logo

শুক্রবার, ১৪ ডিসেম্বর ২০১৮ | ২৯ অগ্রহায়ণ, ১৪২৫

header-ad

৪৫ বছরেই চূড়ান্ত থাবা!

বিবিধ ডেস্ক | আপডেট: ০৯ এপ্রিল ২০১৮

বার্ধক্যের বয়স ৬০ নয়, ৪৫ বয়স থেকেই চূড়ান্ত থাবা বলে গবেষণায় ওঠে এসেছে। এ ব্যাপারে একটি সমীক্ষা অভিযান শুরু করছে ভারতের মুম্বাইয়ের ইন্টারন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অফ পপুলেশন সায়েন্সেস (‌আইআইপিএস)‌।

সমীক্ষার নাম দেয়া হয়েছে লঙ্গিচিউডিনাল এজিং স্টাডি অফ ইন্ডিয়া (‌লসি)‌। পশ্চিমবঙ্গ, আন্দামান ও নিকোবর দ্বীপপুঞ্জ, ত্রিপুরা ও অসমে এ ব্যাপারে কাজ হবে। বয়স এবং তার প্রভাব নিয়ে গবেষণা এত দিন পর্যন্ত ষাটোর্ধ্ব ব্যক্তিদের ওপরে করা হলেও, এই প্রথম ৪৫ এবং তদূর্ধ্ব ব্যক্তিদের ওপর এ ধরনের গবেষণা হবে। ‌

আইআইপিএসের হয়ে চারটি রাজ্যে এর দায়িত্বে আছে ইকনমিক ইনফর্মেশন টেকনোলজি (‌ইআইটি)‌। সমীক্ষাটির সহায়তায় রয়েছে ভারত সরকারের মিনিস্ট্রি অফ হেল্‌থ অ্যান্ড ফ্যামিলি ওয়েলফেয়ার, ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অন এজিং, ন্যাশনাল ইনস্টিটিউটস অফ হেল্‌থ, ইউএসএ, দ্য ইউনাইটেড নেশন্‌স পপুলেশন ফান্ড, ইন্ডিয়া।

ইআইটি কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, আইআইপিএস গবেষণা করে দেখিয়েছে, বয়সজনিত সমস্যা এবং সেই অনুযায়ী মানসিক সমস্যা শুরু হয় ৪৫ বছর থেকে, যা ভারত সরকারও সিলমোহর দিয়েছে।

রাজ্যে শহর এবং গ্রামে মোট ৩০০০ বাড়িকে চিহ্নিত করে সেখান থেকে ৪৫ বছর বা তার বেশি বয়সী একজনকে বেছে নেয়া হবে। ২৫ বছর পর্যন্ত প্রতি দু’‌বছর অন্তর সেই ব্যক্তির সঙ্গে সাক্ষাৎ নেয়া হবে।

বিভিন্ন অসুখ যেমন খতিয়ে দেখা হবে, তেমনি দেখা হবে হেল্‌থকেয়ারের বিভিন্ন খরচের দিকটি। এর সঙ্গে থাকবে ওই ব্যক্তির সামাজিক ও পরিবারের মধ্যে কতটা যোগাযোগ, তার অর্থনৈতিক অবস্থা-যেমন তার আয়, খরচ, চাকরি, অবসর এবং পেনশনের দিকটি।

দেখা হবে এ ব্যক্তিরা কীভাবে সময় কাটাচ্ছেন, আশপাশের থেকে কী আশা করছেন এবং নিজেদের ভেতরে তাদের সামাজিক যোগাযোগ কতটা। ইআইটি জানিয়েছে, এ মুহূর্তে ভারতে ১০ কোটি ৪০ লাখ বয়স্ক নাগরিক আছেন, যার ৭১ শতাংশ থাকছেন গ্রামীণ এলাকায়।

২০৫০ সালে এ সংখ্যাটা হবে ২৯ কোটি ৬৬ লাখ। রেজিস্ট্রার জেনারেল অফ ইন্ডিয়া (‌আরজিআই)‌ জানিয়েছেন, সমগ্র জনসংখ্যার নিরিখে ২০০১ সালে ৬০ এবং ষাটোর্ধ্ব ব্যক্তিরা ছিলেন ৬.‌৯ শতাংশ, সেটাই ২০২৬ সালে গিয়ে দাঁড়াবে ১২.‌৪ শতাংশ।

রাজ্যের সমীক্ষায় জানা গেছে, ৬০ এবং ষাটোর্ধ্ব ব্যক্তিদের সংখ্যাবৃদ্ধি নিয়ে টেকনিক্যাল গ্রুপ অফ পপুলেশন প্রোজেকশন্‌স এবং ন্যাশনাল কমিশন অন পপুলেশন্‌স ইঙ্গিত দিয়েছে, ২০০১ সাল থেকে ২০২৬ সালের মধ্যে যেখানে সমগ্র জনসংখ্যার ২৬ শতাংশ বৃদ্ধি পাবে, সেখানে শুধু ষাট এবং ষাটোর্ধ্ব ব্যক্তিদের সংখ্যাই ১৭০ শতাংশ বৃদ্ধি পাবে। রাজ্যে ১৩টি জেলাকে বাছাই করে প্রাথমিক কাজ শুরু করেছে ইআইটি।‌‌‌‌‌‌‌
ফেমাসনিউজ২৪/এফএম/এমএম