logo

বুধবার, ২১ নভেম্বর ২০১৮ | ৭ অগ্রহায়ণ, ১৪২৫

header-ad

বরিশাল-২ আসনে কে হচ্ছেন আ.লীগ প্রার্থী?

বিশেষ প্রতিনিধি | আপডেট: ১৫ অক্টোবর ২০১৮

 

বরিশাল জেলার ৬টি সংসদীয় আসনের মধ্যে বরিশাল-১ (গৌরনদী- আগৈলঝাড়া) এবং বরিশাল-২ (বানারীপাড়া- উজিরপুর) আওয়ামী লীগের শক্তিশালী ঘাটি হিসেবে পরিচিত।

জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আসন দু’টিকে সবসময়ই বিশেষ গুরুত্ব দেয় আওয়ামী লীগ। বরিশাল-১ আসনে বতর্মান সংসদ সদস্য জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আবুল হাসনাত আবদুল্লাহ মনোনয়ন অনেকটা নিশ্চিত থাকায় সবার দৃষ্টি এখন বরিশাল-২ আসনের দিকে।

বর্তমানে বরিশাল-২ আসনের সংসদ সদস্য তালুকদার মোহাম্মদ ইউনুস জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক। কিন্তু বানারীপাড়া ও উজিরপুর উপজেলা নিয়ে গঠিত এ আসনের তিনি ভোটার নন। তার বাড়ি গৌরনদী উপজেলায়। তিনি এলাকার লোক না হওয়ায় দীর্ঘদিন ধরেই দলীয় নেতা কর্মীদের ক্ষোভ ও অসন্তোষ বিরাজ করছে। তালুকদার মোহাম্মদ ইউনুস এলাকায় পরিচিত ভাল মানুষ হিসেবে। তবে তৃণমূল নেতাকর্মীদের সঙ্গে তার যোগাযোগ কম। তবে এবারেও তিনি দলীয় মনোনয়ন চাইবেন বলে জানা গেছে।

ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি শাহে আলম যথারীতি এবারেও মনোনয়ন চাইবেন বলে জানা গেছে। বেশ কিছুদিন ধরে তিনি এলাকার গনসংযোগ করে চলছেন। তবে স্থানীয় নেতাকর্মীরা বলছেন, তিনি প্রতিবারই মনোনয়ন চান। না পেয়ে সাড়ে চার বছর ঢাকায় থাকেন। এলাকায় আসেন নির্বাচনের ৬ মাস আগে। সজ্জন হিসেবে পরিচিত হলেও সাধারণ মানুষের সঙ্গে সাবেক এই ছাত্রনেতার অদৃশ্য দূরত্ব রয়েছে।

নির্ভরযোগ্য সূত্রে জানা যায়, বানারীপাড়া উপজেলা চেয়ারম্যান গোলাম ফারুক ও পৌরমেয়র সুভাষ চন্দ্র শীলও মনোনয়ন প্রত্যাশী। তবে চেয়ারম্যান কিংবা মেয়রের পদ থেকে পদত্যাগ করে তারা মনোনয়ন ফরম কিনবেন কি না; তা নিয়ে সংশয় রয়েছে।

দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে দলীয় মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছিলেন সিনিয়র সাংবাদিক ও আওয়ামী লীগের দপ্তর বিষয়ক উপ-কমিটির সদস্য সুজন হালদার। সেবার মনোনয়ন পাননি। কিন্তু দলীয় প্রার্থীর হয়ে কাজ করেছেন আন্তরিকভাবে।

মৃত্যু ঝুঁকির মধ্যে থেকেও যুদ্ধাপরাধীদের বিচারে দেশব্যাপী জনমত সৃষ্টি, বিএনপি জামায়াতের ষড়যন্ত্র ও অপতৎপরতা নিয়ে প্রতিবেদন ও প্রমাণ্য চিত্র নির্মাণসহ সরকারের উন্নয়ন কর্মকান্ড জাতির সামনে তুলে ধরার গুরুত্বপূর্ণ অবদান থাকয় সুজন হালদার দলীয় হাই কমান্ডের সু-দৃষ্টিতে আছেন বলে জানা যায়। তাছাড়া এলাকায় তরুণ প্রজন্মসহ সাধারণ মানুষের মধ্যে তার গ্রহণযোগ্যতা ও জনপ্রিয়তা রয়েছে। তবে তিনি এবার মনোনয়ন চাইবেন কি না; তা এখনো স্পষ্ট নয়।

এছাড়াও সাবেক পাট প্রতিমন্ত্রী এ কে ফায়জুল হকের ছেলে একে ফাইয়াজুল হক রাজুও মনোনয়ন চাইবেন বলে জানা গেছে। এ আসনে সমমনা অন্যান্য দলের শক্তিশালী কোন প্রার্থী না থাকায় জোট হলেও আওয়ামী লীগের প্রার্থীই মহাজোটের প্রার্থী হবেন এটা নিশ্চিত। 

আওয়ামী লীগ নেতাকর্মী ও সমর্থকদের চোখ কেন্দ্রের দিকে। তবে তৃণমূল কর্মীদের প্রত্যাশা কর্মীবান্ধব যোগ্য প্রার্থী। এখন চলছে শেষ মুহূর্তের হিসেব নিকেশ। বরিশাল-২ আসনের আওয়ামী লীগের মনোনয়ন কে পাচ্ছেন- তালুকদার ইউনুস, শাহে আলম নাকি সুজন হালদার।

অপরদিকে বিএনপি নির্বাচনে অংশ নিলে বরিশাল জেলা বিএনপির যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক সরফুদ্দিন আহমেদ সান্টু প্রার্থী হবেন বলে জানা গেছে।
ফেমাসনিউজ২৪/কেআর/এস