logo

মঙ্গলবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮ | ১০ আশ্বিন, ১৪২৫

header-ad

‘আমি রাজাকারের বাচ্চা বলছি’

শামীমুল হক | আপডেট: ১০ এপ্রিল ২০১৮

কথাসাহিত্যিক অধ্যক্ষ মিন্নত আলী তার ‘আমি রাজাকার বলছি’ বইটিতে মুক্তিযুদ্ধের অন্দর মহলের নানা চিত্র তুলে ধরেছিলেন। এ বই নিয়ে তাকে অনেক খেসারত দিতে হয়েছে।

আজ মিন্নত আলীর কথা খুব মনে পড়ছে। তিনি বেঁচে থাকলে হয়তো আজ আরেকটি বই লিখতেন ‘আমি রাজাকারের বাচ্চা বলছি’। স্বাধীনতার পর আওয়ামী লীগ ও জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর বিরুদ্ধাচরণ করে মতিয়া চৌধুরী খেতাব পেয়েছিলেন 'অগ্নিকন্যা' হিসেবে। সেই অগ্নিকন্যা যখন সংসদে দাঁড়িয়ে শাহবাগসহ সারা দেশে কোটা সংস্কার আন্দোলনের সঙ্গে জড়িতদের 'রাজাকারের বাচ্চা' বলে উক্তি করেন তখন খুব কষ্ট হয়। তখন বলতে ইচ্ছে করে কথাসাহিত্যিক মিন্নত আলীর সুরে আমি রাজাকার বলছি।

মতিয়া চৌধুরী কখন এ কথা বললেন? যখন সরকারের পক্ষ থেকে আন্দোলনকারীদের সঙ্গে বৈঠক শেষে সমাধানের চেষ্টা চলছে, তখন। তাহলে প্রশ্ন আসতেই পারে মতিয়া চৌধুরী কি এর সমাধান চান? নাকি তিনি আন্দোলনকারীদের উস্কে দিয়ে আরো বেপরোয়া পথে ঠেলে দিতে চান? বড় জানতে ইচ্ছে করে।

সোমবার কোটা সংস্কার আন্দোলনকারীদের সঙ্গে বৈঠক করেছেন সরকারের প্রভাবশালী মন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের নেতৃত্বে একটি প্রতিনিধিদল। প্রায় পৌনে দুই ঘণ্টা বৈঠকে কোটা পদ্ধতি পরীক্ষা-নিরীক্ষার কথা জানানো হয়। মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের জানান, সরকার 'রিজিট' অবস্থানে নেই। আমি তাদের আশ্বস্ত করেছি তাদের দাবির যৌক্তিকতা আমরা ইতিবাচকভাবেই দেখবো। মে মাসের ৭ তারিখের মধ্যে সরকার রিভিউ বা পরীক্ষা-নিরীক্ষা করবে। রেজাল্ট কি আসে আমরা সেটা জানিয়ে দেবো।'

তার এ কথায় আশ্বস্ত হন আন্দোলনকারীরা। ৭ই মে পর্যন্ত আন্দোলন স্থগিতের ঘোষণাও দেন। কিন্তু ওইদিনই সংসদে সরকারের একজন মন্ত্রী (মতিয়া চৌধুরী) আন্দোলনকারীদের রাজাকারের বাচ্চা বলাকে রহস্যজনক বলেই মনে হচ্ছে। আর মতিয়া চৌধুরীর এ বক্তব্য দ্রুত পৌঁছে যায় শাহবাগে। আন্দোলনকারীরা হন বিভ্রান্ত।

মতিয়া চৌধুরী সংসদে বলেন, যারা জীবন বাজি রেখে মুক্তিযুদ্ধ করেছিল, তাদের ছেলে-মেয়ে বা বংশ, সেই আরেকটি সিঁড়ি, তারা সুযোগ পাবে না রাজাকারের বাচ্চারা সুযোগ পাবে? তাদের জন্য মুক্তিযোদ্ধা কোটা সংকুচিত করতে হবে?

কথা হলো, মতিয়া চৌধুরীরা সরকারে। তারা ইচ্ছা করলে পিটিয়ে, টিয়ার শেল মেরে, জল কামান দিয়ে কিংবা গুলি করে আন্দোলনকারীদের তাড়িয়ে দেয়ার ক্ষমতা রাখেন। সরকার ইচ্ছা করলে আন্দোলনকারীদের দাবি মানবেন। ইচ্ছে না করলে মানবেন না। কিন্তু তাই বলে তাদের রাজাকারের বাচ্চা বলে সংসদে দাঁড়িয়ে গাল দেয়া কতটা যৌক্তিক?

ফেসবুকে একটি হিসাব বিভিন্ন ওয়ালে ঘুরছে। তাতে দেখা গেছে দেশের মোট জনসংখ্যা ১৫ কোটি ২৫ লাখ ১৮ হাজার ১৫০ জন। এর মধ্যে মুক্তিযোদ্ধার সংখ্যা রয়েছে ২ লাখ। যাদের কোটা ৩০%। প্রতিবন্ধী রয়েছে ২০ লাখ ১৬ হাজার; যাদের জন্য কোটা রয়েছে ১%। উপজাতি রয়েছে ১৫ লাখ ৮৬ হাজার; যাদের কোটা ৫%, নারী কোটা রয়েছে ১০%, জেলা কোটা রয়েছে ১০%। সব মিলিয়ে ৫৬% কোটা। এ হিসাবে ২.৬৩% মানুষের জন্য কোটা হলো ৫৬%। আর ৯৭.৩৭% লোকের জন্য কোটা হলো ৪৪%। এখানে মন্তব্য নিষ্প্রয়োজন। তবে সরকার যেখানে উদ্যোগ নিচ্ছে, সেখানে সরকারেরই একটি অংশ কেন উল্টো সুরে কথা বলছেন তা বোধগম্য নয়।

মতিয়া চৌধুরীর এ বক্তব্যের কড়া জবাব এসেছে আন্দোলনকারীদের পক্ষ থেকে। তার এ বক্তব্যের জন্য নিঃশর্ত ক্ষমা চাওয়ার কথা বলা হয়েছে। ওই বক্তব্য আপত্তিকর উল্লেখ করে তারা তা প্রত্যাহার ও ক্ষমা চাওয়ার সময় বেঁধে দিয়েছেন। তা না হলে তারা আবারো অবরোধ কর্মসূচির ঘোষণা দেয়ার কথা বলেছেন। এছাড়া একইসঙ্গে ভিসির বাসভবনে বহিরাগতদের হামলার নিন্দা জানায় তারা। আন্দোলনকারীরা শিক্ষার্থীদের ওপর হামলাকারী পুলিশের শাস্তি ও ক্ষতিপূরণের দাবি জানায়।

ওদিকে আজ মঙ্গলবার অর্থমন্ত্রী বলেছেন, আগামী বাজেটের পর কোটা সংস্কার নিয়ে চিন্তা করা হবে। অর্থমন্ত্রীর এ বক্তব্যেও বারুদের মতো জ্বলে ওঠে শাহবাগ চত্বর। আন্দোলনকারীদের মধ্যে দুটি ভাগ হয়ে গিয়েছিল। এ বক্তব্য তাদের এক করে দিয়েছে। তারা নতুন করে কর্মসূচি দিয়েছে। এ অবস্থায় পরিস্থিতি আরো ঘোলাটে হওয়ার আগে এ ব্যাপারে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ জরুরি বলে মনে করি।

আর মতিয়া আপাকে প্রশ্ন, আপা, আপনাকে জনতার নেত্রী হিসাবে জানি। চারদলীয় জোট সরকারের আমলে রাজপথে অনেক নির্যাতনের শিকার হয়েছেন। রাজপথ কাঁপিয়েছেন। আপনাকে দেখে গণতন্ত্রকামীরা উৎসাহ পেয়েছে। কিন্তু কি এমন হলো যে আপনি হঠাৎ করে আন্দোলনকারীদের রাজাকারের বাচ্চা বলে উক্তি করলেন। আপনি তো নিশ্চয় জানেন এ আন্দোলনে ছাত্রলীগের একাংশ সরাসরি জড়িত। এ আন্দোলনে মুক্তিযোদ্ধার সন্তানও রয়েছে। এ আন্দোলনে মুক্তিযুদ্ধের চেতনাধারীও রয়েছে। বিশেষ করে বর্তমান প্রজন্ম আপনার দল আওয়ামী লীগকে বড্ড ভালবাসে। বঙ্গবন্ধুকে আদর্শ মনে করে। আপনার এ মন্তব্য তাদের অন্তরে কতটুকু লেগেছে একটু চিন্তা করে দেখবেন কি?

ফেমাসনিউজ২৪/এসএ/এস