logo

বুধবার, ২৮ জুন ২০১৭ | ১৪ আষাঢ়, ১৪২৪

header-ad
header-ad

একাই নিলেন ১০ উইকেট!

স্পোর্টস ডেস্ক | আপডেট: ১১ জানুয়ারি ২০১৭

এক ইনিংসে দশ উইকেট নেওয়ার ঘটনা যুগে নয়, অর্ধ শতাব্দীতে একটি ঘটে। ১৯৫৬ সালে দশ উইকেটসহ দুই ইনিংসে ১৯ উইকেট নিয়ে বিশ্ব রেকর্ড গড়েছিলেন ইংল্যান্ডের অফব্রেক বোলার জিম লেকার। এরপর ১৯৯৯ সালে ভারতের বর্তমান কোচ অনিল কুম্বলে এক ইনিংসে ১০ উইকেট নিয়ে জিম লেকারকে আবারো আলোচনায় নিয়ে আসেন।

কুম্বলের ১০ উইকেট শিকারের ১৭ বছর পর পাকিস্তানের করাচির মোহাম্মদ আলী নিয়েছেন এক ইনিংসে ১০ উইকেট। সেটা অবশ্য আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে নয়, ঘরোয়া ক্রিকেটে। কিন্তু দুর্লভ এই কীর্তি গড়ে মোহাম্মদ আলী হইচই ফেলে দিয়েছেন। গলি থেকে উঠে আসা জেলা অনূর্ধ্ব-১৯ দলের খেলোয়াড় আলীএখন খবরের শিরোনামে। ভারত ও পাকিস্তানের বেশ কয়েকটি খ্যাতিমান পত্রিকা তাকে নিয়ে ঘটা করে সংবাদ পরিবেশন করেছে।

আলী নিজের বোলিং কারিশমা অব্যাহত রেখে করাচি আন্ত:জেলা তিনদিনের ম্যাচের প্রথম ইনিংসে একাই দখল করেছেন প্রতিপক্ষের ১০ উইকেট। ডান হাতের এই পেসারের কল্যাণেই তার দল জোন-থ্রি ইনিংস ও ১৯৫ রানের বিশাল ব্যবধানে হারিয়েছে জোন-সেভেন কে।

মঙ্গলবার (১০ জানুয়ারি) পাকিস্তানের এক সময়কার রাজধানী করাচির ইউবিএল স্পোর্টস কমপ্লেক্সে ক্রিকেটে ব্যতিক্রম এক নজিরস্থাপন করে করাচি আন্ত:জেলা জোন-থ্রি এবং জোন-সেভেন ক্রিকেট দল। ম্যাচে এক ইনিংসে ১০টি উইকেট নিয়ে মোহাম্মদ আলী এখন আলোচনায়। জিম লেকার ও অনিল কুম্বলের মতো কিংবদন্তিদের পাশাপাশি উচ্চারিত হচ্ছে তার নামও। যদিও তিনি ঘরোয়া ক্রিকেটে দশ উইকেট নিয়েছেন।

পাকিস্তান ক্রিকেট দলের এই ভবিষ্যত তারকা ৮.২ ওভার বল করে ৩টি মেডেনসহ ১২ রান দিয়ে প্রতিপক্ষের সব ব্যাটসম্যানকে সাজঘরে ফেরত পাঠান। তিনদিনের ক্রিকেট ইতিহাসে মোহাম্মদ আলীর করা এই রেকর্ড ঘরোয়া ক্রিকেটের ইতিহাসে সর্বকালের সেরা গড় উইকেটের রেকর্ড। মজার বিষয় হচ্ছে মাঠে দাঁড়িয়ে থাকা কোন ফিল্ডারের সাহায্য না নিয়েই ১০টি উইকেট নিজের ঝুলিতে পোরেন করাচির এই উঠতি ক্রিকেটার।

করাচি আন্ত:জেলা জোন-সেভেন এর ৯ জন ব্যাটসম্যান মোহাম্মদ আলীর বলে বোল্ড হন।অপর ব্যাটসম্যান এলবিডব্লিউর শিকার হন।

উল্লেখ্য, আন্তর্জাতিক ক্রিকেট ইতিহাসে প্রথম কোনো বোলার হিসেবে এক ইনিংসে ১০ উইকেট নিয়ে বিশ্বরেকর্ড গড়েন ইংল্যান্ড অফব্রেক বোলার জিম লেকার। ১৯৫৬ সালে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে অ্যাশেজ সিরিজে ওল্ড ট্রাফোর্ডে চতুর্থ টেস্টে এই কীর্তি গড়েন লেকার। সফরকারীদের দ্বিতীয় ইনিংসে ৫৩ রানে সবকয়টি উইকেট দখল করে ইতিহাস সৃষ্টি করেন লেকার।

তার বিধ্বংসী বোলিংয়ে সেই ম্যাচে অস্ট্রেলিয়াকে ইনিংস ও ১৭০ রানের বড় ব্যবধানে হারায় স্বাগতিক ইংলিশরা। ওই ম্যাচে প্রতিপক্ষের ২০টি উইকেটের মধ্যে ১৯টি নিয়ে ম্যাচটির নতুন নাম দেন লেকার। এখনও সেই টেস্ট ম্যাচটিকে ‘লেকার ম্যাচ’ হিসেবে আখ্যায়িত করা হয়।

এক ইনিংসে ১০টি উইকেট নিয়ে দ্বিতীয় বোলার হিসেবে বিশ্বরেকর্ড গড়েন ভারতের সর্বকালের সেরা স্পিনার অনিল কুম্বলে। ১৯৯৯ সালে দিল্লীর ফিরোজ শাহ কোটলায় পাকিস্তানের বিপক্ষে এক ইনিংসে দশ উইকেট নিয়ে রেকর্ড গড়েছিলেন কুম্বলে। সেই ইনিংসে ৭৪ রান খরচায় পাকিস্তানের সবকয়টি উইকেট নিজের নামের পাশে যোগ করেন কুম্বলে। ফলে সেই ম্যাচে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী পাকিস্তানকে ২১২ রানের বড় ব্যবধানে হারায় ভারত।