logo

বুধবার, ১২ ডিসেম্বর ২০১৮ | ২৮ অগ্রহায়ণ, ১৪২৫

header-ad

টিকলেন না মির্জা আব্বাস, আপিলে বাদ মীর নাসির

রাজনীতি ডেস্ক | আপডেট: ০৬ ডিসেম্বর ২০১৮

বিএনপি নেতা মির্জা আব্বাসের মনোনয়নপত্র গ্রহণ করে আগামী ২৪ ঘণ্টার মধ্যে যাচাই-বাছাইয়ের নির্দেশ দিলেও টিকেননি তিনি। প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বাধীন ছয় সদস্যের আপিল বিভাগের বেঞ্চ গত মঙ্গলবার মির্জা আব্বাসের মনোনয়নপত্র রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছে পাঠানোর নির্দেশ দেন। একইসঙ্গে রিটার্নিং কর্মকর্তাকে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে তার মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাই সম্পন্ন করতে আদেশ দেয়া হয়। আজ সেই আপিল আবেদনের ওপর শুনানি শেষে হাইকোর্টের আদেশ বহাল রাখেন আপিল বিভাগ।

ঢাকা-৯ আসনে বিএনপির প্রার্থী মির্জা আব্বাসের মনোনয়নপত্র হাইকোর্টের আদেশে যাচাই-বাছাই শেষে বাতিল করেন রিটার্নিং অফিসার। ৬ ডিসেম্বর বৃহস্পতিবার দুপুরে তাকে অযোগ্য ঘোষণা করা হয়।

গত ২৮ নভেম্বর নির্ধারিত সময়ের পর ঢাকা-৯ আসনে মির্জা আব্বাসের পক্ষে তার সমর্থকরা মনোনয়নপত্র জমা দিতে যান। কিন্তু তা নিতে জমা নিতে অস্বীকৃতি জানান রিটার্নিং অফিসারের কার্যালয়ের কর্মকর্তারা।

সমর্থকদের অভিযোগ, মির্জা আব্বাসের ছবি দেখেই শেষদিনে মনোনয়নপত্র জমা নিতে গড়িমসি করেন তারা। তবে নির্বাচনী কর্মকর্তারা দাবি করেন, নির্ধারিত সময় শেষ হওয়ার পর মনোনয়নপত্র জমা দিতে আসায় তা জমা নেয়া সম্ভব হয়নি।

এদিকে আপিলেও বিএনপি প্রার্থী মীর মোহাম্মদ নাসিরের মনোনয়ন অবৈধ ঘোষণা করা হয়েছে। আজ আপিল শুনানির পর মনোনয়ন বাতিলের রায় দেয় কমিশন।

৬৫ নম্বর সিরিয়ালে থাকা চট্টগ্রাম-৫ আসনের এ প্রার্থীর আপিল শুনানি শুরু হয় দুপুরে। শুরুতে আইনজীবী মাহবুব উদ্দিন খোকন যুক্তি উপস্থাপন করেন। এর মধ্যে হঠাৎ ব্যারিস্টার তানজীব উল আলম এতে বাধ সাধেন। পাল্টা যুক্তি উপস্থাপন শুরু করেন তিনি। এ সময় কমিশনারদের পক্ষ থেকে বলা হয়, আপনি কি আপিলের বিপক্ষে কথা বলার জন্য আবেদন করেছেন? এতে সদুত্তর দিতে পারেননি তিনি।

পরে মাহবুব উদ্দিন খোকন ফের যুক্তি উপস্থাপন শুরু করলে আবারও ব্যারিস্টার তানজীব উল আলম ওঠে দাঁড়িয়ে কথা বলা শুরু করেন। এ সময় মাহবুব উদ্দিন খোকন আপিলের বিচারকদের উদ্দেশ্যে বলেন, স্যার উনার আচরণ দেখেছেন? একেবারে সরকারি দলের আচরণের মতো। মাঠেও আমরা এমন আচরণ পাই।

এরপর আপিল বিভাগ আপিলের রায় পরে ঘোষণার জন্য স্থগিত করেন। দুপুরের বিরতির পর শুনানি শুরু হলে মীর নাছিরের প্রার্থিতা বাতিল বলে রায় দেয়া হয়। এ বিষয়ে মীর নাছির বলেন, এ ব্যাপারে উচ্চ আদালতে আপিল করবো।
ফেমাসনিউজ২৪/এফএম/এমএম