logo

সোমবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৮ | ৫ অগ্রহায়ণ, ১৪২৫

header-ad

জাতীয় ঐক্যের বৈঠক বাতিল, ২০ দলের স্থগিত

ফেমাসনিউজ ডেস্ক | আপডেট: ১৩ অক্টোবর ২০১৮

জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়ার বৈঠক বাতিল এবং বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটের আজকের বৈঠক স্থগিত করা হয়েছে। ড. কামাল হোসেনের বাসায় বৃহত্তর ঐক্যের শনিবারের পূর্বনির্ধারিত বৈঠকটি বাতিল করা হয়েছে। সংশয় দেখা দিয়েছে বিএনপি, যুক্তফ্রন্ট ও জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়ার বৃহত্তর ঐক্য নিয়ে। অবশ্য আজ বিকেলে ড. কামাল হোসেনের সঙ্গে কথা বলতে যুক্তফ্রন্ট চেয়ারম্যান ড. বদরুদ্দোজা চৌধুরী (বি.চৌধুরী) তার কাছে যাচ্ছেন।

বৈঠক বাতিলের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন যুক্তফ্রন্ট নেতা মাহমুদুর রহমান মান্না ও মাহী বি. চৌধুরী।

বি. চৌধুরীর ছেলে ও বিকল্পধারা বাংলাদেশের মহাসচিব মাহী বি. চৌধুরী বলেন, বিকেল ৩টার দিকে তারা বেইলি রোডে কামাল হোসেনের বাসায় যাবেন এবং ৪টায় সেখান থেকে বেরিয়ে সংবাদমাধ্যমের সঙ্গে কথা বলবেন।

এদিকে যুক্তফ্রন্টের অন্যতম নেতা মাহমুদুর রহমান মান্না বলেন, ১৩ অক্টোবর শনিবার দুপুরে গণফোরামের সেক্রেটারি মোস্তফা মহসীন মন্টু তাকে ফোন করে জানান, ড. কামাল হোসেন বৈঠক বাতিল করেছেন। কিন্তু কেন বৈঠক বাতিল করেছেন, তার কারণ জানাননি।

এদিকে জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়ার আহবায়ক ও গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেন বলেন, সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডে জড়িত এমন কোনো দল বা ব্যক্তির সঙ্গে ঐক্য চাই না।

১৩ অক্টোবর শনিবার সকালে একটি বেসরকারি টিভি চ্যানেলকে দেয়া সাক্ষাৎকারে ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, যারা এ ধরনের ঘটনা ঘটিয়েছে সেই ব্যক্তি অথবা দলের মধ্যে এরকম কাউকে যদি চিহ্নিত করা হয়ে থাকে, তাহলে তাদের সঙ্গে ঐক্য হতে পারে না।

প্রবীণ রাজনীতিবিদ ড. কামাল বলেন, তিনি ২১ আগস্টে গ্রেনেড হামলা তদন্তে একটি কমিটির প্রধান ছিলেন। দল হিসেবে বিএনপির সঙ্গে ঐক্য হলেও সেটির দলীয় প্রধানকে মানেন না জাতীয় ঐক্যের এ নেতা।

তিনি বলেন, ঐক্য মানে জনগণের ঐক্য। তারেক রহমানের সঙ্গে কোনো সম্পর্ক আমার তো নেই। সে লন্ডনে বসে আছে, কি করছে না করছে। বিএনপির সঙ্গে আমরা তো এরকম আঁতাত করছি না। এখানে সন্ত্রাসকে কোনোভাবেই প্রশ্রয় দেয়ার প্রশ্ন ওঠে না।

এ বিষয়ে ঐক্য প্রক্রিয়ার সঙ্গে যুক্ত বিএনপি স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন গণমাধ্যমকে বলেন, বৈঠক ছিল কিনা, বাতিল হয়েছে কিনা জানি না।

এদিকে যুক্তফ্রন্টের নেতারা মনে করছেন, বিকল্পধারাকে বাদ দিয়েই শেষ পর্যন্ত কামাল হোসেন, আ স ম রব ও মাহমুদুর রহমান মান্নাকে বিএনপির সঙ্গে দেখা যেতে পারে। এর আগে ১১ অক্টোবর বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা ৭টায় রাজধানীর বেইলি রোডে ড. কামাল হোসেনের বাসায় ঐক্য প্রক্রিয়ার বৈঠক হওয়ার কথা থাকলেও তা বাতিল করা হয়। ওইদিন রাতে আ স ম রবের বাসায় বৈঠকের কথা থাকলেও তাও বাতিল হয়।

এরপর শুক্রবার সাংবাদিকদের সামনে মান্না বলেছিলেন, আগামীকাল (আজ শনিবার) পরবর্তী বৈঠকে জাতীয় ঐক্যের খসড়া চূড়ান্ত করে ঘোষণা দেয়া হবে।

ঐক্য প্রক্রিয়ার কয়েকজন নেতা বলছেন, বৃহত্তর জাতীয় ঐক্যের পক্ষ থেকে যেভাবে ৭ দাবি ও ১১ লক্ষ্য নির্ধারণ করা হয়েছে, তাতে বাধ সেধেছেন বিকল্পধারার সভাপতি বি. চৌধুরী। গতকাল শুক্রবারের বৈঠকে দলটির যুগ্ম মহাসচিব মাহী বি. চৌধুরীও আপত্তি তোলেন। হাতে সময় খুব কম। এ পরিস্থিতি চলতে থাকলে শেষ পর্যন্ত বিকল্প ধারাকে বাদ দিয়েই হয়তো ঐক্য হতে পারে।

জানা গেছে, আজ শনিবার দুপুরের আগ পর্যন্ত দলগুলোর প্রত্যাশা ছিল, বিকেলের বৈঠকে দাবি-লক্ষ্য চূড়ান্তকরণ আর নির্বাচনকে সামনে রেখে কর্মসূচি নির্ধারণ হতে পারে। কথা ছিল বি. চৌধুরী ও ড. কামাল হোসেন আগে বসবেন। ৫টার দিকে ঐক্যের নেতারা সবাই মিলে বসে সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত করে গণমাধ্যমে ঘোষণা দেবেন। এ দুই নেতা বৈঠকে বসলেও বৃহত্তর ঐক্যের বৈঠকটি বাতিল করা হয়।

এদিকে বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটের আজ শনিবারের সন্ধ্যার বৈঠক স্থগিত করা হয়েছে। বৈঠক স্থগিত হওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন জোটের শরিক বাংলাদেশ ন্যাপের মহাসচিব গোলাম মোস্তফা ভুঁইয়া।

বৈঠক স্থগিতের বিষয়ে বিএনপির গণমাধ্যম শাখার কর্মকর্তা শায়রুল কবীর বলেন, অনিবার্যকারণবশত আজকের বৈঠক স্থগিত করা হয়েছে। পরবর্তী সময়ে এ বৈঠকের নতুন সময়সূচি ঠিক করা হবে।

এর আগে গতকাল শুক্রবার দেশের চলমান রাজনৈতিক পরিস্থিতি নিয়ে বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটের বৈঠক ডাকা হয়। আজ শনিবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার গুলশানের রাজনৈতিক কার্যালয়ে বৈঠকটি অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল।
ফেমাসনিউজ২৪/এফএম/এমএম