logo

বৃহস্পতিবার, ১৫ নভেম্বর ২০১৮ | ১ অগ্রাহায়ণ, ১৪২৫

header-ad

সাধারণে অনন্য আ.লীগ নেতা রাসেল

মো. রিয়াল উদ্দিন | আপডেট: ১৭ জুলাই ২০১৮

 

সমাজের সাধারণ এবং অসহায় মানুষদের কাছে অনন্য এক নাম জোবায়দুল হক রাসেল। পটুয়াখালী-২ বাউফলের চা দোকানী, দিনমজুর, মুচি, জেলে, কৃষকসহ সকলের কাছেই চিরচেনা মানুষ এই রাসেল।

বাউফলের এ আওয়ামী লীগ নেতা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে সাধারণ, অসহায় মানুষের সাথে গড়ে তুলেছেন আত্মিক সম্পর্ক। বাউফলের প্রতিটি মানুষও রাসেলকে আপন করে নিয়েছেন।

বাউফলের পোড় খাওয়া বৃদ্ধ, ঘামে ভেজা কৃষক, মজুর, শ্রমিক নির্বিশেষে সকলেই রাসেলকে বুকে জড়িয়ে নেন আত্মিকবন্ধনে আবদ্ধ করে। এলাকার সকল মানুষ রাসেলকে চেনে তাদের আপনজন হিসেবে। রাসেলও এ আস্থার জায়গাকে অটুট রেখেছেন। তার জীবনের প্রতিটি মুহূর্তকে জনগণের সেবায় নিয়োজিত রেখেছেন। এমন কোন অসহায় মানুষ খুঁজে পাওয়া যাবে না যিনি এ মানবপ্রেমী মানুষটির কাছ থেকে খালি হাতে ফিরেছেন। অপার মমতা ও সৌহার্দ্য
নিয়ে যে কোনো মানুষের দুর্দিনে তিনি বাড়িয়ে দেন মানবতার হাত।

বাউফলের তরুণদের কাছে এ নেতা যেমন জনপ্রিয় এবং তেমনি সর্বস্তরের মানুষের কাছে আস্থাভাজন এবং আপনজন। বাউফলের প্রতিটি জনগণ তাকে আপন করে নিয়েছেন।

বিচারপতির এ কে এম জহিরুল হকের এই সন্তানকে সমাজের সকল স্তরের মানুষ আপন করে নিয়েছেন। ধনী-গরিবসহ এলাকার সকল সাধারণ মানুষের কাছে তিনি অত্যন্ত জনপ্রিয়।

সবার বিপদে-আপদে, নিত্য প্রয়োজনে সহযোগীতার হাত বাড়ান, নিরহংকারী, পরোপকারী রাসেল। সদা হাসিমুখে এলাকায় দীর্ঘদিন ধরে উন্নয়নমূলক ও নানা ইতিবাচক কাজ করে গণমানুষের কাছে হয়েছেন ব্যাপক সমাদৃত। নিজেকে তৈরি করে নিয়েছেন মানবিকতার মানসপুত্র হিসেবে। এলাকাবাসীও মনপ্রাণ উজাড় করে আপন করে নিয়েছেন রাসেলকে।

নিজের আপনজনের মত কোন গরীব মায়ের ঘরের মেঝেতে বসে খাবারের আবদার করেছেন, কখনো চায়ের দোকানে চা খেতে খেতে এলাকার সকলের সঙ্গে আনন্দে মেতে উঠেছেন, কৃষকের কষ্ট বুঝতে কেটেছেন ধান, মুরব্বিদের দোয়া নিতে ছুটেছেন ঘরের দুয়ারে। রাসেলের জয়কে নিজেদের জয় মনে করেন বাউফলবাসী। এ আসনের প্রত্যেকটি মানুষ এলাকার উন্নয়নে রাসেলের প্রতি আস্হা রাখেন। তাই, আগামী জাতীয় নির্বাচনে পটুয়াখালী-২ বাউফল আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়নে রাসেলকে সংসদে জনপ্রতিনিধিত্ব করতে দেখতে চায়।

যেকোনো রাজনৈতিক-অরাজনৈতিক মঞ্চ থেকে শুরু করে উৎসব, পূজা-পার্বণ, সমাবেশ-মাহফিল, খেলাধুলায় রাসেলকে তাদের মধ্যমণি করেই রাখেন। পটুয়াখালীবাসীর অফুরন্ত দোয়া-ভালোবাসায়, গণমানুষের একজন সাধারণ প্রতিনিধি হয়ে সেবার পরমব্রত নিয়ে এগিয়ে চলেছেন জোবায়দুল হক রাসেল।

বাউফলের মনোয়ারা বিবি নামের একজন বৃদ্ধ রাসেল সম্পর্কে বলেন, রাসেল আমাদের সন্তান। আমাদের সামনেই বড় হয়েছে। ছোটবেলা থেকেই অসহায় মানুষের পাশে থেকে সহযোগীতা করেছে। তার কাছে যা চেয়েছি সবই পেয়েছি।

মমিন মাঝি নামের একজন জেলে বলেন, অসহায় মানুষদের আস্থার জায়গা রাসেল ভাই। কেউ আমাদের খোঁজ না নিলেও রাসেল ভাই সব সময় আমাদের কাছে এসে আপনজনের মত খোঁজ খবর রাখেন। আমাদের ছেলে-মেয়েদের পড়াশুনার খরচ দেন। আমরা গরীব মানুষ কিন্তু রাসেলের কাছে আমরা আপন।

জোবায়দুল হক রাসেল বলেন, আমি বাউফলের ধুলি মাটিতে বড় হয়েছি। বাউফলের প্রতিটি মানুষ আমার আপনজন। আমি তাদের সন্তান। আমি সব সময় তাদের পাশে থেকে বড় ভাই, আপনজন হয়ে সেবা করতে চাই। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে আমি তাদের পাশে সব সময় ছিলাম, আছি এবং থাকবো।

ফেমাসনিউজ২৪.কম/জেডআর/এমআরইউ