logo

রবিবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২০ | ১২ আশ্বিন, ১৪২৭

header-ad
কল্পকথা

চৈতী রাতে

সৈয়দ এরশাদুল হক মিলন | আপডেট: ২২ মে ২০১৪

চৈত্রের সন্ধ্যাটা শেষ হলো মাত্র। আড্ডা ভেঙে বেরিয়ে আসে সবাই। বাতাসের মন কেমন করা স্পর্শ। কিছু না ভেবেই প্রস্তাব দিই এগিয়ে দেওয়ার। অভ্যেস মতো মাথা ঝাঁকিয়ে রাজি হয়। একটা রিকশা ভাড়া করি। উঠে বসি দু'জনে। যানজনহীন রাজপথে রিকশা চলতে থাকে। চৈত্রের বাতাস আমাকে মাতাল করে দেয়।

পাশে যে জন বসে আসে, তার দিকে তাকাই। আড়চোখে। নির্বিকার নাকি ভাবছে কিছু? আমারই মতো? নাকি অন্যকিছু? আমি মোহিত হতে থাকি। এবং মোহিত হতে থাকি। এর আগেও কোনো নারীর সাথে পাশাপাশি বসে রিকশাভ্রমণ হয়েছে আমার। হয়েছে অন্য কারও সাথে। কিন্তু এমন অনুভূতি আমার এই প্রথম। বুঝতে পারি না কী করবো। প্রায় পঁয়ত্রিশ মিনিটের এই পথচলা যেন আমার জীবনের সবচেয়ে রোমান্টিক পথচলা হয়ে ওঠে।

চৈত্রের এমন রাতে এমন পথচলায় আমি আপ্লুত হই। জীবনে প্রথম বসন্তকে অনুভব করি। দেহে-মনে সর্বত্র। আমার ভেতরের আমিটা যেন হুট করেই গান গেয়ে ওঠে।