logo

শনিবার, ২০ অক্টোবর ২০১৮ | ৪ কার্তিক, ১৪২৫

header-ad

মহানবী (সা.) এর বিনয়

ফেমাসনিউজ ডেস্ক | আপডেট: ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৮

মুসলিম জাহানের নেতা হওয়ার পরও মহানবী (সা.) সবার সঙ্গে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে চলতেন। বদরের যুদ্ধে যাওয়ার সময় মুসলিম বাহিনীর সহায়-সম্পদের অবস্থা খুবই করুণ ছিল।

উট ছিল প্রায় ৭৫টি, আর যোদ্ধা ৩১৩ বা তার কিছু কম-বেশি। কাজেই পথ চলতে তিনজন মানুষকে পালা করে চড়তে হচ্ছে একটি উটে। আলী ইবনে (রা.) আর আবু লুবাবা (রা.) পড়লেন এক অদ্ভুত পরিস্থিতিতে।

তাদের উট শেয়ার করতে হবে স্বয়ং মহানবীর (সা.) এর সঙ্গে! মহানবী (সা.) একে তো মহান আল্লাহর সর্বশেষ ও সর্বশ্রেষ্ঠ নবী। তার ওপর বয়সেও তাদের বড়। স্বাভাবিকভাবেই তারা রাসূলুল্লাহ (সা.)-কে বললেন, আমরা দুজনেই তো বয়সে অনেক ছোট। আমরা হেঁটেই চলে যেতে পারব। আপনি উটে চড়ুন।

রাসূলুল্লাহর (সা.) বয়স তখন প্রায় ৫৪ বছর। তার ওপর তিনি সেনাবাহিনীর প্রধান। মদিনাকে যদি একটা রাষ্ট্র হিসেবে কল্পনা করি, তাহলে তিনি সেই রাষ্ট্রেরও প্রধান। এই অবস্থায় নিজের জন্য একটি উট কিন্তু তার এমনিতেই পাওনা।

তিনি যদি একাই একটি উটে চড়েন, কেউ সেটা অস্বাভাবিক মনে করবে না। কেউ কিছু বলবেও না। কিন্তু রাসূলুল্লাহ (সা.) তা করেননি। তিনি তো আমার বা আপনার মতো সাধারণ কেউ নন। তিনি তো অন্যের কষ্ট লাঘব করার কোনো সুযোগকে এক মুহূর্তের জন্যও ছাড়বেন না। তিনি তো আরাম করার মানুষ নন। তিনি তো বিনয়ের আঁধার।

ফেমাসনিউজ২৪/আরআই/আরবি