logo

শুক্রবার, ২২ মার্চ ২০১৯ | ৭ চৈত্র, ১৪২৫

header-ad

ইসির অপমৃত্যু ঘটেছে : কাদের সিদ্দিকী

রাজনীতি ডেস্ক | আপডেট: ০২ জানুয়ারি ২০১৯

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সবচেয়ে বেশি ক্ষ‌তি হয়েছে দেশের বলে মন্তব্য করেছেন কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের সভাপতি বঙ্গবীর আবদুল কাদের সিদ্দিকী।

২ জানুয়ারি বুধবার দুপুরে রাজধানীর মোহাম্মদপু‌রে নিজ বাসভবনে সংবাদ সম্মেলনে তিনি এমন মন্তব্য করেন।

কাদের সিদ্দিকী বলেন, এ নির্বাচনের মাধ্যমে নির্বাচন কমিশনের (ইসি) অপমৃত্যু ঘ‌টেছে। এটি একটি কল‌ঙ্কিত নির্বাচন। চট্টগ্রামের একজন প্রার্থী এক‌টি ভোটও পান‌নি। এটা পৃ‌থিবীর আশ্চর্য বিষয়ের এক‌টি। বাংলাদেশের ই‌তিহাসে এমন নির্বাচন দে‌খি‌নি। ভবিষ্যতে আওয়ামী লীগ আর মানুষের ভোটে নির্বাচনে জিততে পারবে না।

তিনি বলেন, বিদেশি কিছু ভাড়া করা পর্যবেক্ষক বলেছে- নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ হয়েছে। অথচ পা‌কিস্তান আমলে যারা নির্বাচন প‌রিচালনা করেছে তারাও এতো কারচু‌পি করেনি। শেখ হা‌সিনার এ বিজয় অল্পদিনের মধ্যে নিন্দার বিষয় হয়ে দাঁড়াবে।

কাদের সিদ্দিকী বলেন, সং‌বিধান অনুযা‌য়ী শেখ হা‌সিনার সরকারের মেয়াদ পাঁচ বছর। কিন্তু এ সময় পর্যন্ত শেখ হা‌সিনা ক্ষমতায় থাকতে পারবেন না, থাকবেন না। অধঃপতন হবেই। ক্ষমতা কখনোই চিরস্থায়ী হয় না। নিজের দলকে সাম‌লানো এক সময় শেখ হা‌সিনার জন্য ক‌ঠিন হয়ে যাবে। এমনও হতে পারে যে, তিনি পদত্যাগ না করেও চলে যেতে পারেন।

তিনি বলেন, মওলানা ভাসানী ও বঙ্গবন্ধুর আওয়ামী লীগ এখন আর নেই। এ নির্বাচনে বড় ক্ষ‌তি হয়েছে শেখ হা‌সিনার। এ ক্ষ‌তি তি‌নি পোষাতে পারবেন না। এসময় তিনি নির্বাচনের ফলাফল বা‌তিল করে অ‌বিলম্বে নির্দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচনের দা‌বি জানান।

কৃষক শ্রমিক জনতা লীগ বলেছে, এ ধরনের ঘটনা কোনো গণতান্ত্রিক দেশে সংগঠিত হওয়া অসম্ভব। মানুষের ভোটাধিকার হরণের মাধ্যমে দেশের মানুষের যে ঘৃণা বঙ্গবন্ধু কন্যা অর্জন করলেন তা দেখে আমরা মর্মাহত ও আতঙ্কিত।

'যখন স্বাভাবিক পরিবর্তনের পথ রুদ্ধ হয় তখনই অস্বাভাবিক পরিস্থিতির উদ্ভব ঘটে, যা আমাদের কারোরই কাম্য নয়। তাই দেশের ও মানুষের স্বার্থে এ নির্বাচন বাতিল করে অবিলম্বে নির্দলীয় সরকারের অধীনে নতুন জাতীয় নির্বাচনের ব্যবস্থা করতে সরকার ও নির্বাচন কমিশনের প্রতি আহবান জানানো হয়।

বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী বলেন, দেশের মানুষের আশা ছিল- একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন অর্থবহ হবে এবং দেশের জন্য কল্যাণকর হবে। কিন্তু তেমনটা হয়নি। গত ৩০ ডিসেম্বরের সাধারণ নির্বাচন একটি কলঙ্কিত অধ্যায় হিসেবে বিবেচিত হবে। সরকার ও একটি দল বিপুল ভোটে নির্বাচিত হয়েছে বলে দাবি করলেও ইতিহাস এবং পর্যবেক্ষণ সেটাকে স্বীকার করবে না।

তিনি বলেন, বাংলাদেশে নির্বাচন পদ্ধতি শুরু হওয়ার পর এরকম একতরফা নির্বাচনের নামে প্রহসন, ভোটারদের ভোট না দেয়া, যান্ত্রিক প্রক্রিয়ায় প্রশাসন দিয়ে বাক্স ভরা এবং প্রতিটি কেন্দ্রে আগের দিনে বাক্স ভরা- এমন নজির কখনো ছিল না।
ফেমাসনিউজ২৪/এফএম/এমএম