পশ্চিমবঙ্গের সাংস্কৃতিক সংগঠন বালুরঘাট ছন্দমের প্রতিনিধি শুভেন্দু দাস জানালেন, বাংলাদেশ ছাড়া পৃথিবীতে এমন কোনো দেশ নেই, যারা ভাষার জন্য প্রাণ দিয়েছে। যে দেশের মানুষ ভাষার জন্য প্রাণ দিয়েছে, সেই বাংলাদেশের সঙ্গে একসঙ্গে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উদযাপন করছি। এর চেয়ে আমাদের কাছে গর্বের বিষয় আর নেই।

ভারত থেকে অংশ নিতে আসা বালুরঘাট ছন্দম-এর প্রতিনিধি শুভেন্দু দাস আরও জানান, এটি আমাদের জন্য একটি আবেগময় দিন। বাংলাদেশের মাটিতে যখন পা রাখি, তখনই গা শিউরে উঠে। কারণ এই দেশের মানুষ যে ভাষার জন্য প্রাণ দিয়েছে। তা যে আমারই মায়ের ভাষা বাংলার।

ভারতের পশ্চিমবঙ্গের ‘বালুরঘাট ছন্দম’ সাংস্কৃতিক সংগঠনের সংস্কৃতিকর্মী একতা ভট্টাচার্য ও সন্দ্বীপ ভট্টাচার্য আবেগাপ্লুত কণ্ঠে জানালেন, আমাদের ভাষা এক, ভালোবাসা এক, মানবতা এক, সাংস্কৃতিক এক, তাই আমরা আজ এই অমর একুশে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে কাঁটাতারের বেড়া উপেক্ষা করে সাংস্কৃতিক মেলবন্ধনে একত্র হয়েছি।

ভারতে পশ্চিমবঙ্গের বালুরঘাট-হিলি-বাংলাদেশ-মেঘালায় করিডোর কমিটির আহ্বায়ক নবকুমার দাস বলেন, কাঁটাতারের বেড়া আমাদের দু’বাংলার ভূখণ্ডকে আলাদা করলেও, আমাদের সাংস্কৃতিক মেলবন্ধনকে আলাদা করতে পারেনি। আর পারেনি বলেই মায়ের ভাষার দিনটি আমরা একসঙ্গে পালন করছি।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রী মোস্তাফিজুর রহমান। বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন বিজিবি-২০ ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লে. কর্নেল রাশেদ মো. আনিসুল হক, হাকিমপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আলহাজ ইমদাদুল হক চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রহমান লিটন, হিলি আমদানি ও রফতানি গ্রুপের সভাপতি হারুন-উর রশিদ হারুন, ভারতে পশ্চিমবঙ্গের বালুরঘাট-হিলি-বাংলাদেশ-মেঘালায় করিডোর কমিটির আহ্বায়ক নবকুমার দাস ও পশ্চিমবঙ্গের দক্ষিণ দিনাজপুরের উজ্জীবন সোসাইটির সম্পাদক সূরজ দাস।

অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ডের জাহিদুল ইসলাম জাহিদ। সভাপতিত্ব করেন মুক্তিযোদ্ধা সংসদের হাকিমপুর উপজেলা কমান্ডার মো. লিয়াকত আলী।

এর আগে বাংলাদেশ ও ভারতের অতিথিরা হিলি স্থলবন্দরের শূন্য রেখায় স্থাপিত অস্থায়ী শহীদ মিনারে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ করেন এবং আনুষ্ঠানিকভাবে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করা হয়।

ফেমাসনিউজ২৪/আরএ/আরইউ